ঢাকা, আজ রোববার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১

ইমরান এইচ সরকারের সার্টিফিকেট চুরি!

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-১০ ২০:৪৯:২৪ || আপডেট: ২০১৯-০৭-১০ ২০:৪৯:২৪

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারের গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলার রাজীবপুর উপজেলার বালিয়ামারীতে চুরির ঘটনা ঘটেছে।মঙ্গলবার দিবাগত গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটেছে। চোরেরা জমির দলিল, স্বর্ণালঙ্কারের সঙ্গে ইমরান এইচ সরকারের সার্টিফিকেটগুলোও নিয়ে গেছে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছেখবর পেয়ে রাজীবপুর থানার এসআই সিদ্দিকুর রহমান ও পুলিশের একটি দল বুধবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। পুলিশের দাবি এটি ডাকাতি নয় দুধর্ষ চুরি।এ বিষয়ে জানতে চাইলে এসআই সিদ্দিকুর রহমান বলেন, সরেজমিন জিজ্ঞাসাবাদে জেনেছি ঘরগুলোতে তালা দেয়া ছিল না। ঘরের আসবাবপত্রের বিভিন্ন ড্রয়ারে রাখা কাগজপত্র এলোমেলো করা অবস্থায় পাওয়া গেছে। তবে কি কি চুরি হয়েছে নির্দিষ্ট করে তিনি বলতে পারেননি ইমরান এইচ সরকারের বাবা।ইমরান এইচ সরকারের পিতা মতিউর রহমান বলেন, বাড়িতে আমরা স্বামী-স্ত্রী ছাড়া কেউ থাকে না। গত রাতে মুষলধারে বৃষ্টি হয়েছে আমরা স্বামী-স্ত্রী ঘুমিয়েছিলাম। বৃষ্টি হওয়াতে কোনো শব্দ টের পাইনি। সকালে উঠে দেখি ইমরানের রুমসহ পাঁচটি রুম খোলা।

তিনি বলেন, চোরেরা ঘরের বিভিন্ন কাগজপত্র এলোমেলো করেছে। ইমরানের সার্টিফিকেটগুলো খুজে পাচ্ছি না। জমির দলিল ছিল সেগুলোও নেই। কয়েকটি নতুন কাপড় ও গয়না ছিল সেগুলোও নেই। এসব স্বর্ণালঙ্কার ও কাপড় চোপরের মুল্য প্রায় আড়াই লাখ টাকা।ইমরান এইচ সরকারের মা হাসিনা সরকার জানান, বুধবার সকালে তারা ঘুম থেকে উঠে দেখতে পান বাড়ির সামনে কাগজপত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। পরে বিল্ডিংয়ের ৫টি কক্ষের দরজা খোলা দেখতে পান। ঘরের ভেতরে গহণা ও মূল্যবান দলিলপত্র দুর্বৃত্তরা নিয়ে গেছে।নিজ বাড়তি চুরির বিষয়ে জানতে চাইলে মোবাইল ফোনে ঢাকায় অবস্থানরত ইমরান এইচ সরকার বলেন, সকালে বাবার কাছে ফোনে এ খবর পেয়েছি। বাড়িতে আমার মূল্যবান অনেক কাগজপত্র ও সার্টিফেকেট ছিল, সেগুলো নাকি পাওয়া যাচ্ছে না। নতুন কিছু কাপড় ছিল সোনার গয়না ছিল সেগুলোও গায়েব। বিষয়টি আমি কুড়িগ্রাম পুলিশ সুপারকে জানিয়েছি।রাজীবপুর থানার ওসি রবিউল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাইনি। আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অনেকে এটিকে ডাকাতি বলে গুজব ছড়ালেও প্রকৃতপক্ষে এটি একটি চুরি ছাড়া কিছুই না। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

