ঢাকা, আজ বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২১

কোরআন সম্পর্কে খ্যাতনামা অমুসলিম পণ্ডিতদের উক্তি তুলে ধরে যা বললেন শিবির সভাপতি!

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-১০ ১১:০২:৩৩ || আপডেট: ২০১৯-০৭-১০ ১১:০২:৩৩

“কোরআনের সংগ্রহকারীরা কোরআনের কোন অংশ, বাক্য কিংবা শব্দ বাদ দিয়েছে এমন কখনো শোনা যায়নি। আবার কোরআনের এমন কোন বাক্যের সন্ধান পাওয়া যায়নি যা বাহির হতে কোরআনে প্রবেশ করেছে। যদি এমন হত, তাহলে অবশ্যই হাদীসের কিতাবে উহার উল্লেখ থাকত, যা থেকে সামান্য বিষয়ও বাদ পড়েনি।” (উইলিয়াম ময়িউর)২.নিঃসন্দেহে কোরআন আরবী ভাষার সর্বোত্তম এবং দুনিয়ার সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য গ্রন্থ। কোন মানুষের পক্ষেই এ ধরনের একখানা অলৌকিক গ্রন্থ রচনা করা কিছুতেই সম্ভব নয়। কোরআন মৃতকে জীবিত করার চেয়েও শ্রেষ্ঠ মোজেযা। একজন অশিক্ষিত লোক কি করে এ ধরণের ত্রুটিমুক্ত ও নজিরবিহীন বাক্যাবলীর রচনা করতে পারে তা ভাবতেও আশ্চর্য লাগে।” (জর্জ সেল)

৩.“কেবল মাত্র কোরআনই এমন একখানা গ্রন্থ যাতে তেরশত বছরের ব্যবধানেও কোন পরিবর্তন ঘটেনি। ইহুদী ও খৃষ্টান ধর্মের এমন কোন নির্ভরযোগ্য ধর্মগ্রন্থ নেই যা আদৌ কোন দিক থেকে কোরআনের সমকক্ষ হতে পারে।” (প্রসিদ্ধ খৃস্টান ঐতিহাসিক মি: বাডলে)৪.“প্রাচীন আরবীতে অবতীর্ণ কোরআন শরীফ অত্যন্ত মনোরম ও আকর্ষণীয়। ইহার বাক্য বিন্যাস পদ্ধতি ও প্রকাশভঙ্গী খুবই মনোমুগ্ধকর। কোরআনের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বাক্যগুলিতে যে বলিষ্ঠ ও শক্তিশালী যু্ক্তির অবতারণা করা হয়েছে তা খুবই চমৎকার। কোরআনের ভাবধারা অন্য ভাষায় যথাযথ প্রকাশ করা খুবই মুসকিল।” (দি উইসডম অফ দি কোরআন- জন ফাস)৫.“কোরআনের বিধানবলী স্বয়ং সম্পূর্ণ ও পূর্ণাঙ্গ।” (প্রিচিং অফ ইসলাম- আর্নল্ড টয়েনবি)

