ঢাকা, আজ বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১

গবেষণার মাধ্যে ইসলামের সত্যতা পেয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন ইতালি’র মনোবিজ্ঞানী

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-১৬ ২১:০২:৫৯ || আপডেট: ২০১৯-০৭-১৬ ২১:০২:৫৯

ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন ইতালির রোমের অধিবাসী এক নারী মনোবিজ্ঞানী। ইরানের মাশহাদ শহরে বিশ্বনবীর (সা.) বংশধর ইমাম রেজার (আ:) মাজারে প্রবেশ করে তিনি ইসলাম গ্রহণ করেন।

রোকসানা ইলিনা নেগ্রা নামের ৩৮ বছর বয়স্ক এই নারী মনোরোগ একজন মনোবিজ্ঞানী। ইসলাম ধর্ম গ্রহণ প্রসঙ্গে রোকসানা বলেছেন, মনোবিজ্ঞান বিষয়ে ব্যাপক গবেষণা এবং নবী-রাসূলদের জীবনী ও তাদের প্রচারিত আসমানি ধর্মগ্রন্থগুলো পড়ে নানা ধর্ম ও

বিশেষ করে ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে জানতে পারেন। আর এভাবেই ইসলাম ধর্মের সত্যতার বিষয়টি তিনি বুঝতে সক্ষম হন। তিনি বলেছেন, নামাজ পড়া শিখে তার এ ধারণা হয়েছে যে নামাজ মহান আল্লাহর নির্দেশিত এমন এক অনুশীলন যা মানুষকে এনে দেয় প্রশান্তি।

ইসরাইলকে একটি বৈধ রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিতে চায় বাহরাইন!

দখলদার ইসরাইলকে একটি বৈধ রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিতে আহ্বান জানিয়েছেন বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খালিদ বিন আহমেদ আল খলিফা। তার এই উদ্যোগের নিন্দা জানিয়েছে ফিলিস্তিনিদের একটি সংগঠন পপুলার ফ্রন্ট ফর দ্যা লিবারেশন অফ প্যালেস্টাইন (পিএফএলপি)। খবর ইয়েনি শাফাকের।

এক বিবৃতিতে পিএফএলপি জানায়, বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মন্তব্য স্পষ্ট বিশ্বাসঘাতকতা। ফিলিস্তিনি ইস্যু মুছে দেয়ার পরিকল্পনায় বাহরাইনের সরকার গভীরভাবে জড়িত।

এতে বলা হয়, তাদের এই অবস্থান ভ্রাতৃতুল্য বাহরাইনের জনগণের সঙ্গে বৈপরীত্য অবস্থান তৈরি করবে। বাহরাইনের জনগণ ফিলিস্তিনিদের ইস্যু ও আরবদের অধিকার নিয়ে শক্তিশালী সমর্থন জানিয়েছে।

এর আগে বুধবার বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী টাইমস অব ইসরাইলকে বলেছেন, এই অঞ্চলে ইসরাইল একটি দেশ এবং তাদের থাকার প্রয়োজন আছে। ‘সুতরাং আমরা বিশ্বাস করি ইসরাইল একটি দেশ হিসেবে থাকবে এবং আমরা চাই এর সঙ্গে ভালো সম্পর্ক থাকুক। আমরা এর সঙ্গে শান্তি চাই।’

ইসরাইল-ফিলিস্তিনের সংকটের সমাধান নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘শতাব্দীর সেরা সমঝোতার’ অর্থনৈতিক অংশের আলোচনা বসে বাহরাইনে। শুরু থেকেই এর বিরোধিতা করে আসছে বাহরাইনের জনগণ।

মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া দুইদিনব্যাপী বৈঠক ফিলিস্তিনি নেতারা প্রথম থেকেই বয়কট করেন। এর দুইদিন আগে বাহরাইনে সমাজকর্মীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মার্কিন নেতৃত্বাধীন আলোচনার বিরুদ্ধে জোরালো প্রচারণা চালায়।

মানামায় আলোচনা অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়ে দেশটির জনগণের তোপের মুখে পড়ে বাহরাইন সরকার। প্রত্যেক বাড়িতে ফিলিস্তিনের পতাকা বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের প্রত্যাশা ব্যর্থ হয়।

যুদ্ধকবলিত ইয়েমেন থেকে অনেক সেনা প্রত্যাহার করেছে আমিরাত

যুদ্ধকবলিত ইয়েমেন থেকে বহু সেনা প্রত্যাহার করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। আমেরিকা ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা বেড়ে যাওয়ার পর একরকম ভয় থেকে আমিরাত সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পশ্চিমা কূটনীতিকের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স আজ (শুক্রবার) জানিয়েছে, পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে সাম্প্রতিক উত্তেজনার কারণে আবুধাবি চাইছে সেনা ও অস্ত্র দেশের ভেতরে থাকুক।

জন্য ইয়েমেনে থেকে সেনা প্রত্যাহার করেছে দেশটি। মার্কিন ড্রোন আরকিউ-৪এ গ্লোবাল হক ভূপাতিত করেছে ইরান পশ্চিমা কূটনীতিক জানান, গত তিন সপ্তাহ ধরে আরব আমিরাত সরকার ইয়েমেন থেকে বহু সেনা প্রত্যাহার করেছে।

তবে সেনা প্রত্যাহারের কো নিশ্চিত করে আরব আমিরাতের একজন শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা বলেন, তার সরকার ইয়েমেন থেকে সব সেনা প্রত্যাহার করবে না বরং সৌদি জোটের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকবে।

ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন সরকারের যুদ্ধের হুমকি এবং ড্রোন পাঠিয়ে ইরানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করার পর তা ভূপাতিত করার ঘটনায় মধ্যপ্রাচ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এরইমধ্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানে স্বল্প মেয়াদি যুদ্ধের ইঙ্গিত দিয়েছেন।