ঢাকা, আজ শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০

কাস্তে দিয়ে মেয়ের গ’লা বি’চ্ছিন্ন করে দিলেন পা’ষণ্ড বাবা

প্রকাশ: ২০২০-০৫-৩১ ১০:০৪:৩২ || আপডেট: ২০২০-০৫-৩১ ১০:০৮:৫২

বাবা-মা হলো সন্তানের সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয়স্থল। কিন্তু সেই বাবা-মাই যদি ঘা’তক হয়ে উঠেন তাহলে সন্তান যাবে কোথায়! এমনই এক ঘ’টনা ঘটেছে ইরানে। ১৪ বছরের এক কিশোরীকে অত্যন্ত নি’র্মমভাবে হ’ত্যা করেছে তার বাবা। এ ঘট’নায় নিন্দার ঝড় বইছে পুরো null

null

nullইরানজুড়ে। জানা গেছে, রমিনা আশরাফি নামে ওই মেয়েটির বাড়ি তেহরান থেকে প্রায় ৩২১ কিলোমিটার উত্তরপশ্চিমের কাউন্টি তালেশের শহরে। ১৪ বছরের রমিনা ২৯ বছর বয়সী এক যুবককে ভালোবাসতো। null

null

nullকিন্তু পরিবার তাদের বিয়ে মেনে নিতে সম্মত না হওয়ায় মে মাসের মাঝামাঝিতে সে যুবকের হাত ধরে পালিয়ে যায়। ইরানের আইন অনুযায়ী ১৩ বছর বয়সে মেয়েরা বিয়ের উপযুক্ত হয়। পরবর্তীতে পুলিশের null

null

nullহাতে ধরা পড়লে পুলিশ মেয়েটিকে তার পরিবারের জিম্মায় দিয়ে দেয়। যদিও আশরাফি বারবার তাকে বাড়ি না পাঠানোর আকুতি জানায়। পাঠালে তাকে মে’রে ফেলা হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে। কিন্তু তারnull

null

null অনুরোধে সাড়া দেয়নি পুলিশ। ২১ মে আশরাফি যখন তার কক্ষে ঘুমচ্ছিল, বাবা একটি কাস্তে নিয়ে ঢুকে পড়ে এবং আ’ঘাত করে তার মা’থা দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। এ ঘটনায় ঘা’তক বাবা null

null

nullঅপ’রাধ স্বীকার করেছে এবং পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে। পরিবারের সম্মান রক্ষার যুক্তিতে ‘অনার কিলিং’ নামক এমন নি’র্মম হ’ত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করেছে ইরানের মানুষ। ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও। ইরানের আইন অনুযায়ী, অনার কিলিংয়ে বা কোনো ব্যক্তি যদি তার মেয়েকে খু’নের দায়ে দোষী সাব্যস্ত হন তাহলে তাকে ৩ null

null

nullথেকে সর্বোচ্চ ১০ বছর কারাদণ্ড দেয়ার নিয়ম রয়েছে। যদিও অন্যান্য খু’নের ক্ষেত্রে সাধারণত অর্থ বা মৃ’ত্যুদণ্ড দেয়া হয়।