৬.“দুনিয়ার কোন গ্রন্থই কোরআনের ন্যায় বেশি পাঠ করা হয় না। বিক্রির দিক দিয়ে হয়ত বাইবেল সংখ্যায় বেশী হবে। কিন্তু মুহম্মদের কোটি কোটি অনুসারীরা যেদিন থেকে কথা বলার ক্ষমতা অর্জন করে সেদিন থেকে দৈনিক পাঁচবার কোরআনের দীর্ঘ দীর্ঘ আয়াতসমূহ পাঠ করা শুরু করে।” (চার্লস ফ্রান্স পুটার)৭.“ সমস্ত আসমানী গ্রন্থসমূহের মধ্যে কোরআন সর্বশ্রেষ্ঠ। মহান আল্লাহ তাঁর বিশেষ অনুগ্রহে মানব জাতির উদ্দেশ্যে এই সর্বোৎকৃষ্ট কিতাবখানান নাযিল করেছেন। মানুষের কল্যাণ সাধনে ইহা প্রাচীন গ্রীক দর্শনের চেয়েও অধিকতর ফলপ্রসূ। কোরআনের প্রতিটি শব্দ হতেই আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব ও মহত্বের ঝংকার ধ্বনিত হয়।” (ড: মোরসেন ফ্রান্স)
৮.“পবিত্র কোরআন শুধুমাত্র কতগুলি ধর্মীয় বিধানবলী সমষ্টিই নয়, বরং উহাতে এমন এমন সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় বিধানবলীও রয়েছে যা গোটা মানব জাতির জন্য সমান কল্যালকর।” (ড: মসিজিউন)
৯.“আমি কোরআনের শিক্ষাসমূহ উপরে গবেষণা করে এই সিদ্ধান্তে পোঁছেছি যে, কোরআন নাযিলকৃত আসমানী কিতাব এবং উহার শিক্ষাসমূহ মানব স্বভাবের সাথে সম্পূর্ণ সামঞ্জস্যশীল।” (মিস্টার গান্ধী- ভারত)

১০.“আমি ইসলামকে পছন্দ করি এবং ইসলামের গয়গম্বরকে দুনিয়ার একজন শ্রেষ্ঠ মহাপুরুষ বলে স্বীকার করি। আমি কোরআনের সামাজিক, রাজনৈতিক, আত্নিক ও নৈতিক বিধানবলীকে অন্তরের সহিত পছন্দ করি। হযরত উমরের খেলাফতকালে ইসলামের যে রূপ ছিল উহাকেই আমি ইসলামের বাস্তব ও পূর্ণাঙ্গ রূপ বলে মনে করি।” (লালা লাজ পাত রায়, ভারত)১১.“কোরআনের অধ্যয়নে বিবেক হয়রান হয়ে যায় যে, একজন অশিক্ষিত লোকের মুখ হতে এ ধরনের কালাম (ভাষ্য) কি করে বের হল।” (কোন্ট হেনরী)১২.“মুহম্মদের এ দাবী আমি সর্বান্তকরণে স্বীকার করি যে কোরআন মুহাম্মদের (স) একটি সর্বকালীন শ্রেষ্ঠ মোজেযা।” (মি: বোরথ সমুখ)১৩.“কোরআন গরীবের বন্ধু ও কল্যাণকামী। ধনীদের বাড়াবাড়িকে কোরআন সর্বক্ষেত্রেই নিন্দা করেছে।” (গর্ড ফ্রে হগনস)

১৪.“তেরশত বছর পরেও কোরআনের শিক্ষাসমূহ এতই জীবন্ত যে আজও একজন ঝাড়ুদার মুসলমান হয়ে ( কোরআনের প্রতি ঈমান এনে) যে কোন খান্দানী মুসলিমদের সাথে সমতার দাবী করতে পারে।” (মি: ভুপেনন্দ্রেনাথ বোস)
১৫.“ইসলামকে যারা প্রতিক্রিয়াশীল ধর্ম বলে নিন্দা করে, তারা কোরআনের শিক্ষাকে সঠিকভাবে উপলব্ধি করতে পারেনি। এই কোরআনের বদৌলতেই আরবদের কায়া সম্পূর্ণ পাল্টে গিয়েছিল।” (মোসেউর্মিওব ফ্রান্স)
বই:মহাগ্রন্থ আল – কোরআন কি ও কেন আবুল কালাম মুহাম্মাদ ইউসুফ (মোমতাজুল মোহাদ্দেছিন)আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদের কুরআন তেলাওয়াত শুনে কাঁদতেন স্বয়ং বিশ্বনবি (সঃ) !কুরআন আল্লাহর কিতাব। আল্লাহ তাআলা এ কিতাব দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে বিশ্বমানবতার কল্যাণে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ওপর নাজিল করেছেন। সাহাবায়ে কেরাম এ কুরআনের সর্বশ্রেষ্ঠ ধারক ও বাহক। তাদের মধ্যে অন্যতম একজন হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু।

