ঢাকা, আজ সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

ইসলামিক দেশগুলির কাছে পাকিস্তান প্রচার চালাচ্ছে ‘ভারত মুসলিম বিদ্বেষী’

প্রকাশ: ২০২০-০৫-০৪ ০৯:৩১:৪৮ || আপডেট: ২০২০-০৫-০৪ ০৯:৩১:৪৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু উ’গ্র হিন্দুত্ববা’দিদের বেফাঁ’স পোস্টের দরুন মধ্যপ্রচ্যের ইসলামিক দেশগুলির মধ্যে ভারতের প্রতি বি’রূ’প প্রতি’ক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। যা কাজে লাগাতে ম’রিয়া পাকিস্তান। ইসলামিক দেশগুলির কাছে ভারতকে আরও বদনাম করার লক্ষে তারা কোমর বেঁধে নেমেছে।

সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট টুইটারে ভারতকে মুসলিম বিরো’ধী প্রমাণ করার জন্য রীতিমতো ‘আইটি সেল’ তৈরি করে ফেলেছে পাকিস্তান। ভারতের গোয়ে’ন্দা সুত্রের খবর পাকিস্তান এমন ৭ হাজার ভুয়ো অ্যাকাউন্ট টুইটারে তৈরি করেছে যাদের কাজই হল ভারতকে মুসলিম বিদ্বে’ষী প্রমাণ করা। জানুয়ারি থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত ৭০০০ পাকিস্তানি টুইটার অ্যাকাউন্ট ভারতের নামে মি’থ্যাচার করত আন্তর্জাতিক মহলে।

এপ্রিল মাসে সেই তালিকায় যুক্ত হয়েছে আরও ৭ হাজার অ্যাকাউন্ট। ইতিমধ্যেই ভারতীয় গোয়ে’ন্দারা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়কে নিজেদের রিপোর্ট জমা দিয়েছেন। সম্প্রতি মুসলিম বিদ্বে’ষ ইস্যুতে নতুন করে বিত’র্কের সূত্রপাত হয় তরুণ বিজেপি সাংসদ তেজস্বী সূর্যর একটি পুরনো টুইট ঘিরে। সাংসদ হওয়ার আগে সেই টুইটে তেজস্বী আরবের মুসলিম মহিলাদের উদ্দেশ্যে একটি বিত’র্কিত মন্তব্য করে বসেন। বহুদিন পর সেই টুইটটি ভাই’রাল হয়। এবং তা নিয়ে তী’ব্র প্রতি’ক্রিয়া সৃষ্টি হয় মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম দেশগুলিতে।

সংযুক্ত আরব আমিররাতের এক রাজকন্যা তেজস্বী সূর্যকে হুঁ’শিয়ারি দিয়ে বলেন, ”আমি ভারতে গান্ধীর দেশ হিসাবে চিনি। জানি এই দেশ অনেক আত্মত্যা’গ করেছে। এখন গোটা বিশ্ব কোভিড-১৯(COVID-19)-এর বিরু’দ্ধে ল’ড়াই করছে। এই সময়ে ঘৃ’ণা ছড়ানো বন্ধ রাখা উচিত।” এরপর ইসলামিক দেশগুলির বৃহত্তম সংগঠন ওআইসি ভারতের পরি’স্থিতি নিয়ে উদ্বে’গ প্রকাশ করে।

ভারতের বি’রু’দ্ধে ইসলামিক দেশগুলির এই অসন্তোষকেই কাজে লাগাতে চাইছে পাকিস্তান। টুইটারে সীমান্তের ওপার থেকে ভারতের নামে লাগাতার অ’পপ্রচার চালানো হচ্ছে। করা হচ্ছে মি’থ্যাচারও। উদ্বেগের বিষয় হল যে ৭০০০ টুইটার অ্যাকাউন্ট ক্রমাগত ভারতের বিরু’দ্ধে মি’থ্যাচার করছে তারা নিজেদের পাকিস্তানি হিসাবে পরিচয় না দিয়ে ভারতীয় বা আরব দেশগুলির বাসিন্দা হিসেবে পরিচয় দিচ্ছে। যাতে তাদের অ’পপ্রচার বিশ্বাসযোগ্য মনে হয়। ভারত সরকারও দ্রুত এই অ’পপ্রচারের বি’রু’দ্ধে আসরে আমার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সূত্র : সংবাদ প্রতিদিনআন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রাণঘা’তী করোনাভাইরাসে বিপর্য’স্ত গো’টা বিশ্ব। এ ঘো’র মহামা’রীর মধ্যে আরও একটি আশার আলোর কথা জানালো ভারত। এবার জ’ল্পনা তু’ঙ্গে একটি অতি সস্তার অ্যান্টাসিড নিয়ে, অ্যা’ন্টাসিডটি হল ফ্যামোটিডিন। নতুন এক গবেষণায় এরকমই চাঞ্চ’ল্যকর ত’থ্য সামনে নিয়ে আসছে৷

মোদি সরকারও ভারতীয় জনৌষধী পরিযোজনাসহ বিভিন্ন ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থাকে ফ্যামোটিডিন পর্যাপ্ত পরিমাণে তৈরি রাখারও নির্দেশ দিয়েছে। নির্দেশ দিয়েছে, এ অ্যান্টাসিডের পর্যাপ্ত জোগানের বিষয়টি খ’তিয়ে দেখতে, করোনা চিকিৎসায় আশা জাগাতে পারে অ্যান্টাসিড ফ্যামোটিডিন নতুন গবেষণায় এমনটাই মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

নিউইয়র্কে করোনা রোগীদের ওপরে এই ওষুধের ক্লি’নিকাল ট্রা’য়ালে ভাল ফলাফল পাওয়া গেছে বলে দাবি করা হয়েছে। চীনেও এই ওষুধের ট্রা’য়াল চলছে। ভারতে ফ্যামোটিডিন পর্যাপ্ত পরিমাণেই পাওয়া যায়। দাম মাত্র ৪০ পয়সা। সূত্রের খবর, এই ওষুধের উৎপাদন আরও বাড়ানোর জন্য দেশের সরকারি ওষুধ নিয়’ন্ত্রক সংস্থাগুলোর সঙ্গে আলোচনা চালাচ্ছে মোদি সরকার।

ফ্যামোটিডিন বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নামে বিক্রি হয়- ভারতে ফ্যামোসিড ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পেপসিড ইত্যাদি নামে। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের একটি সূত্র জানা গেছে, অন্যান্য দেশের গবেষণার ফলে যা বোঝা যাচ্ছে, খুব শিগগিরই ফ্যামোটিডিনের চাহিদা বাড়তে চলেছে, যেমনটা হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ক্ষেত্রে হয়েছে। তাই তৈরি থাকার মধ্যে তো কোনও দোষ নেই৷

সার ও রাসায়নিক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মনসুখ মন্দভ্যের নেতৃত্বে একটি বৈঠকে ফ্যামেটিডিনের পর্যাপ্ত জো’গান নিয়ে আলোচনা হয়। এই ওষুধটি সরকারের জনৌষধী প্রকল্পের আওতায় দেশের বিভিন্ন জনৌষধী আউটলেটে দেয়া হবে বলেও বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।