ঢাকা, আজ শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

ভারতে পঙ্গপালের ভয়ঙ্কর হানায় ঘুম হারাম তিন রাজ্যে, চরম হুমকিতে ভারতের অর্থনীতি

প্রকাশ: ২০২০-০৫-২৬ ১০:২৪:১১ || আপডেট: ২০২০-০৫-২৬ ১০:২৪:১১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : একদিকে করোনা অন্যদিকে আম্ফানের তা’ণ্ডব কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই পঙ্গপালের হা’না। চ’রম হু’মকিতে ভারতের অর্থনীতি। এ মাসের শুরুতে রাজস্থানে প্রবেশের পর এখন মধ্যপ্রদেশ ও উত্তর প্রদেশেও ছড়িয়ে পড়েছে পঙ্গপালের কয়েকটি ঝাঁক। এদের একটি দল দিল্লীর দিকে যাচ্ছে বলেও অনুমান করা হচ্ছে। প্রায় আড়াই থেকে ৩ কিলোমিটার দীর্ঘ পঙ্গপালের এ ঝাঁ’ক থেকে রক্ষা পেতে null
null
nullউত্তরপ্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশের কৃষক ও কর্মকর্তাদের ঘুম হারাম। ফসল বাঁচাতে সত’র্কতা অবলম্বন করছে দুই রাজ্যের সরকার। কোথাও রাসায়নিক স্প্রে কোথাও বা ধাতব শব্দ করে পঙ্গপালের হাত থেকে রেহাই পেতে চেষ্টা করছে চাষিরা। রাজস্থান থেকে ড্রোন চাওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে। মধ্যপ্রদেশের কর্মকর্তারা জানান, ২৭ বছরের মধ্যে বৃহত্তম পঙ্গপালের আ’ক্র’মণ হতে চলেছে এ রাজ্যে। বর্ষা না আসা পর্যন্ত এই সং’ক’ট বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। রাজস্থানের বেশ কয়েকটি null
null
nullজায়গায় সবজি, ফসল ও গাছ ধ্বং’স করার পর পঙ্গপালের একটি ঝাঁ’ক মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহের নির্বাচনী এলাকা বুধনিতে প্রবেশ করে। এরা রাজ্যের নিমুচ জেলা দিয়ে প্রবেশ করেছে, পরে মালওয়া নিমারের কিছু অংশ পাড়ি দিয়ে এখন ভোপালের কাছে রয়েছে। রাজ্য কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক কমল কাটিয়ার বলেন, ”আমরা খবর পেয়েছি রাজ্যে ২.৫ থেকে ৩ কিলোমিটার দীর্ঘ পঙ্গপালের ঝাঁক ঢুকে পড়েছে। তবে রাজস্থানের কোটা থেকে একটি দল রাজ্যে আসছে null
null
nullপঙ্গপাল মোকাবিলায় সহায়তা করতে।” বিশেষজ্ঞরা হুঁ’শিয়ারি দিয়েছেন, খুব শিগগরই পঙ্গপাল নিয়’ন্ত্রণ করা না গেলে প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকার স্থায়ী মুগ ডালের ফসল ন’ষ্ট করতে পারে শুধু মধ্যপ্রদেশে। ফল ও শাকসবজির বাগানগুলোও ক্ষ’তিগ্র’স্থ করবে। তারা জানান, এগুলো নিয়’ন্ত্রণ করা না গেলে এবং দীর্ঘ দূরত্ব পাড়ি দিয়ে ফেললে কয়েক হাজার কোটি টাকার তুলা ও মরিচ ফসলেরও ক্ষ’তি হতে পারে। রাজস্থান থেকে উত্তর প্রদেশেও পঙ্গপালের দল ছড়িয়ে null
null
nullপড়েছে। উত্তরপ্রদেশের ঝাঁসিতে জেলা প্রশাসন দমকল বাহিনীকে রাসায়নিক নিয়ে প্রস্তুত থাকার নির্দে’শ দিয়েছে। ঝাঁসির জেলাপ্রশাসক অন্দ্র ভামসি সম্প্রতি এই বিষয়ে বৈঠক করেন। তিনি জানান, ”গ্রামের মানুষদের এই পঙ্গপালের সম্পর্কে সত’র্ক থাকতে বলা হয়েছে। দেখতে পেলেই দ্রুত নিয়ন্ত্রণ কক্ষে খবর দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সবুজ ঘাস ও সবুজ রঙের ফসল দেখলেই পঙ্গপাল আক্র’মণ করছে।” ২০১৯ সালে রাজস্থানের ১২ জেলায় পঙ্গপাল হা’না দিয়ে ৬ লাখ ৭০null
null
null হাজার হেক্টর জমির ফসল ন’ষ্ট করে। ওই বছর ১ হাজার কোটি রুপির আর্থিক ক্ষ’তি হয়। এবার পরি’স্থিতি মোকাবেলায় রাজ্যের কৃষিবিভাগ ৪৫ টি পিকআপ, ৭০ টি যান দিয়ে পরিস্থিতি মনিটরিং করছে এবং ৬০০ ট্রাক্টর দিয়ে আক্রা’ন্ত এলাকাগুলোতে কীটনা’শক ছিটাচ্ছে। তারা ভারত সরকারের কাছে ড্রোন চেয়েছে পঙ্গপাল দ’মনের জন্য। রাজস্থানের অনেক এলাকা সাবাড় করে পঙ্গপালের একটি দল ছুটে চলেছে হরিয়ানার দিকে। গুজরাটের বানাসকাথা এলাকাও আক্রা’ন্ত হয়েছে পঙ্গপালের হা’নায়। সূত্র : জি নিউজ