ঢাকা, আজ শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০

রাস্তায় রাস্তায় কলা বিক্রি করছেন টানা ১৫ বছর শিক্ষকতা করা স্কুলশিক্ষক

প্রকাশ: ২০২০-০৬-০৮ ১৮:৪৪:২৩ || আপডেট: ২০২০-০৬-০৮ ১৮:৪৪:২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনাভাইরাস মহামা’রির কারণে গত মার্চে দেশজুড়ে লকডাউনের ঘোষণা করেছিলেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৷ লকডাউন নির্দেশনার পাশাপাশি তার অনুরোধ ছিল, এমন বি’পদের সময় যেন কাউকে চাকরিচ্যূত করা না হয়। তবে বাস্তব প’রিস্থিতি ভি’ন্ন ৷ প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা সত্ত্বেও ভারতে ইতোমধ্যেই প্রায় ১৩ কোটি মানুষ চাকরি হারিয়েছেন বলে এক জরিপে জানা গেছে৷ এসব ভুক্তভোগীর মধ্যে একজন স্কুলশিক্ষক পাট্টেম ভেঙ্কট সুব্বাইআহের৷

লকডাউনের সময় স্কুলের চাকরি হারিয়ে এখন রাস্তায় রাস্তায় কলা বিক্রি করছেন টানা ১৫ বছর শিক্ষকতা করা এ ব্যক্তি। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, স্কুলশিক্ষক হিসেবে সুব্বাইআহের মাসিক আয় ছিল ১৬ হাজার ৮০০ রুপি৷ এখন কলা বিক্রি করে দৈনিক ২০০ টাকাও রোজগার করা ক’ঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে৷

স্কুলশিক্ষক সুব্বাইআহের জানিয়েছেন, মার্চে লকডাউন ঘোষণা হতেই স্কুল কর্তৃপক্ষ এক ধা’ক্কায় বেতন অর্ধেক করে দেয়৷ এখানেই শেষ নয়, বেতন ৫০ শতাংশ কমানোর পরও কয়েকজন শিক্ষককে চাকরি ধ’রে রাখতে শর্ত দেয়া হয়, কয়েকদিনের মধ্যে নতুন ৭-৮ জন ছাত্র ভর্তি করাতে হবে৷ টার্গেট পূরণ না হলে সেই শিক্ষকের জন্য স্কুলের দরজা চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে বলেও হুঁ’শিয়ারি দেয় কর্তৃপক্ষ৷

চাকরি বাঁ’চানোর চেষ্টা করেছিলেন সুব্বাইআহের৷ কিন্তু সফল হতে পারেননি। তিনি বলেন, করোনা আত’ঙ্কের কারণে অনেকে বাড়িতে ঢুকতে দিতেই রাজি হয় না, স্কুলে ভর্তি তো দূরের কথা ৷ ফলে সময়সীমা শেষ হয়ে গেলে ছাত্র ভর্তি করাতে না পারায় চাকরি চলে যায় এ ভাষা শিক্ষককের৷

এর মধ্যে পে’টের দায় তো আছেই, সাড়ে তিন লাখ রুপি ঋণের বোঝাও রয়েছে তার কাঁধে। দুই সন্তানের পিতা সুব্বাইআহের সম্প্রতি চিকিৎসার জন্য এই অর্থ ঋণ নিয়েছিলেন ৷ এর জন্য প্রতি মাসে আট হাজার রুপি পরিশোধ করতে হয় তাকে৷

ফলে আয় বন্ধ হতেই মাথায় যেন আকাশ ভে’ঙে পড়ে পুরো পরিবারের ৷ বাধ্য হয়েই রাস্তায় রাস্তায় কলা বিক্রি করতে হচ্ছে এ অসহায় শিক্ষক। এদিকে, এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই অন্ধ্র প্রদেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে বিতর্ক৷ ইতোমধ্যেই ঘটনার উপযুক্ত তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে প্রশাসন। সূত্র: নিউজ১৮