যার তেলাওয়াত শুনলেই বিশ্বিনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কাঁদতেন। সাহাবায়ে কেরামের হৃদয়ে বহন করা কুরআন আজো অক্ষত অবিকৃত অবস্থায় বিশ্বব্যাপী মুসলিম উম্মাহর কাছে বিরাজমান। তারা ছিলেন কুরআনের একান্ত অনুরাগী। কুরআনের ভাব-মর্মে তাদের ঈমান বেড়ে যেত।তাদের তেলাওয়াতে অস্রুসিক্ত হতো মুমিন মুসলমান। এসব সাহাবিদের মধ্যে অন্যতম হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু। তুলে ধরা হলো তার সংক্ষিপ্ত পরিচয়- বিশ্বনবির হিজরতের ৩৭ বছর আগে পবিত্র নগরী মক্কায় জন্ম গ্রহণ করেন হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রায়িাল্লাহু আনহু।

ইসলাম গ্রহণের তালিকায় তার নাম ৬ নম্বরে। তিনি বদর, ওহুদ, খন্দক, বায়আতে রেদওয়ানসহ অনেক যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। আল্লাহর রাসুলের প্রিয় সাহাবি আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ কুরআনের সাধক হিসেবে আজো বিশ্ববিখ্যাত। তার ব্যাখ্যা এবং মতামত এখনো সবার শীর্ষে গ্রহণযোগ্য। তিনি ছিলেন কুরআনুল কারিমের একনিষ্ঠ সেবক ও গবেষক।জীবনের উল্লেখযোগ্য সময় তিনি কুরআন গবেষণায় ব্যয় করেছেন। হয়েছেন রইসুল মুফাসসিরিনদের একজন। ইতিহাস সাক্ষী, কটু কথা ও নির্যাতনকে উপেক্ষা করে অসীম সাহসী কুরআনের সাধক আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ কাবা শরিফে সুরা আর-রাহমানের কিছু অংশ তেলাওয়াত করে হিংস্র কুরাইশ নেতাদের হতবাক করে দেন।

হিজরতে আগে মক্কার কঠিন পরিস্থিতিতে বিশ্বনবির পর তিনিই সর্বপ্রথম প্রকাশ্যে পবিত্র কুরআনুল কারিম তেলওয়াত করেন। হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ বুখারিতে হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ নিজেই বর্ণনা করেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁকে কুরআন তেলাওয়াত করতে বলতেন এবং তাঁর তেলাওয়াত শুনে তিনি অস্রুসিক্ত হতেন।’বিশ্বনবি তাঁর তেলাওয়াতের প্রশংসা করে বলতেন, ‘কুরআন যেভাবে নাজিল হয়েছে ঠিক তেমন ও সুন্দরভাবে তেলাওয়াত করে খুশি হতে চায়, সে যেন ইবনে উম্মে আবদ (অবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ)-এর মতো কুরআন তেলাওয়াত করেন।’ (মুসনাদে আহমদ) রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম (সাহাবাদেরকে) তাঁর কাছ থেকে কুরআন শেখার নির্দেশ দিতেন।’ (বুখারি)

আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ বিশ্বনবির ঘরেই লালিত-পালিত হন। তাঁকে অনুসরণ করে জীবনাচার ও চারিত্রিক গুণাবলী অর্জন করেন। এ কারণেই বিশ্বনবি বলতেন- ‘হেদায়াত প্রাপ্তি, আচার-আচরণ ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের দিক দিয়ে তিনিই (আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ) হচ্ছেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সবচেয়ে নিকটতম উত্তম ব্যক্তি।’তিনি বিশ্বনবির শিক্ষালয়ে শিক্ষা লাভ করেন। এ কারণেই সাহাবিদের মধ্যে যারা কুরআনের সবচেয়ে ভালো পাঠক, ভাব ও অর্থের সবচেয়ে বেশি বুঝদার এবং আল্লাহর আইন ও বিধি-বিধানের ব্যাপারে সবচেয়ে বেশি অভিজ্ঞ, তিনি ছিলেন তাঁদেরই একজন। ইবনে মাসউদকে নিয়ে হজরত ওমরের বর্ণনা ‘একবার হজরত ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করছিলেন।এমন সময় এক ব্যক্তি এসে বললেন, ‘হে আমিরুল মুমিনিন! আমি কুফা থেকে এসেছি। সেখানে আমি দেখে এসছি, এক ব্যক্তি নিজের স্মৃতি থেকেই মানুষকে কুরআন শিখাচ্ছেন।’ একথা শুনে তিনি এত রাগান্বিত হলেন যে, সচরাচর তাঁকে এমন রাগ করতে দেখা যায় না। তিনি উটের হাওদার অভ্যন্তরে রাগে ফুলতে থাকেন। তারপর প্রশ্ন করেন, তোমার ধ্বংস হোক! কে সে লোকটি?’

লোকটি বললো- ‘আবদুল্লাহ ইবন মাসউদ।’ হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদের নাম শুনে তাঁর অবস্থা এমন হলো- যেন জ্বলন্ত আগুনে পানি ঢেলে দেয়া হলো। তাঁর রাগ পড়ে গেল। তিনি স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে পেলেন। তারপর বললেন, তোমার ধ্বংস হোক! আল্লাহর কসম, এ কাজের জন্য তাঁর চেয়ে অধিক যোগ্য কোনো ব্যক্তি বেঁচে আছে কিনা আমি জানিনা।এ ব্যাপারে তোমাকে আমি একটি ঘটনা বলছি- হজরত ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বলতে লাগলেন, ‘একদিন রাতের বেলা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আবু বকরের সাথে মুসলমানদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলাপ-আলোচনা করছিলেন। আমিও তাঁদের সাথে ছিলাম। কিছুক্ষণ পর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বের হলেন, ‘আমরাও তাঁর সাথে বের হলাম।বেরিয়েই আমরা দেখতে পেলাম, এক ব্যক্তি মসজিদে দাঁড়িয়ে; কিন্তু আমরা তাঁকে চিনতে পারলাম না। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে তাঁর কুরআন তেলাওয়াত শুনলেন। তারপর আমাদের দিকে ফিরে বললেন- ‘যে ব্যক্তি বিশুদ্ধভাবে কুরআন পাঠ করে আনন্দ পেতে চায়, যেমন তা অবতীর্ণ হয়েছে, সে যেন ইবনে উম্মু আবদের (আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ) পাঠের অনুরূপ কুরআন পাঠ করে।’

এরপর আবদুল্লাহ ইবন মাসউদ বসে দোয়া করা শুরু করলেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আস্তে আস্তে তাঁকে লক্ষ্য করে বলতে লাগলেন, ‘চাও, দেয়া হবে, চাও, দেয়া হবে।’ এ কারণেই হজরত ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু তাঁকে খোলাফায়ে রাশেদার যুগে কুরআনের শিক্ষক হিসেবে কুফায় পাঠিয়ে দেন। তিনি কুফার কাজির দায়িত্বও পালন করেন।রইসুল মুফাসসিরিন ও ফকিহুল উম্মাহ খ্যাত কুরআনের সাধক, বাহক ও প্রচারক হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু ৩২ হিজরিতে মদিনায় ইন্তেকাল করেন। আল্লাহ তাআলা তাঁকে জান্নাতের সর্বোচ্চ মাকাম দান করুন। তাঁর নেক আমলের ফায়েজ ও বরকত আমাদের দান করুন।
মুসলিম উম্মাহকে বিশুদ্ধভাবে কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে নিজেদের ঈমান বাড়ানোসহ কুরআনের সমাজ বিনির্মাণের তাওফিক দান করুন। আমিন। উৎসঃ jagonews24