ঢাকা, আজ রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

নগদ সহায়তা নিয়ে নয়-ছয়, প্রায় ৮ লাখ মোবাইল নম্বর বাতিল (video)

প্রকাশ: ২০২০-০৫-১৭ ১০:৪৩:২৪ || আপডেট: ২০২০-০৫-১৮ ১৯:০২:৪০

করোনা দুর্যোগে ত্রাণ বিতরণে নয়-ছয়ের পর এবার মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমেও অর্থ সহায়তা কর্মসূচিতেও ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ
null
null
null
উঠেছে। এই অর্থ হাতিয়ে নিতে বিভিন্ন জায়গায় জনপ্রতিনিধিরা নিজেদের মোবাইল নম্বর ব্যবহার করেছে দরিদ্র মানুষের নামের পাশে। বেশ কিছু জেলায় এই অভিযোগের সতত্যা মেলায় প্রায় আট লাখ নম্বর বাতিল করা হয়েছে।
null
null
null
প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত নগদ অর্থ সহায়তার জন্য হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার মুড়িয়াউক ইউনিয়নে তালিকাভূক্ত হয়েছেন ১ হাজার ১শ’ ৭৬ জন। এরইমধ্যে জমা দেয়া হয়েছে এ তালিকা।
null
null
null
তালিকার খসড়া বের হয়ার সাথে সাথে বের হতে শুরু করে থলের বেড়ালও। হতদরিদ্র ৩শ’ জনের নামের পাশে দেয়া হয়েছে মাত্র ৪টি মোবাইল নাম্বার। এছাড়া একই নাম্বার দেয়া হয়েছে ১০-১২জনের নামে। তালিকায় বিত্তশালীদের পাশাপাশি রয়েছে জনপ্রতিনিধিদের স্বজনদের নামও।

যদিও তালিকায় অনিয়ম নিয়ে একে অপরকে দুষছেন ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মলাই ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ।
null
null
null
অনিয়মের এমন চিত্র শুধু হবিগঞ্জেই নয়, তালিকায় নয়-ছয়ের ঘটনা ঘটেছে বাগেরহাট, লালমনিরহাটসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়।

এমন বাস্তবতায় একই মোবাইল নম্বরে একাধিক সুবিধাভোগীর নাম থাকায় প্রায় ৮ লাখ নম্বর বাতিল হয়েছে।

ত্রাণের টাকা নিয়ে কোন অনিয়ম সহ্য করা হবে না বলে হুঁশিয়ারি দেন দুর্যোগ ও ত্রান প্রতিমন্ত্রী। বলেন, একটি নম্বরে একাধিকবার টাকা যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। তাই সংশোধন হচ্ছে তালিকা।
null
null
null
হতদরিদ্র ও কর্মহীন ৫০ লাখ পরিবারকে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে আড়াই হাজার টাকা করে দেয়ার ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী।

৬০ বছর বয়সী রাজশাহীর ভবানীগঞ্জ পৌর মেয়রের এসএসসি পাশ নাতনিকে বিয়ে!

দূর সম্পর্কের নাতনিকে বিয়ে করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছিলেন কুমিল্লার রিকশাচলক সামশুল হক। ১৩ বছরের মেয়েকে বিয়ে করায় গ্রেফতারও হয়েছেন তিনি।

তার মতো রাজশাহীর একজন পৌর মেয়রও প্রতিবেশী নাতনিকে বিয়ে করেছেন। বছরখানেক আগে বিয়ে করলেও রিকশাচালক সামশুল ভাইরাল হওয়ার পর জানাজানি হয়েছে রাজশাহীর মেয়রের এ বিয়ের খবর। আর এরপর থেকে শুরু হয়েছে তোলপাড়।
null
null
null
এই মেয়রের নাম আবদুল মালেক। তিনি রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার ভবানীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র। এ ছাড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতিও তিনি। তার এই স্ত্রীর বয়স এখন ১৮ বছর। প্রায় ৬০ বছর বয়সী এই নেতার অসম বিয়েতে বিব্রত দলের স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তবে প্রভাবশালী হওয়ায় তারা কোনো পদক্ষেপ নিতে পারেননি।

তবে রিকশাচালক সামশুল ভাইরাল হওয়ার পর মেয়র আবদুল মালেক ও তার স্ত্রী শারমিন খাতুনের একটি ছবি এসেছে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে। জানিয়েছেন বিয়ের আদ্যপ্রান্তও।
null
null
null
আওয়ামী লীগের স্থানীয় এক নেতার দেয়া তথ্যমতে, মেয়র আবদুল মালেকের বাড়ি পৌরসভার সূর্যপাড়া মহল্লায়। তার স্ত্রী শারমিনের বাবার নাম ফজলুর রহমান। মেয়র এবং তার বাড়ি সামনাসামনি। মেয়রের বাড়িতেই কাজ করতেন ফজলুর। তার স্কুলপড়ুয়া মেয়ে শারমিন বিয়ের আগে মেয়রকে নানা বলেই ডাকত। প্রায় দু’বছর আগে তার সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলেন মেয়র।

এ নিয়ে স্ত্রী-সন্তানদের তোপের মুখে পড়েন তিনি। মেয়রের দুই ছেলে ফজলুর রহমানের বাড়িতে হামলাও চালিয়েছেন। কিন্তু বছরখানেক আগে কোর্টে গিয়ে চুপিসারে বিয়ের কাজটি সেরে ফেলেন মেয়র।

তখন বাগমারার চাঁনপাড়া আদর্শ বালিকা উচ্চবিদ্যালয় থেকে কেবল এসএসসি পাস করেছে মেয়েটি। বিয়ের পর মেয়র ভবানীগঞ্জ বাজারে একটি বাড়ি ভাড়া করে তাকে রাখেন। এতদিন মেয়র মালেকের বিয়ের খবর অনেকটা চাপা ছিল।
null
null
null
তবে এতে ঘি ঢেলে দিয়েছে কুমিল্লার রিকশাচালক সামশুল হকের বিয়ে। এখন বাগমারায় আবারও আলোচনা চলছে মেয়র মালেকের বিয়ে নিয়ে।

চাঁনপাড়া আদর্শ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাজমা বেগম বলেন, মেয়েটি তার স্কুলের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ছিল। এসএসসি পাসের পর একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির পরই শুনতে পান মেয়রের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছে। তখন মেয়েটির বয়স ১৬ বা ১৭ হতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান বলেন, আগে তিনি মেয়রের বিয়ের খবরটি শোনেননি। তবে এখন শুনেছেন। এ নিয়ে কোনো অভিযোগ পাননি বলেও জানান তিনি।
null
null
null
জানতে চাইলে শারমিনকে বিয়ের কথা স্বীকার করেন মেয়র আবদুল মালেক। তবে শারমিন এখন তার সঙ্গে থাকতে চাইছে না বলে দাবি করেন তিনি।

তিনি বলেন, ছোট মেয়ে। তাই সংসার করতে পারবে না। সে জন্য সে তার বাবার বাড়িতেই আছে। তবে বিয়ের সময় শারমিনের বয়স ১৮ ছিল বলেও দাবি করেন মেয়র।
null
null
null
কথা বলতে শুক্রবার বিকালে শারমিনের মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা হয়। তবে কোনো কথা বলতে চাননি তিনি। বন্ধ পাওয়া গেছে শারমিনের বাবা ফজলুর রহমানের মোবাইল নম্বর।
null
null
null
,
null
null
null