ঢাকা, আজ বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১

হজযাত্রীদের সেবা প্রদানে ৪ হাজার কর্মী নিয়োগ দেবে তুরস্ক

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-১৭ ০৯:৪৬:১৪ || আপডেট: ২০১৯-০৭-১৭ ০৯:৪৬:১৪

তুর্কি হজযাত্রীদেরকে প্রয়োজনীয় সেবা প্রদান করার জন্য কয়েক হাজার কর্মী নিয়োগ দিবে তুরস্ক। রোববার একটি যৌথ বিজ্ঞপ্তিতে দেশটির ধর্ম এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ঘোষণা করেছে চলতি মৌসুমে পবিত্র হজ পালনকারী মুসল্লিদেরকে সেবা প্রদানের লক্ষ্যে অন্ততপক্ষে চার হাজার কর্মী নিয়োগ দেবার কথা ভাবছে সরকার।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ বিষয়ক প্রধান পরিচালক রমজী বরজানের উদ্ধৃতি দিয়ে তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনাদলু জানিয়েছে, এ বছর তুরস্কের প্রায় ৮০ হাজার হজ পালনকারী যাত্রীদেরকে যাবতীয় সেবা প্রদান করার জন্য এই চার হাজার কর্মী নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

তিনি জানান, হজ সমাপ্ত করে দেশে ফেরার আগ পর্যন্ত তীর্থ যাত্রীদেরকে নানা রকম সহযোগিতা করবে বিশাল এই কর্মী বাহিনী। এ বছর সরকারিভাবে ২৩৮ টি এবং বেসরকারিভাবে ১২০ টির মতো কাফেলা-

পবিত্র হজ পালনের জন্য পবিত্র দুই শহর মক্কা ও মদীনা সফর করবে। রমজী বরজান জানান,এরই মধ্যে গত শুক্রবার তুরস্ক থেকে একটি কাফেলা পবিত্র হজ পালনের জন্য পবিত্র ভূমি সৌদিতে গিয়ে পৌঁছেছে।

তুরস্ক’র অর্থায়নে ইউরোপে কাঠের তৈরি প্রথম দৃষ্টিনন্দন মসজিদ!

যুক্তরাজ্যের পূর্বাঞ্চলীয় ক্যামব্রিজে উন্মুক্ত হলো ইউরোপের প্রথম ইকো বা পরিবেশবান্ধব মসজিদ। ইউরোপের সর্বাধিক ব্যয়বহুল মসজিদ হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়া মসজিদটির নির্মাণে খরচ হয়েছে ২৪ মিলিয়ন ডলার।

পরিবেশবান্ধব মসজিদটির নাম নিউ ক্যামব্রিজ মসজিদ। মসজিদে একসাথে ১ হাজার মুসল্লি নামাজ পড়তে পারবেন। এ ছাড়া জনকল্যাণমূলক নানা সুবিধার ব্যবস্থা করা হয়েছে এ মসজিদে।

স্থানীয় মুসলিম ও অমুসলিমদের সেমিনার আয়োজনের ব্যবস্থাও রয়েছে। রয়েছে শিশুদের জন্য প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা। ২০০৮ সালে ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজের লেকচারার ড. টিমোথি উইন্টার এ

মসজিদ নির্মাণের উদ্যোগ নেন এবং তহবিল সংগ্রহ শুরু করেন। প্রায় আট বছরের গবেষণা শেষে, ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে মসজিদের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে এর নির্মাণ কাজ শেষ হয়। ২৪ এপ্রিল মসজিদটি উদ্বোধন করা হয়।

মসজিদ চত্বরের সৌন্দর্য বর্ধনে অঙ্করণে কাজ করেন বিখ্যাত শিল্পী ইম্মা ক্লার্ক। এসব নকশা ২০১২ সালে মসজিদ কাউন্সিল কর্তৃক অনুমোদিত হয়। এরপর সবুজ সমারোহের আদলে কাঠ ও

ইট ও টাইলসের ব্যবহারে তৈরি করা হয় এক গম্বুজ বিশিষ্ট পরিবেশবান্ধব ক্যামব্রিজ ইকো মসজিদ। এতে ব্যবহৃত উপকরণ থেকে কার্বন নিঃসরণের পরিমাণ শূণ্যের কোটায় নামিয়ে আনা হয়েছে।

নিউ ক্যামব্রিজ মসজিদের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান টিমোথি উইন্টার বলেন, মসজিদটিতে দিনের বেলা ইলেক্ট্রিসিটি ব্যবহারের দরকার হয় না। এখানে প্রাকৃতিক আলো প্রবেশের ব্যবস্থা আছে।

মসজিদের ছাদে বৃষ্টির পানি প্রক্রিয়াজাতের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এতে ভেতরে বেশ ঠাণ্ডা অনুভূত হয়। রাতের জন্য ইলেক্ট্রিসিটি ব্যবহৃত হলেও, তা চলে সোলার প্যানেলের সাহায্যে। ইটের পিলারের বদলে ১৬টি গাছের কলাম ব্যবহার করা হয়েছে।

সবুজ সমারোহের আদলে তৈরি করা হয় এক গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ। পবিত্র কুরআনে যে সব ফলের কথা উল্লেখ করা হয়েছে, সেগুলোর সমন্বয়ে তৈরি একটি বাগান মসজিদ-কমপ্লেক্সের ভেতর থাকবে।

ইউরোপের প্রথম ইকো মসজিদ নির্মাণে এগিয়ে আসে ইউরোপসহ মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়ার বেশকটি দেশ। এটি নির্মাণে মোট খরচের প্রায় দুই তৃতীংশ খরচ করে তুরস্ক। ২০০৯ সালে ক্যামব্রিজের মিল রোডে ৪ মিলিয়ন ইউরো খরচ করে ১ একর জমি কেনা হয়।