ঢাকা, আজ বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০

৫০০ কোটি টাকা ঋণ না দেয়ায় এক্সিম ব্যাংকের এমডিকে গু’লি করে হ’ত্যার হু’মকি!

প্রকাশ: ২০২০-০৫-৩০ ০৮:৪৭:৩৪ || আপডেট: ২০২০-০৫-৩০ ০৮:৪৭:৩৪

এক্সিম ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী ড. মোহাম্মদ হায়দার আলীকে গু’লি করার অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে। গুলশান থানায় এক্সিম ব্যাংক কর্তৃপক্ষের দায়ের করা মা’মলার বিবরণী থেকে জানা যায়, ঋণের জন্য বন্ধকি সম্পত্তির মূল্য বেশি দেখাতে রাজি না হওয়ায় null

null

nullএক্সিম ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ হায়দার আলী মিয়া ও অতিরিক্ত এমডি মোহাম্মদ ফিরোজ হোসেনকে গু’লি করে হ’ত্যার চে’ষ্টা করেন সিকদার গ্রুপের দুই পরিচালক। শুধু তাই নয়, null

null

nullতাঁরা পদস্থ দুই ব্যাংক কর্মকর্তাকে বনানীর একটি বাসায় জোর করে আট রেখে নি’র্যাতন করেন এবং সাদা কাগজে সই নেন। যাদের বিরুদ্ধে এই অ’ভিযোগ তাঁরা হলেন সিকদার গ্রুপের মালিক জয়নাল সিকদারের null

null

nullছেলে এবং গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রন হক সিকদার ও তাঁর ভাই দিপু হক সিকদার। মাম’লা দায়ের পর থেকে দুই ভাই প’লাতক আছেন। মাম’লার ব্যাপারে জানতে চাইলে গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান বলেন, বাদীর লিখিত অ’ভিযোগ পাওয়ার পর মা’মলা নেওয়া হয়েছে। এই মাম’লার দুই আসামি পলা’তক null

null

nullআছেন। তাঁদের পেলেই গ্রেপ্তার করা হবে। মাম’লার বিবরণে উল্লেখ করা হয়েছে, ঘটনাটি ঘটেছে গত ৭ মে। আর এক্সিম ব্যাংক মাম’লা করেছে গত ১৯ মে। পুরো ঘটনাটি ৫০০ কোটি টাকা ঋণ প্রস্তাব নিয়ে। এই ঋণের বিপরীতে বন্ধকি সম্পত্তি পরিদর্শনের নামে এক্সিম ব্যাংকের দুই কর্মকর্তাকে ডেকে আনা হয়েছিল। এ সময় জামানত হিসেবে ওইnull

null

null সম্পত্তির বন্ধকি মূল্য কম উল্লেখ করেন ব্যাংকটির এমডি ও অতিরিক্ত এমডি। এরপরেই গু’লি ও মার’ধরের ঘ’টনা ঘটে। রন হক সিকদার ও দিপু হক সিকদার ব্যাংকটির এমডির কাছে একটি সাদা কাগজে জোরnull

null

null করে সাক্ষর নেন। সিকদার গ্রুপের চেয়ারম্যান জয়নুল হক সিকদারের সঙ্গে তাঁর ছবিও তোলা হয়।