ভারতকে কাঁদিয়ে ফাইনালে নিউজিল্যান্ড

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ভারতকে ১৮ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপ ফাইনালে নিউজিল্যান্ড। ম্যাট হেনরি ও ট্রেন্ট বোল্টের বোলিং নৈপুণ্যে আবারও ফাইনালে নিউজিল্যান্ড।টানটান উত্তেজনাকর ম্যাচে লড়াই করেও হেরে গেল ভারত। ৫ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চরম বিপদে পড়ে যাওয়ার পর হার্দিক পান্ডিয়া ও রিশব প্যান্টের ব্যাটে ৯২ রানে ৬ উইকেট করেছিল ভারত।এরপর সপ্তম উইকেটে ১১৬ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের স্বপ্ন দেখান রবিন্দ্র জাদেজা ও মহেন্দ্র সিং ধোনি। জয়ের জন্য শেষ দিকে ভারতের প্রয়োজন ছিল ১৪ বলে ৩২ রান। খেলার এমন অবস্থায় উইকেট হারান দুর্দান্ত ব্যাটিং করে যাওয়া রবিন্দ্র জাদেজা। তার বিদায়ে জয়ের স্বপ্ন ভেঙে যায় ভারতের।শেষ ১২ বলে জয়ের জন্য ভারতের প্রয়োজন ছিল ৩১ রান। ৪৯তম ওভারে ফাগুর্নসনের প্রথম বলে ছক্কা হাঁকিয়ে আবারও স্বপ্ন দেখান মহেন্দ্র সিং ধোনি। কিন্তু ওভারের তৃতীয় বলে মার্টিন গাপটিলের থ্রোতে ধোনির স্ট্যাম্প ভেঙ্গে গেলে জয়ের স্বপ্ন ভেঙে যায় ভারতের।

নিশ্চিত পরাজয়ের ম্যাচেও অসাধারণ ব্যাটিং করেছেন রবিন্দ্র জাদেজা ও মহেন্দ্র সিং ধোনি। তাদের ব্যাটিং দৃঢ়তায় বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনাল ম্যাচটি প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হয়েছে। দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ের দিনে হাল ধরেন তারা। তাদের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে জয়ের স্বপ্ন দেখছে ভারত।বুধবার ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টারে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২৪০ রানের মামুলি স্কোর তাড়া করতে নেমে মাত্র ৫ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে শুরুতেই বিপদে পড়ে যায় ভারত।ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের তৃতীয় বলে দলীয় ৪ রানে ম্যাট হেনরির বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ তুলে দেন রোহিত শর্মা। আগের তিন ম্যাচে টানা সেঞ্চুরি করা রোহিত এদিন ফেরেন চার বলে মাত্র ১ রান করে।রোহিত শর্মার বিদায়ের পর উইকেটে নেমে ৬ বল খেলার সুযোগ পান বিরাট কোহলি। বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান ট্রেন্ট বোল্টের গতির বলে এলবিডব্লিউ হন। রিভিউ নিয়েও উইকেট বাঁচাতে পারেননি তিনি। কোহলি ফেরেন মাত্র ১ রান করে।চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে ম্যাট হেনরির বলেই উইকেটের পেছনে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন অন্য ওপেনার লোকেশ রাহুল। তিনিও ফেরেন মাত্র এক রানে। বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথম তিন ব্যাটসম্যান এভাবে ১ রান করে আউট হওয়ার রেকর্ড এবারই প্রথম।

মাত্র ৫ রানে ৩ ব্যাটসম্যানের উইকেট হারিয়ে চরম বিপর্যয়ে পড়ে যায় কোহলিরা।দলের এমন কঠিন বিপর্যয়ের ম্যাচে হাল ধরবেন বলে দিনেশ কার্তিকের প্রতি ভরসা করেছিলেন ভারতীয় সমর্থকরা। দলের এই দুঃসময়ে তিনিও নিজে ত্রাতা হিসেবে আবির্ভূত হতে পারেননি।ম্যাট হেনরির বলে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে জেমস নিশামের বাঁ-হাতের অসাধারণ ক্যাচে পরিণত হন কার্তিক। তার বিদায়ের মধ্য দিয়ে ১০ ওভারে মাত্র ২৪ রানে প্রথম সারির ৪ ব্যাটসম্যানের উইকেট হারিয়ে চরম বিপদে পড়ে যায় ভারত।পঞ্চম উইকেটে হার্দিক পান্ডিয়ার সঙ্গে ৪৭ রানের জুটি গড়ে দলকে খেলায় ফেরাতে চেষ্টা করেন রিশব প্যান্ট। আগের ১২ বলে মাত্র ১ রান নেয় ভারত। পরপর ডটবল খেলার কারণে বাউন্ডারি হাঁকাতে চেষ্টা করেছিলেন প্যান্ট। কিন্তু মিচেল স্যান্টনারের বল তুলে মারতে গিয়ে কলিন ডি গ্রান্ডহোমের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন তিনি। তার আগে ৫৬ বলে মাত্র ৩২ রান করেন রিশব প্যান্ট।এরপর ২১ রানের ব্যবধানে মিচেল স্যান্টনারের দ্বিতীয় শিকার হন হার্দিক পান্ডিয়া। তার আগে ৬২ বলে ৩২ রান করেন তিনি। পান্ডিয়ার বিদায়ের মধ্য দিয়ে ৩০.৩ ওভারে ৯২ রানে ৬ উইকেট হারায় ভারত।সপ্তম উইকেটে রবিন্দ্র জাদেজাকে সঙ্গে নিয়ে ১১৬ রানের অনবদ্য জুটি গড়ে দলকে জয়ের স্নবপ্ন দেখান মহেন্দ্র সিং ধোনি। তবে শেষ দিকে জাদেজা ও ধোনি আউট হলে তীরে গিয়ে তরী ডুবে ভারতের।

