ঢাকা, আজ বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১

এবার ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন ঘানার এমপি কেনেডি আগায়াপং

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-১৬ ২১:০৯:২৩ || আপডেট: ২০১৯-০৭-১৬ ২১:০৯:২৩

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ ঘানার (Ghana) সংসদ সদস্য (এমপি) কেনেডি আগায়াপং ইসলামধর্ম গ্রহণ করেছেন। ইসলামে দীক্ষিত হওয়ার পর নিজের নাম পরিবর্তন করে তিনি ‘শেইখ উসমান’ রেখেছেন।

ইসলামকে শান্তি-সুখের ধর্ম হিসেবে আবিষ্কারের পর তিনি ধর্ম পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেন। খবর ঘানা ওয়েবের। কিছুদিন তিনি পাকিস্তানে ছিলেন। সে সময় মুসলিম বন্ধুদের সঙ্গে বসবাস করে সম্পূর্ণরূপে বিশ্বাস করেছিলেন যে,

এই ধর্ম প্রকৃতপক্ষে শান্তির ধর্ম এবং মানবিক গুণাবলি বিকাশে উৎসাহিত করে। এই অভিজ্ঞতা তাকে কাজে দিয়েছে। সংবাদমাধ্যমকে সাবেক কেনেডি আগায়াপং জানান,

২০১২ সালে তাকে গ্রেফতারের পর মুসলমানদের প্রতি তার গভীর প্রেম বিকাশ পেয়েছিল। যখন কিছু মুসলিম যুবক দোয়া-প্রার্থনার মাধ্যমে তার মুক্তি কামনায় বিভিন্ন রকমের চেষ্টা করেছিলেন।

সে সময় কিছু মুসলিম যুবক এবং নারী-পুরুষ উভয়েই পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে কয়েক মিটার দূরে তার মুক্তির জন্য গুরুত্ব সহকারে ইবাদত-দোয়া করেছিলেন। তখন তিনি ইসলামের প্রতি আরো গভীরভাবে আকৃষ্ট হন।

ঘানা ওয়েবের নেট-২ টিভির একটি সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, যখন আমি সাঁজোয়া গাড়ির বাইরে বেরিয়ে আসি, পুলিশ সদর দপ্তরের সামনে আমার মুক্তির জন্য অনেক মুসলিমকে ইবাদত-প্রার্থনা করতে দেখেছি। এতে আমি ইসলামের প্রতি প্রীত ও তাড়িত হই।

ভারতের বর্তমান অবস্থাই প্রমাণ করে মুসলিমদের আলাদা রাষ্ট্রের দাবি সঠিক: ইমরান খান

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, ‘বর্তমান ভারতের মুসলিমদের অবস্থা প্রমাণ করে যে তাদের আলাদা রাষ্ট্রের দাবি সঠিক ছিল।’ ইমরান খান বলেন, ‘আজ ভারতে মুসলিমদের সঙ্গে যে আচরণ করা হচ্ছে তাতে মানুষ ভালোভাবেই বুঝতে পারছে যে কেন পাকিস্তানের জন্ম হয়েছিল।’

শুক্রবার পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে বেলুচ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য প্রদানকালে তিনি এই মন্তব্য করেন বলে জানিয়েছে দেশটির গণমাধ্যম জিওটিভি। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন,

‘পাকিস্তান অন্য কারও যুদ্ধে অংশগ্রহণ করবে না আবার চাপের কাছে নতিও স্বীকার করবে না। আফগানিস্তান সমস্যা সমাধানের জন্য তিনি সবসময় যুদ্ধবিরোধী বলেও উল্লেখ করেন।’ সম্প্রতি পাকিস্তানের উদ্দেশ্যে লেখা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের চিঠি প্রসঙ্গে ইমরান খান বলেন,

‘যারা আগে বলতো ‘আরও বেশি কিছু কর’, আজ তারা সাহায্য চাচ্ছে। এটাই প্রমাণ করে আলোচনার মাধ্যমেই আফগানিস্তান সমস্যা সমাধান সম্ভব।’ এর আগে বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যম

‘ওয়াশিংটন পোস্ট’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারেও একই ধরনের কথা বলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান কারও ভাড়া করা বন্দুক হিসেবে কাজ করবে না।’ যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক নিয়ে কথা বলতে গিয়ে ইমরান খান বলেন,

‘আমি এমন কোনও সম্পর্ক রাখতে চাই না যেখানে পাকিস্তানকে ভাড়া করা বন্দুক হিসেবে মনে করা হয় এবং অন্য কারও যুদ্ধে অংশগ্রহণের জন্য টাকা দেয়া হয়।’ তিনি আরও বলেন,

‘এই যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে আমাদের অনেক মানুষ মারা গেছে, আমাদের উপজাতীয় এলাকাগুলো ধ্বংস হয়েছে। শুধু তাই নয়, এর ফলে আমাদের সম্মানও ক্ষুণ্ণ হয়েছে। আমরা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে একটি যথাযথ সম্পর্ক রাখতে চাই।’