ঢাকা, আজ শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০

মারা গেছেন আসল কিম, প্রকাশ্যে এসেছিলেন নকল কিম !

প্রকাশ: ২০২০-০৫-০৮ ১২:০৪:৪১ || আপডেট: ২০২০-০৫-০৮ ১২:০৪:৪১

সকল গুজব উড়িয়ে দিয়ে গত শুক্রবার (১ মে) প্রায় ২০ দিন পর জনসম্মুখে এসেছিলেন উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন। এর আগে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে দাবি করা হয়েছে যে সংকটাপন্ন অবস্থায় আছেন কিম জং উন। আবার কিছু গণমাধ্যম দাবি করেছে যে মারা গেছেন উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ প্রেসিডেন্ট কিম জং উন। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিমের সাম্প্রতিক ছবি পোস্ট করে অনেকেই দাবি করেছেন জনসম্মুখে আসা কিম আসল নয়। সেটি তার ডাবল বডি অর্থাৎ অবিকল কেউ।

সেখানে একটি ছবিতে কানের আকৃতি তুলনা করা হয়েছে। যেখানে স্পষ্ট পার্থক্য দেখা যাচ্ছে। তবে এর মধ্যে বেশির ভাগ কিমের ছবিই বেশ পুরনো।

কিমের ডাবল বডির বিষয়ে প্রথম টুইট করেন চিনা ব্লগার জেনিফার জেং। এক টুইট পোস্টে তিনি দাবি করেছেন, মে দিবসে যে কিম জন সম্মুখে এসেছেন তিনি আসল কিম নন। ওই টুইটে জেনিফার জেন বলেন,মে দিবসে যিনি প্রকাশ্যে এসেছেন তিনি কি আসল! ৪টি জিনিস দেখতে হবে- ১)দাঁত, ২)কান, ৩)চুল ও ৪)তার বোন।

এদিকে কিমকে নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যেও তৈরি হয়েছে এমন প্রশ্ন। এ নিয়ে আরেকজন টুইটে লিখেছেন, আমার মনে হয় সে মারা গেছেন এবং তার অবিকল কাউকে সেখানে আনা হয়েছে।

কিমের সাম্প্রতিক ছবি দেখে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন যুক্তরাজ্যের সাবেক এমপি লুইস মেনশ।এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, এটা ওই মানুষটি না। তবে আমি তর্কে যাবো না। তার দাঁতের আকার এবং ঠোঁটের উপরে কিউপিড বো সম্পূর্ণ আলাদা। ডেইলি স্টার।

ইত্তেফাক/এআরমৃত্যুবরণ করে রাস্তায় পড়ে থাকা এক কিশোরের মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতালের মর্গে প্রেরণে এবার এগিয়ে আসলেন গাজীপুরের জালাল উদ্দিন চিকিৎসা ফাউন্ডেশন ও হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও মহানগর জাসদেও সভাপতি ডা. মো. রাশেদুল হাসান রানা।

ঘটনা ঘটেছে বৃহস্পতিবার দুপুরে গাজীপুর মহানগরের চান্দনা চৌরাস্তা ও জয়দেবপুর সড়কের মাঝে একটি ছেলে মৃত্যু বরণ করে পড়ে থাকেন ঘন্টা দুয়েক। কিন্তু করোনা সন্দেহে কেউ এগিয়ে আসেনি তাকে সাহায্য করতে বা মরদেহ উদ্ধার করতে। বরং উল্টো ভয়ে প্রত্যক্ষদর্শীরা ঘটনাস্থল থেকে চলে যান দ্রুত। ১৫-১৬ বছরের ছেলের প্রাণহীন দেহটা প্রায় ২ ঘন্টা সড়কে পড়ে থাকার খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে তার পর জালাল উদ্দিন চিকিৎসা ফাউন্ডেশন ও হাসপাতালের কর্মীর মাধ্যমে লাশ টি ভ্যানে উঠিয়ে দিয়ে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। এর সাথে সার্বিক সহযোগিতা করেন গাজীপুর পুলিশ।

এর আগে তিনি দেশে লক ডাউন শুরুর পর থেকে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় জনসাধারণকে হাত ধোয়াসহ বিভিন্ন সামগ্রী এবং প্রায় ৪ হাজার পরিবারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন কর্মহীন মানুষের মাঝে। এছাড়া প্রতিদিন রোজায় ইফতার সামগ্রী বিতরণ করছেন।ঞ্চগড়: পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা বৃদ্ধা ইশারন নেছা। বয়স প্রায় ৯৫ বছর। বয়সের ভাড়ে হাঁটতে পারেন না। নিজের চার মেয়ে ও সৎ ছেলেদের সবার কাছেই এখন বোঝা হয়ে উঠেছে ওই বৃদ্ধা। কেউ তাকে আর রাখতে চায় না। নিরুপায় বৃদ্ধা মির্জাপুর উত্তরা বাজারের এক দোকানের সামনে বসে বসে কাঁ’দছেন। করোনার প’রিস্থিতির মধ্যেই সন্তানরা তাকে বের করে দিয়েছেন বাড়ি থেকে। কোনো সন্তানই তাকে দেখভালের দায়িত্ব নিতে রাজি না হওয়ায় বে’কায়দায় পড়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও।