কোরআনের শিক্ষার অভাবে মানুষ চরিত্রহীন হচ্ছে: চরমোনাই পীর

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম (পীর সাহেব চরমোনাই) বলেছেন, দুনিয়াতে যতদিন ওহীভিত্তিক শিক্ষা ব্যবস্থা থাকবে ততদিন দুনিয়া টিকে থাকবে। কোরআনের শিক্ষার অভাবে মানুষ চরিত্রহীন হচ্ছে।তিনি বলেন, কোরআনী শিক্ষায় শিক্ষিত জাতি কখনো অনৈতিক কাজে জড়াতে পারে না। সমাজে অশান্তির মূলেই রয়েছে নৈতিকতা বিবর্জিত শিক্ষা ব্যবস্থা। ইলমে ওহীর শিক্ষা প্রসারে সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে।বুধবার জয়পুরহাটে আশরাফুল উলুম কওমী মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।চরমোনাই পীর আরও বলেন, ইসলাম কল্যাণের ধর্ম। মানবতা শান্তির ধর্ম। ইসলামকে বিশ্বব্যাপী কলুষিত করতে ইসলামবিরোধী শক্তিগুলো জঙ্গিবাদ ও আইএসের জন্ম দিয়েছে। বিশ্বব্যাপী ইসলামের সুমহান পতাকাতলে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ শামিল হচ্ছে।এ থেকে তাদেরকে ফিরিয়ে নিতেই আইএস ও জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটানো হয়েছে। ইসলাম চরমপন্থা ও জঙ্গিবাদে বিশ্বাসী নয়।তিনি সকলকে ইসলামবিরোধী সকল কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান।

‘সিইসিকে হাশরের দিন নির্বাচন নিয়ে প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে’

নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে সিইসিকে রোজ হাশরের দিন প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে বলে মন্তব্য করেছে বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী সৈয়দ আবুল মকসুদ।মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন আয়োজিত ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল বিশ্লেষণ’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন,সিইসিকে অন্য কোনো ব্যাপারে না হলেও রোজ হাশরের দিন এই নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে। এত সহজে কেউ তাকে ক্ষমা করবে না, আল্লাহও ক্ষমা করবেন না।

তিনি আরও বলেন, অতীতে বাংলাদেশে অনেক অস্বচ্ছ নির্বাচন হয়েছে, গোজামিলের নির্বাচন হয়েছে। এবারে নির্বাচন কমিশন গোজামিলে না গিয়ে তারা একেবারে ‘সোজামিলে’ চলে গেছে। সোজামিল মানে শতভাগ ভোট। এই সোজামিলের ঘটনা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়।প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল বিশ্লেষণ করে নানা অসঙ্গতি তুলে ধরে ‘সুজন’ বলেছে, এ নির্বাচন অনিয়মের খনি, একটি কলঙ্কজনক অধ্যায়। এ নির্বাচনে ১০৩টি আসনের ২১৩টি ভোটকেন্দ্রে শতভাগ ভোট পড়েছে। যা কোনোক্রমেই বিশ্বাসযোগ্য নয়।নির্বাচনের অনিয়মে ঘটনার তদন্ত করতে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) বিরুদ্ধে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলর গঠন করার দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।\