ঢাকা, আজ শনিবার, ৬ মার্চ ২০২১

যুবলীগ নেতা খালেদের অত্যাধুনিক ‘ইলেকট্রিক শক’ মেশিন!

প্রকাশ: ২০১৯-০৯-২০ ০৭:০৫:২৬ || আপডেট: ২০১৯-০৯-২০ ০৭:০৫:২৬

বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর কমলাপুর রেল স্টেশনের উল্টো দিকে ইস্টার্ন কমলাপুর টাওয়ারে ঢাকা দক্ষিণ মহানগর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার টর্চার সেলের সন্ধান পেয়েছে র‌্যাব-৩-এর একটি দল।ওই টর্চার সেল থেকে শরীরে বৈদ্যুতিক আঘাত (ইলেকট্রিক শক) দেওয়ার ডিজিটাল যন্ত্র, লাঠি, দুটি গুলিসহ অনেক যন্ত্রপাতি উদ্ধার করে র‌্যাব।

র‌্যাব জানায়, টর্চার সেলে নির্যাতনের অনেক ধরনের যন্ত্রপাতি রয়েছে। কেউ চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে টর্চার সেলে নিয়ে নির্ম’ম নি’র্যাতন চালানো হতো। শুধু তাই নয়, নি’র্যাতনের সময় শরীরে দেওয়া হতো বৈদ্যুতিক আঘাত।

মোটা মানুষের পোষা কুকুরও মোটা হয়ে থাকে: গবেষণা
যেমন মালিক তেমন কুকুর সমাজে এরকম একটি কথা প্রচলিত রয়েছে। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় প্রচলিত এই কথাটির সত্যতা প্রকাশ পেয়েছে।গবেষণায় বিজ্ঞানীরা দেখতে পান, যেসব মালিকদের অতিরিক্ত ওজন রয়েছে তাদের পোষা কুকুরদেরও মোটা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

ডেনমার্কের কোপেনহেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা কুকুরদের অতিরিক্ত ওজন নিয়ে কাজ করতে গিয়ে এই তথ্যটি আবিষ্কার করেন। তাদের এই গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রিভেনটিভ ভেটেরিনারি মেডিসিন নামক জার্নালে প্রকাশিত হয়।গবেষকরা জানান, স্বআভাবিক ওজন কিংবা হালকা-পাতলা ওজনের মানুষদের পোষা কুকুর সাধারণত অতিরিক্ত ওজনের হয় না তবে যেসব মালিক অতিরিক্ত ওজনের হয়ে থাকেন তাদের কুকুররাও ভারী এবং থলথলে হয়ে থাকে।

এক্ষেত্রে মোটা মালিকদের কুকুরের মোটা হওয়ার সম্ভাবনা শতকরা ৩৫ ভাগ বেশি। অপরদিকে কম ওজনের মানুষের পোষা কুকুরদের মোটা হওয়ার সম্ভাবনা শতকরা ১৪ ভাগ বেশি।ডেনমার্কে পোষা কুকুরদের অতিমাত্রায় মোটা হয়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে প্রথমবারের মত এই গবেষণাটি করা হয়। ঠিক কি কারণে মানুষের বন্ধু হিসেবে পরিচিত চারপেয়ে এই প্রাণীটি অতিরিক্ত ওজনের হয়ে যাচ্ছে সেটি বের করার জন্যই এই গবেষণা করা হয়।

গবেষকরা কুকুর এবং মালিকের ওজনের মধ্যে সুনির্দিষ্ট সম্পর্ক দেখতে পান।

বিজ্ঞানীরা ২৬৮ টি কুকুর নিয়ে এই গবেষণা করেন। এদের মধ্যে শতকরা ২০ ভাগই অতিরিক্ত ওজনের ছিল।

এই গবেষণায় নেতৃত্ব দেয়া গবেষক শার্লোট জর্নভাদ জানান, গড় ওজনের মালিকদের মধ্যে কুকুরকে প্রশিক্ষণ দেয়ার প্রবণতা থাকে। অপরদিকে অতিরিক্ত ওজনের মালিকরা আয়েশ করে কোথাও বসে খাবার খাওয়ার সময় খাবারের শেষ টুকরোটি তাদের কুকুরের সঙ্গে ভাগ করে খান। এতে কুকুরদের ওজন বেড়ে যেতে থাকে।

অতিরিক্ত ওজনের কুকুর স্বাভাবিক ওজনের কুকুরের তুলনায় গড়ে ১.৩ বছর কম বাঁচে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে উন্নত দেশগুলোতে অতিরিক্ত ওজন যেমন মানুষের জন্য সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে তেমনি কুকুরদের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য।

উন্নত দেশগুলোতে বর্তমানে শতকরা ৩৪ থেকে ৫৯ ভাগ কুকুরই অতিরিক্ত ওজনের। এসব কুকুরদের মানুষের মতই ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।