জানা যায়, ইশারন নেছার স্বামী মজত আলী মা’রা যায় মুক্তিযুদ্ধের পরপরই। ৫ মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে মা’রা গেছেন। বাকি ৪ মেয়েকে বিয়ে দিয়েছে বিভিন্ন এলাকায়। ৩ মেয়ে স্বামীর বাড়ি মির্জাপুর ইউনিয়নেই। স্বামী মা’রা যাওয়ার পর বৃদ্ধা তার স্বামীর ভিটায় থাকতেন। সৎ ছেলেদের একজন তাকে দেখভাল করতেন। কিন্তু সেই সন্তানও মা’রা গেলে। সবকিছু বিক্রি করে একই ইউনিয়নের পাখোরতলা এলাকায় সেজ মেয়ে আজিমা বেগমের বাড়িতে গিয়ে উঠেন ওই বৃদ্ধা। ১৫/১৬ বছর ধ’রে সেখানেই রয়েছেন। ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। গত এক মাস আগে এক মেয়ের বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে পিছলে পড়ে পায়ে আঘা’ত পান ইশারন। তারপর থেকে হাঁ’টতে পারেন না। এই অবস্থায় মাকে টানতে না পেরে তার মেয়ে আজিমা তাকে রেখে আসে সৎ ভাই জাহিরুলের বাড়িতে। জাহিরুল ও তার ছেলে সলেমান তাকে ১ মাস দেখাশুনার করার পর তাকে আবার রেখে আসে আজিমার বাড়ি।

কয়েকদিন পর আজিমা আবার রেখে আসে জাহিরুলের বাড়ি। এভাবে এক পর্যায়ে তারা বুধবার সন্ধ্যায় তাদের মাকে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে রেখে চলে যায়। রাত হলেও তাকে কেউ বাড়িতে নেয়ার উদ্যোগ নেয়নি। রাতে স্থানীয় কয়েকজন যুবক বৃদ্ধার খাবারের ব্যবস্থা করেন। পরে ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা তার মেয়ে আজিমার বাড়িতে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার দুপুরে আজিমা আবারও তার মাকে মির্জাপুর উত্তরা বাজারের একটি দোকানের সামনে রেখে চলে যায়। সেখানে বসে বসে কাঁ’দছেন ওই বৃদ্ধা। সন্ধ্যায় ঝড় বৃষ্টি শুরু হলেও কোনো সন্তানই তাকে ফিরিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নেয়নি।

বৃদ্ধা ইশারন নেছা কাঁ’দতে কাঁ’দতে বলেন, আমার কেউ নেই। প্রয়োজনে আপনারা আমার স্বামীর ভিটায় একটা ঘর তুলে দিন। আমি সেখানেই যেন ম’রতে পারি। মেয়ে ও সৎ ছেলে আমাকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে। কাল সবাই মিলে আমাকে মেয়ে আজিমার বাড়িতে রেখে আসে। আজ আবার আমাকে বাজারে রেখে চলে গেছে। বৃদ্ধার কাছে যেই আসছে তার কাছেই একটু আশ্রয়ের দাবি জানাচ্ছেন।

তার সৎ ছেলে জাহিরুল ইসলাম বলেন, আমি অত্যন্ত দরিদ্র একজন মানুষ। তারপরও ১ মাস আমার বাড়িতে রেখেছিলাম। কিন্তু তিনি বিছানাতেই প্রস্রাব পায়খানা করেন। আমার স্ত্রীও অসুস্থ। তাই তাকে দেখভাল করা সম্ভব হচ্ছে না বলে আজিমার বাড়িতে পাঠিয়ে দেই। এখন তার আপন মেয়েই তাকে আর রাখতে চাইছে না।

বৃদ্ধার মেয়ে আজিমা বেগম বলেন, আমি নিজেই অসুস্থ। তাই মাকে পরিচর্যা করবো কিভাবে। এ ছাড়া আমার মাকে রাখার মতো কোনো ঘর নাই। হাঁটতে পারে না তাই ঘরেই প্রস্রাব পায়খানা করে। আমি খুব কষ্ট করে জীবন যাপন করছি। তাই সৎ ভাইয়ের কাছে রেখে এসেছিলাম।

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুর রহমান বলেন, এই বয়সে বৃদ্ধাকে তার সন্তানরা বের করে দিয়েছেন এটা অমানবিক। তিনি চলাফেরা করতে পারেন না। এই অবস্থায় তার সন্তানরাই পারেন তাকে কাছে রাখতে। বিশেষ করে তার যেই মেয়ের কাছে দীর্ঘদিন ছিলো সেই মেয়ের একটু সদয় হওয়া উচিত। প্রয়োজনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ আমরা এলাকাবাসীও সহযোগিতা করবো। কিন্তু তার সেবাযত্নের দায়িত্ব তার সন্তানদেরকেই নিতে হবে।

মির্জাপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য আমিরুল ইসলাম বলেন, ওই বৃদ্ধাকে নিয়ে আমরা বি’পাকে পড়ে গেছি। তার নিজের মেয়ে ও সৎ ছেলে কেউ তাকে নিতে রাজি হচ্ছে না। চাল ডাল দিয়ে আমরা গতকাল তার মেয়ে আজিমার বাড়িতে তাকে পাঠিয়ে দিয়েছিলাম। কিন্তু আজ দেখি আবার তাকে বাজারে রেখে গেছে।

মির্জাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ওমর আলী বলেন, ওই বৃদ্ধা তার সবকিছু বিক্রি করে সব টাকা পয়সা নিয়ে মেয়ে আজিমার বাড়িতে উঠেন। ভিক্ষা করে যা পেতেন সব মেয়েকে দিয়ে দিতেন। পায়ে আঘা’ত পেয়ে এখন ভিক্ষা করতে পারেন না তাই তাকে তার মেয়ে আর রাখতে চাইছে না। আমরা প্রয়োজনে সহযোগিতা করতে পারি কিন্তু দেখভালের দায়িত্ব কিন্তু তো তাদেরই নিতে হবে। ওই বৃদ্ধার সন্তানদের ডেকে বিষয়টির সমাধানের প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান তিনি।-কালের কণ্ঠ