ঢাকা, আজ মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

কু’লাঙ্গার ছেলে মাকে নি’র্মমভাবে পি’টিয়ে মা দিবসের প্রতিদান দিয়েছে

প্রকাশ: ২০২০-০৫-১৯ ১১:০৬:১৩ || আপডেট: ২০২০-০৫-১৯ ১১:০৬:১৩

রবিবার ১০ মে ছিল বিশ্ব মা দিবস। এদ6Fনে পৃথিবীর মানুষ যখন মায়ের প্রতি অসম্ভব শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন, মাকে নিয়ে ভালোবাসার বহি:প্রকাশ করেছেন ঠিক সেই সময়ে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়নের জমিদারপাড়া গ্রামে সন্তান নামধারি এক কুলাঙ্গার ছেলে মাকে নি’র্মমভাবে পি’টিয়ে মা দিবসের প্রতিদান দিয়েছেন অন্যভাবে।null
null
null

নি’র্যাতনের শি’কার মায়ের নাম আছিয়া খাতুন (৮০)। তিনি চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়নের জমিদার পাড়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য মরহুম লেদু মিয়ার স্ত্রী। আছিয়া খাতুন একজন অবসরপ্রাপ্ত পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মাঠকর্মী। অ’ভিযুক্ত ছেলের নাম আজিজুল হক আলম। তিনি চট্টগ্রাম বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কার্যালয়ের অফিস সহায়ক।
null
null
null
আছিয়া খাতুনের বড়ছেলে সাংবাদিক এমকে আলম চৌধুরী বলেন, চাকুরীর সুবাদে তিনি গ্রামের বাড়িতে থাকেন না। মাঝে-মধ্যে তিনি ছুটি পেলে গ্রামে আসেন। রবিবার সকালে জানতে পারেন ছোটভাই আজিজুল হক বাড়িতে থাকা বয়োবৃদ্ধা মা আছিয়া খাতুনকে নি’র্দয়ভাবে মা’রধর করেছে। তাৎক্ষনিক ঘটনাটি শুনে হারবাং পুলিশ ফাঁিড়র সহযোগিতায় ১১ দিনের জিন্মিদশায় থাকা বাড়ি থেকে আ’হত অবস্থায় মাকে চকরিয়া হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
null
null
null
তিনি বলেন, হাসপাতালে নেয়ার আগে বয়োবৃদ্ধা মা আছিয়া খাতুনকে চকরিয়া থানায় নিয়ে যাই। সেখানে ঘটনাটি ওসি সাহেবকে স্বচক্ষে দেখিয়েছি। তিনি মামলা নিবেন বলেছে, সেইজন্য একটি লিখিত এজাহারও দিয়েছেন আমার মা। পৈত্রিক বাড়িভিটাটি ছেলে আজিজুল হকের নামে লিখে না দেয়ায় দীর্ঘদিন ধরে নি’র্যাতন করে আসছে মা আছিয়া খাতুনকে।
null
null
null
চকরিয়া থানার ওসি মো.হাবিবুর রহমান বলেন, বয়োবৃদ্ধা মাকে নি’র্যাতনের ঘটনায় থানায় জমা দেয়া অ’ভিযোগটি তদন্তের জন্য হারবাং পুলিশ ফাঁড়ির আইসিকে দেওয়া হয়েছে। ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে অ’ভিযুক্ত ছেলেকে গ্রেফতার ও পরবর্তী আইনী প্রদক্ষেপ নেওয়া হবে।স্পোর্টস ডেস্ক: খেলোয়াড়ি জীবনের মাঝেই ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। যাকে ডাকা হয় নড়াইলের ‘প্রিন্স অব হার্টস’ বা হৃদয়ের রাজপুত্র’ নামে, তার জন্য নির্বাচনে জয় পাওয়া তেমন বড় ঘটনা ছিল না। সহজেই নড়াইল-২ এর সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।
null
null
null
২০১৯ সালের বিশ্বকাপের কারণে শুরুতে তেমন সময় দিতে পারেননি নিজের নির্বাচনী এলাকায়। তবে বিশ্বকাপের পর থেকে বলা চলে নড়াইলের মানুষের জন্য নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন মাশরাফি। বিশেষ করে চলতি করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সারাদেশের জন্যই এক রোলমডেল হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন মাশরাফি।

নড়াইলে নিজ উদ্যোগে ‘ডোর টু ডোর’ চিকিৎসা সেবা অর্থাৎ রোগীর ডাক্তারের কাছে যেতে হবে না, ডাক্তারই যাবেন রোগীর কাছে- এমন সেবা শুরু করেছেন। পুরো নড়াইলে জীবাণুনাশক কক্ষ স্থাপন করেছেন কয়েক জায়গায়। সহজে ধান কাটার জন্য উপহার দিয়েছেন দুইটি অত্যাধুনিক ধান কাটার মেশিন।
null
null
null
মাশরাফির এমন সব উদ্যোগের পর আশাবাদী মানুষের মনে ইচ্ছে জাগে, তাকে দেশের আরও বড় কোন দায়িত্বে দেখার। কিন্তু মাশরাফি নিজে এ বিষয়ে কী ভাবেন? শুধু একজন সংসদ সদস্যই থাকবেন নাকি মন্ত্রী পরিষদের সদস্য হওয়ার ব্যাপারে কিছু ভেবেছেন তিনি?

এমন আলোচনা এলেই সবাই চিন্তা করেন মাশরাফি হয়তো ভবিষ্যতে ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সদস্য হবেন। তাই তার ব্রেসলেটের নিলামের লাইভে খানিক ভিন্ন আঙ্গিকে প্রশ্ন করা হয়েছে, ক্রীড়া মন্ত্রণালয় বাদে অন্য কোন মন্ত্রীত্বের প্রস্তাব পেলে কী করবেন?

প্রশ্নটি শুনে মাশরাফি দারুণ জবাব দেন নিজের গভীর জীবনদর্শন সহকারে। জানান তিনি কখনওই বেশি দূরের কথা ভাবেন না। বর্তমানে যা আছে সেটিই ঠিকঠাক করার চেষ্টা করেন। আর এ কারণেই এখন তিনি নড়াইল-২ আসনের কাজের ব্যাপারেই চিন্তার করছেন শুধু।
null
null
null
মাশরাফি বলেন, ‘আসলে আমার এরকম কোন… আমি কষ্ট করতে পছন্দ করি, তবে কোন আশা নিয়ে নয়। বাংলাদেশ দলে যখন খেলেছি, তখন আমাদের সব কষ্টের সামনে ছিল দলের জয়। কিন্তু যদি ব্যক্তিগত লক্ষ্যের কথা বলেন, তাহলে আমি কখনও অমনভাবে লক্ষ্য ঠিক করি না।’

নিজ আসনের মানুষদের ভালো রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছেন তিনি, ‘যে জিনিসটা চিন্তার প্রয়োজন নেই, আমার আয়ত্বে নেই, সে জিনিসটা আমি চিন্তা করি না। তাই অমন কোন চিন্তা আমার নেই। আমাকে যে দায়িত্বটুকু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দিয়েছেন, নড়াইল-২ এর… আমি নিজের সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করছি মানুষদের ভাল রাখার।’null
null
null

তিনি ইতি টানেন এভাবে, ‘এত কিছু বলার কারণ হলো, আপনি যে প্রশ্নটা করলেন… আমি আসলে এত বড় কিছু, এত দূরে তাকাই না। আমার যেটা আছে, সেটার মধ্য থেকেই কিছু করার চেষ্টা করছি। আর এত বড় কিছু ভাবার প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না।’