ঢাকা, আজ মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০

নিষে’ধাজ্ঞা অমান্য করে কুড়িগ্রামে ইফতার পার্টিতে হাজার হাজার মানুষ!

প্রকাশ: ২০২০-০৫-১০ ১১:০৯:১৪ || আপডেট: ২০২০-০৫-১১ ১৩:০৪:৪৩

কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রামে একটি দুর্গম চরের ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনী প্রচারণায় হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতিতে এক ইফতার পার্টি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সরকারের নিষে’ধাজ্ঞা অমান্য করে ইফতার পার্টিতে সামাজিক বা শারীরিক দূরত্বের কোনো বালাই ছিল না। করোনায় এমন চা’ঞ্চল্যকর ইফতার পার্টির ঘটনাটি ঘটেছে জেলার নাগেশ্বরী উপজেলার কচাকাটা থানার নারায়ণপুর ইউনিয়নে। এ ইউনিয়নের ঢাকডোহর গ্রামের ফরিদুল ইসলাম জোয়ারদারের আমন্ত্রণে পদ্মারচর স্কুল মাঠে ইফতার পার্টির আয়োজন করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, জেলার একমাত্র নদ-নদী দ্বারা বিচ্ছিন্ন এবং ভারতীয় সীমান্ত ঘেঁষা ইউনিয়ন নারায়ণপুর। এ ইউনিয়নের মানুষ জেলা-উপজেলার সাথে যোগাযোগ করতে হলে নৌকা ছাড়া বিকল্প উপায় নেই। একদম দুর্গম চরাঞ্চল হওয়ায় এখানে স্বাস্থ্য বিভাগ, সরকারি অন্যান্য বিভাগসহ প্রশাসনের নজরদারীর কম থাকে। করোনার বিষয় নিয়ে এখানকার মানুষ তেমন সচেতন নয়।জনপ্রতিনিধিদের সাথে সাধারণ মানুষের সম্পর্ক জোরাল নয়।ফলে এমন সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ৬ মে বুধবার ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী কয়েকজন কর্মী দিয়ে দিনব্যাপি প্রচার চালিয়ে ইফতার পার্টি আয়োজন করেন।

আয়োজনে কয়েকটি গ্রামের প্রায় এক/দেড় হাজার মানুষের সমাগম ঘটে সেখানে। এসময় ইফতার পার্টিতে অংশ নেয়া এক তরুণ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লাইভও করেন। এমন জনসমাগম করে ইফতার পার্টি করায় ইউনিয়নটির করোনা প্রতিরোধ কমিটির নিষ্ক্রিয়তা নিয়ে স’মালোচনার ঝড় উঠে সচেতন মহলে।

ইফতার পার্টির আয়োজক ও সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী ফরিদুল ইসলাম জোয়ারদার জানান, কোনো উপলক্ষ্য বা প্রচারণার অংশ হিসেবে এ ইফতার পার্টির আয়োজন করা হয়নি। বাজারের কয়েকজন লোকজন নিয়ে ইফতারের আয়োজন করেছিলাম। বেশি লোকজন ছিল না। তবে তিনি স্বীকার করেন করোনায় এমন ইফতার পার্টির আয়োজনে পুলিশ কিংবা প্রশাসনের অনুমতি নেননি।

নারায়ণপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মজিবর রহমান ইফতার পার্টির বিষয়ে সত্যতা নিশ্চত করে বলেন, সরকারি নিষে’ধাজ্ঞা উপেক্ষা করে সম্ভাব্য কয়েকজন প্রার্থী প্রায় প্রতিদিনই ইউনিয়নের বিভিন্নস্থানে ইফতারের আয়োজন করছেন। ইউনিয়ন পরিষদের সম্ভাব্য প্রার্থী বলে তাদেরকে বাধা-নি’ষেধ করা সম্ভব হচ্ছে না।

কচাকাটা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামুন অর রশিদ জানান, বিষয়টি বিভিন্ন মাধ্যমে শুনেছি। খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। ঘটনার সত্যতা পেলে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নাগেশ্বরী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুর আহম্মেদ মাছুম জানান, বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে কেউ আমাকে জানায়নি। শনিবার জানতে পেরেছি। যেহেতু দেরি হয়ে গেছে সেক্ষেত্রে মোবাইল কোর্টের আওতায় আনা সম্ভব নয়। তবে আমি ওসি সাহেবকে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবার পরামর্শ দিয়েছি।-জাগো নিউজনিউজ ডেস্ক : দেশে যখন লকডাউন ছিল না তখন প্রায় ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ শিশু জন্ম হতো সি’জারে। আর ক্লিনিকগুলোতে ৯৫ শতাংশ ইনকাম ছিল সি’জার থেকে। করোনার মধ্যে বাংলাদেশে সি’জারের সংখ্যা কমে গেছে। কিন্তু প্রসূতি মায়ের মৃ’ত্যুর হার বাড়েনি। এ থেকে শিক্ষা নেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

তিনি বলেন, বিদেশে চার শতাংশ শিশুর জন্ম হয় সি’জারে। আর বাংলাদেশে সিজারে জন্ম হয় ৯৬ শতাংশ শিশু। নরমাল ডেলিভারি হয় চার শতাংশ। অথচ লকডাউনে ৯৬ শতাংশ শিশুর জন্ম হয়েছে নরমাল ডেলিভারিতে।

