ঢাকা, আজ শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০

মধ্য রাতে অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ইশরাকের ত্রাণ বিতরণ

প্রকাশ: ২০২০-০৫-০৮ ১২:০৪:৩৫ || আপডেট: ২০২০-০৫-০৮ ১২:০৪:৩৫

নিউজ ডেস্ক : রাজধানীর অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মাঝে সাদেক হোসেন খোকা ফাউন্ডেশনের (প্রস্তাবিত) পক্ষ থেকে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছেন ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন। বৃহস্পতিবার মধ্য রাতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এ ত্রাণ বিতরণ করা হয়।রাত ৯টা থেকে শুরু হয় ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম। সেহরির আগ পর্যন্ত নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে অসহায়দের মাঝে এসব বিতরণ করা হয়। সারা রাতে প্রায় দেড় হাজার প্যাকেট বিতরণ করা হয়েছে।

এর আগে গত সোমবার রাজধানীর সুত্রাপুর এবং ওয়ারী এলাকার ১ হাজার দুস্থ পরিবারের মাঝে প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। গত ২৮ এপ্রিল সাদেক হোসেন খোকা ফাউন্ডেশনের (প্রস্তাবিত) পক্ষ থেকে ঢাকার অসহায় মানুষের জন্য খাদ্য বিতরণ কর্মসূচি প্রজেক্ট ঢাকা এইডের ঘোষণা দেন ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন। সেই সঙ্গে রমজান উপলক্ষে ঢাকার অন্তত ১০ হাজার দুস্থ পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য বিত্তবানদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এ উপলক্ষে ঘোষণা করা হয় রমজান প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রীর সমন্বয়ে প্রস্তত প্যাকেজের, যার নাম দেয়া হয় রমজান ফুড প্যাক। এই কর্মসূচিতে নিজস্ব অর্থায়নে আড়াই হাজার প্যাকেট বিতরণের ঘোষণা অনুসারেই বিতরণ করা হচ্ছে ত্রাণ সামগ্রীগুলো।আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনাময় দিন-দুনিয়া। গোটা বিশ্বে এক এবং একমাত্র আলোচনার বিষয় এই মারণ ভাইরাস। বাস্তবেই হ’তাশাময় হয়ে উঠছে মানুষের জীবন। তবু তারই মধ্যে এমন কিছু ঘটনা, ছবি সামনে এসে পড়ে, তাতে মন ভালো হতে বাধ্য। এরকমই এক ছবি সামনে এল সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে।

ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে, ধানের খেত থেকে সমস্ত ফসল তোলা হয়ে গেলেও কিছুটা জায়গায় রয়ে গিয়েছে ধানগাছ। কেন? কারণ ওই জায়গাটিতে বাসা বানিয়েছে পাখি। আর সেই বাসাতে বেশ কয়েকটি ডিম রয়েছে। সেই ডিমগুলি যাতে নষ্ট না হয়ে যায়, যাতে পৃথিবীতে আসতে পারে নতুন প্রাণ, সেই কারণেই কৃষক সেই অংশটুকুর ধান কাটেননি।

ছবিটি দেখে নেটিজেনরা প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছেন সেই মানুষটিকে। এক ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘কৃষক চাইলেই ধানগুলো কেটে ফেলতে পারতেন, কিন্তু মানবিক কারণে পাখির বাসার অংশের ধান না কেটে এভাবেই রেখে গিয়েছেন। অন্য প্রাণীর উপর আধিপত্য বিস্তার আমাদের শ্রেষ্ঠত্বের মাপকাঠি নয়। এক শ্রেণীর মানুষ প্রকৃতির জন্য ভালোবাসা দেখিয়ে উদাহরণ সৃষ্টি করেন। প্রকৃতির ভারসাম্য বজায় থাকুক।’

অপর একজন লিখেছেন, ‘পৃথিবীতে এখনও এমন মানুষ আছেন দেখে ভালো লাগছে। এই হিং’সার পৃথিবীতে জীবজন্তুরা নিরাপদ নয়। তবে কিছু মানুষ এখনও মানুষই আছেন। তাঁরাই পশুপাখিদের রক্ষা করেন।’-এই সময় আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনের শানকি প্রদেশে ৭৯ বছরের এক প্রতিব’ন্ধী বৃ’দ্ধাকে জীব’ন্ত পুঁ’তে রে’খেছিলেন তার নিজের ছেলে! কিন্তু তিনদিন ধ’রে গ’র্তে আ’টকে থাকার পরেও অলৌ’কিকভাবে বেঁ’চে যান তিনি। তাকে উ’দ্ধার করেছে স্থা’নীয় পুলিশ। এমনটাই জানিয়েছে প্রদেশটির স্থানীয় ক’র্তৃপক্ষ।

এই বৃদ্ধার নি’খোঁ’জ হওয়ার খবরটি উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের চীনের শানকি প্রদেশ পুলিশের কাছে জানান তার ছেলের বউ। পরে মঙ্গলবার পুলিশ তাকে জী’ব’ন্ত উ’দ্ধার করে। এই ঘ’ট’নার পর বৃদ্ধার ছেলে মাওকে আ’ট’ক করেছে পুলিশ। তাকে হ’ত্যাচে’ষ্টার মা’মলা দেওয়া হয়েছে। তবে আরো তদ’ন্ত চ’লছে।

এর আগে মঙ্গলবার সকালে শানকি প্রদেশের জিংবিয়ান কাউ’ন্টি থেকে স্থানীয় পুলিশ ওয়াং নামের ওই বৃদ্ধার নি’খোঁ’জের খবর পায়। তার পুত্রবধূ পুলিশে এই খবর দেন। তিনি জানান, রবিবার রাত ৮টার দিকে তার ছেলে ওয়াংকে নিয়ে বে’র হওয়ার পর তিনি আর বাড়ি ফিরেননি। এরপর পুলিশ দ্রু’তই মাওকে ত’ল’ব করে। তারপর ওই বৃদ্ধার ছেলেই মাকে জী’ব’ন্ত পুঁ’তে ফেলার কথা স্বী’কার করে।

মাওর কথা শুনে দ্রু’ত ঘ’টনাস্থ’লে গিয়ে ওই বৃদ্ধা নারীকে জী’ব’ন্ত উ’দ্ধার করে পুলিশ। অলৌ’কিকভাবে প’ক্ষাঘা’তগ্র’স্থ ওই নারী তিনদিন ধ’রে কোনো খাবার বা পানি ছা’ড়াই বেঁ’চে ছিলেন। তবে মাও কেন এই নৃ’শং’সতা চা’লিয়েছিল তা এখনো জানা যায়নি। সূত্র: ডেইলি মেইল।

131 0 Google +0 0 0

4 0 Google +0 0 0