ঢাকা, আজ মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

আম্ফানের পর এবার আসছে মহাপ্রলয় ‘নিসর্গ’

প্রকাশ: ২০২০-০৫-২২ ১৯:৫২:২৬ || আপডেট: ২০২০-০৫-২২ ১৯:৫২:২৬

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : একে তো করোনা ভাইরাসের থাবা। তার মধ্যে আবার সব ল’ণ্ডভ’ণ্ড করে দিয়ে গেল বি’ধ্বং’সী ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। বহু মানুষের ক্ষ’তি হয়েছে। একাধিক জেলা ভ’য়ান’ক ক্ষ’তিগ্রস্থ হয়েছে আম্ফানের দা’পটে। বঙ্গোপসাগরে উপকূলীয় অঞ্চলের ৬৪তম ঘূর্ণিঝড় ছিল আম্ফান। জানিয়েছিল বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা (ডব্লিউএমও)। আসন্ন আরেক মহাপ্র’লয়ের নাম নিসর্গ। নিসর্গ নামটি বাংলাদেশের null
null
null প্রস্তাবিত। ভারত, বাংলাদেশ, মায়ানমার, পাকিস্তান, মালদ্বীপ, ওমান, শ্রীলঙ্কা এবং থাইল্যান্ডের সঙ্গে ২০১৮ সালে তালিকায় আরও পাঁচটি দেশকে যুক্ত করা হয়েছে। ইরান, কাতার, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরশাহী আর ইয়েমেন। এই ১৩টি দেশ এপ্রিলে আসন্ন ঘূর্ণিঝড়ের ১৬৯টি নাম প্রস্তাব করেছে। আম্ফানের পরবর্তী ঘূর্ণিঝড়গুলির নাম হবে নিসর্গ (বাংলাদেশের প্রস্তাবিত), গতি (ভারতের প্রস্তাবিত), নিভার (ইরানের প্রস্তাবিত), বুরেভি (মালদ্বীপের প্রস্তাবিত), তৌকতাইnull
null
null (মায়ানমারের প্রস্তাবিত নাম), ইয়াস (ওমানের প্রস্তাবিত)। এর আগে ফণী ঝড়ের নাম দিয়েছিল বাংলাদেশ। সেটিও প্র’বল শক্তি নিয়ে আছড়ে পড়েছিল। আম্ফান নামটি দিয়েছিল থাইল্যান্ড। যার অর্থ আকাশ। কিন্তু সুন্দর এই নামটি এখন মানুষের দুর্বি’ষহ য’ন্ত্র’ণার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সূত্র : জি নিউজনিউজ ডেস্ক : করোনাভাইরাসে সং’ক্রমিত হয়ে সদ্য অবসরোত্তর ছুটিতে (পিআরএল) যাওয়া অতিরিক্ত সচিব তৌফিকুল আলম মা’রা গেছেন। শুক্রবার null
null
null সকালে তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। জনপ্রশাসন সচিব শেখ ইউসুফ হারুন শুক্রবার এই তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেন। বিসিএস অষ্টম ব্যাচের (১৯৮৬) এই কর্মকর্তাকে রাজধানীর আজিমপুর কবরস্থানে দা’ফনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। জানা গেছে, পরলোকগত তৌফিকুল আলম সর্বশেষ তথ্য কমিশনের সচিব ছিলেন। গত ফেব্রুয়ারি থেকে তিনি পিআরএলে যান। প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের null
null
null সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন তৌফিকুল আলমের মৃ’তুতে শোক প্রকাশ করেছে। এর আগে গত ৬ এপ্রিল প্রশাসন ক্যাডারের ২২ ব্যাচের কর্মকর্তা দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একজন পরিচালক করোনাভাইরাসে আক্রা’ন্ত হয়ে মা’রা যান। এ ছাড়া মাঠপ্রশাসনের বেশ কিছুসংখ্যক কর্মকর্তা করোনাভাইরাসে null
null
null আক্রা’ন্ত হন
নিউজ ডেস্ক : করোনা সারাবিশ্বকে বদলে দিয়েছে। আমাদের চোখের সামনে এনে দিয়েছে অনেক মর্মান্তিক দৃশ্য, মর্মা’ন্তিক গল্প, বেদনাময় অধ্যায়। চট্টগ্রামে করোনার উপসর্গ নিয়ে মা’রা গেছেন এক ব্যক্তি। তার ৭ বছরের সন্তান এসে বাবাকে শেষবারের মতো স্পর্শ করলো। নীরব অথচ বুকে জমে যাওয়া গভীর কা’ন্না যেন উছলে বের হয়ে আসে- এমন দৃশ্য দেখে। চিকিৎসব বিদ্যুৎ বড়ুয়া এমনই একটি ভি’ডিও পোস্ট করেছেন। যার নিচে লিখেছেন, চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতালে বেদনাবিধুর বাস্তবতা। গত ২০ মে ৪০ বছরের রোগী জীবনের শেষ মুহূর্তে চিকিৎসা নিতে এসেছিল আমাদের চট্টগ্রাম ফিল্ড null
null
null হাসপাতালে। রোগীকে প্রথম দেখায় বুঝতে পেরেছিলাম জীবনের সময় বেশি নেই। তবু চেষ্টা করেছিলাম আমাদের সামর্থ নিয়ে রোগীকে বাঁ’চাতে। রোগীর অভিভাবকও বুঝতে পেরেছিল রোগীর পরিণতি। করোনা টেস্ট হয়নি কিন্তু সকল লক্ষণ করোনা ভাইরাস জনিত। অবশেষে মা’রাও গেলেন ১৩.৩০ ঘণ্টা পর। রোগীর অভিভাবক হিসেবে সাথে ছিলেন তার স্ত্রী। স্ত্রী কে জিজ্ঞেস করতেই বললো তাদের ৭ বছরের সন্তান আছে। সাধারণত করোনা জনিত লক্ষণে মা’রা গেলে সিভিল সার্জন অফিসে null
null
null জানাতে হয়। পরে সিভিল সার্জন নির্ধারিত প্রক্রিয়ায় দ্রুত দা’ফন করা হয়। কিন্তু আত্মীয় স্বজন কেউ মৃ’ত ব্যক্তিকে দেখার সুযোগ হয় না। আমি মৃ’ত রোগীর অভিভাবক স্ত্রীকে বললাম আপনাদের সন্তানকে তার বাবাকে দেখবে না? উত্তরে বললো বাসায় কেউ নাই আর কিভাবে আসবে। পরে সিভিল সার্জন কতৃপক্ষ নিয়ে গেলে সন্তান বাবাকে দেখতে null
null
null পারবে না। আমি বললাম আপনি বাসায় গিয়ে আপনাদের সন্তানকে নিয়ে আসেন আমাদের হাসপাতালের গাড়ি নিয়ে। তাই হলো মা সন্তানকে আমাদের গাড়িতে করে নিয়ে আসলো। সন্তান বাবা কে তার শেষ স্পর্শ আদর দেওয়ার মুহূর্ত – ( তাদের সন্তান এর সাথে আলাপে তার বাবা সন্তানের অনেক কিছু জানা হলো – কষ্ট হলো অনেক ৭ বছরের সন্তান তার বাবা কে হারালো )