শুক্রবার (৮মে) ফেসবুকে লাইভে এসে এসব কথা বলেন ব্যারিস্টার সুমন। লাইভের শুরুতে ফেসবুকে অসমর্থিত একটি সূত্রের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, করোনার সময় লকডাউনে দেশে এক লাখ ৭৫ হাজার শিশুর জন্ম হয়েছে, এর মধ্যে মাত্র চার শতাংশ শিশুর জন্ম সি’জার অপারেশন হয়েছে। আর বাদ বাকি ৯৬ শতাংশ শিশুর জন্ম হয়েছে নরমালে।

তিনি আরও বলেন, যখন লকডাউন ছিল না তখন ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ শিশুর জন্ম হতো সিজারে। প্রসূতি নারীকে নিয়ে ডাক্তারের কাছে গেলে ডাক্তার এমনভাবে বোঝাতেন সি’জার না করলে বাচ্চা বা মাকে বাঁ’চানো সম্ভব না। করোনাভাইরাস আমাদেরকে কতকিছু শেখাচ্ছে?

প্রসূতির অপ্রয়োজনীয় সি’জার বন্ধে হাইকোর্টে একটি রিট করেছিলাম ব্যারিস্টার সুমন। এ প্রসঙ্গকে টেনে তিনি বলেন, তখন হাইকোর্ট একটি রুল দিয়েছিল অপ্রয়োজনীয় সি’জার বন্ধে সরকার কেন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে না। এখন আমি জানি না সরকার কী ব্যবস্থা নিয়েছেন। কিন্তু দেখুন, প্রকৃতি এমন ব্যবস্থা নিয়েছে যে ক্লিনিকগুলো খোলাই রাখা যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, ক্লিনিকগুলোতে ডেকে নিয়ে যেভাবে ব্যবসা করত এখন সেগুলো বন্ধ রয়েছে। এখন আর ব্যবসা করার সুযোগ নাই। দেশে শিশুর জন্ম কিন্তু বন্ধ থাকছে না লকডাউনে। নির্দিষ্ট তারিখে শিশু জন্ম হচ্ছে। সিজার না হওয়ার একমাত্র কারণ এখন ক্লিনিকগুলো বন্ধ। আপনারা জানেন কি-না আমি তখন (রিট আবেদনে) বলেছিলাম যে, ক্লিনিকগুলোর ৯৫ শতাংশ ইনকাম হয় এই অপ্রয়োজনীয় সি’জার থেকে।

‘ক্লিনিকগুলো বন্ধ থাকার কারণে এবং আজকের দুঃসময় আসার কারণে আপনারা কী দেখলেন? স্বার্থপরতা দেখলেন। ক্লিনিক বন্ধ থাকার কারণে অপ্রয়োজনীয় সি’জারও বন্ধ হয়ে গেছে। আমি জানি না, কোভিড নাইনটিন পরবর্তীতে আমরা বাঁচব কি না। তবে যারা বাঁচবে তাদের জন্যেই এই ভি’ডিও বার্তাটি রেখে যেতে চাই’-যোগ করেন সুপ্রিম কোর্টের এই আইনজীবী।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, সি’জার বন্ধ হওয়ার কারণে যে প্রসূতি মায়ের মৃ’ত্যুর হার বেড়ে গেছে তাও কিন্তু না। এর মানে হচ্ছে প্রোপার রেস্ট নিলে বাড়ি ঘরে থাকলে আমাদের মা বোনদের নরমাল ডেলিভারি সম্ভব।

‘আপনারা এমন একটা বাস্তবতা দেখবেন যে ডাক্তাররা একটা কমন কথা বলেই, আমার বাচ্চার জন্মের সময় ডাক্তারের কাছে যাওয়ার পর একই কথা শুনেছিলাম ডাক্তারের কাছ থেকে। তারা বলেন, গর্ভের শিশু শুকনাতে পড়ে গেছে পানি ভে’ঙে গেছে। এই দু-একটা কথা বললেই যারা নতুন বাবা হন তাদের মাথা ঠিক থাকে না, তাদের হু’শ নষ্ট হয়ে যায়। এই অবস্থায় বলেন, যা ইচ্ছা করেন কিন্তু তো আমার বাচ্চাটাকে বাঁ’চিয়ে রাখেন।’

তিনি বলেন, এই সুযোগ নিয়ে কিছু কিছু গাইনি ডাক্তার, সুস্থ প্রসূতির সি’জার করতেও দ্বিধাবোধ করেন না। আমি এই ভি’ডিওটা রেখে যাচ্ছি ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য। আপনারা এটা থেকে যদি কিছু শিক্ষা দিতে পারেন।

তিনি আরও বলেন, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই চার শতাংশ সি’জার প্রয়োজন হয়, বাকি ৯৬ শতাংশ সি’জার প্রয়োজন পড়ে না। বিদেশে আত্মীয়-স্বজনের কাছে শুনবেন না কখনও প্রসূতির সি’জারের প্রয়োজন হয়।

‘প্রকৃতির বিচারেই আমরা এখন কিছুটা মানুষ হতে শিখছি। করোনাভাইরাস হয়তো থাকবে না, আমরাই মানুষ হওয়াটা যেন জারি রাখি। আপনারা ভবিষ্যতে যারা বাবা এবং মা হবেন তাদেরকে আহ্বান জানিয়ে বলছি, আপনারা এসব অনৈতিক সি’জার থেকে দূরে থাকবেন। এই ক্লিনিকগুলো থেকে দূরে থাকবেন। সাথে সাথে সরকারকেও বলছি, এটা (করোনাকালীন সময়) থেকে শিক্ষাগ্রহণ করেন, করোনা-পরবর্তী বাংলাদেশে যেন সি’জারে কম শিশু জন্ম নেয়।’