ঢাকা, আজ শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০

করোনা আক্রান্ত ভাইকে দেখতে গিয়ে ক’রোনায় বোনের মৃ’ত্যু

প্রকাশ: ২০২০-০৫-২৯ ১১:০৩:০৯ || আপডেট: ২০২০-০৫-২৯ ১১:০৯:২২

ঢাকায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ভাইকে দেখতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মা’রা গেলেন বোন। করোনায় মারা যাওয়া নাজমুন নাহার কুমিল্লার হোমনা উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা।
null

null

null
বৃহস্পতিবার (২৮ মে) সকাল সাড়ে ৮টায় রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। বর্তমানে তার স্বামী ও দুই সন্তান করোনাভাইরাসে আক্রান্ত।
null

null

null
করোনায় যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হোমনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাপ্তি চাকমা।এদিকে, কুমিল্লায় গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৭০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৭৮১ জনে। বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় কুমিল্লার সিভিল সার্জন ডা. মো. নিয়াতুজ্জামান এ তথ্য জানিয়েছেন।
null

null

null
সিভিল সার্জন বলেন, জেলায় নতুন করে আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন- কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুইজন এবং জেলার আদর্শ সদরে ছয়জন, হোমনায় দুইজন, বুড়িচংয়ে ২০ জন, লাকসামে ছয়জন, চান্দিনায় ১৭ জন, লালমাইয়ে দুইজন এবং মুরাদনগরে ১৫ জন। এ পর্যন্ত জেলায় সুস্থ হয়েছেন মোট ১০০ জন।
null

null

null
ডা. মো. নিয়াতুজ্জামান বলেন, জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে এ পর্যন্ত আট হাজার ১৫৪ জনের নমুনা পাঠানোর পর রিপোর্ট এসেছে সাত হাজার ৪৩৫ জনের। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৭৮১ জনের এবং মারা গেছেন মোট ২৩ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্তদের তালিকায় রয়েছেন দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুফিয়া বেগম ও তার স্বামী।
null

null

null
হোমনার ইউএনও তাপ্তি চাকমা বলেন, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা নাজমুন নাহার করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় মারা গেছেন। ছুটিতে থাক অবস্থায় ঢাকায় তার করোনা আক্রান্ত ভাইকে দেখতে গিয়েই করোনায় আক্রান্ত হন তিনি। প্রতিদিনই তিনি হোমনায় অফিস করে আবার ঢাকায়
null

null

null
যেতেন। নাজমুন নাহার বেশ কিছুদিন ছুটিতে ছিলেন। তার স্বামী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। বর্তমানে তারা সবাই করোনায় আক্রান্ত। নাজমুন নাহার ২০১০ সালে হোমনায় চাকরিতে যোগ দিয়ে প্রতিদিনই ঢাকা-হোমনায় আসা-যাওয়া করতেন।
null

null

null
ওই কর্মকর্তার মৃত্যুতে স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ মেরী, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রেহানা মজিদ, ভাইস চেয়ারম্যান মহসীন সরকার ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসিমা আক্তার রীনাসতহ উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন।
null

null

null