ঢাকা, আজ রোববার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

জম্মু-কাশ্মীরে ভয়া’বহ সংঘ’র্ষ: মেজর-কর্নেলসহ ৫ সেনা ও ২ গেরিলা নি’হত !

প্রকাশ: ২০২০-০৫-০৩ ১৪:১৫:৪৪ || আপডেট: ২০২০-০৫-০৩ ১৪:১৫:৪৪

জম্মু-কাশ্মীরে নিরাপত্তা বাহিনী ও গেরিলাদের মধ্যে ভ’য়াবহ সংঘ’র্ষে সেনাবাহিনীর কর্নেল, মেজরসহ ৫ জওয়ান নি’হত হয়েছেন। নি’হতদের মধ্যে ২১ রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের দুই কর্মকর্তা ও এক পুলিশ কর্মকর্তাও রয়েছেন।

জম্মু-কাশ্মীরের হান্দওয়াড়ার ওই সংঘ’র্ষে দুই গেরিলাও নি’হত হয়েছে। আজ (রোববার) সকালে ওয়েবসাইট সূত্রে ওই তথ্য জানা গেছে। একটি সরকারি বিবৃতিকে উদ্ধৃত করে জানায়, অ’পহৃত কিছু ব্যক্তিকে উদ্ধার করতে শনিবার নিরাপত্তা বাহিনী এবং জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ হান্দওয়াড়ায় যৌথ অ’ভিযান চালায়।

নিরাপত্তা বাহিনী গোয়েন্দা সূত্রে জানতে পারে যে কুপওয়াড়া জেলার হান্দওয়াড়ায় স’ন্ত্রাসীরা একটি বাড়িতে কয়েকজনকে অপ’হরণ করেছে। এরপরে সেনাবাহিনী ও জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ সেখানে একটি যৌথ অ’ভিযান পরিচালনা করে। সেনাবাহিনী ও পুলিশের দল ঘরের ভিতরে ঢুকে অপহৃতদের মুক্ত করতে সমর্থ হয়।

কিন্তু এ সময়ে গেরিলাদের পক্ষ থেকে ভারী গু’লিবর্ষণ করা হয়। উভয়পক্ষের মধ্যে তুমুল ব’ন্দুকযুদ্ধে দু’জন গে’রিলা নিহত হয়েছে।

একইসময় মেজর অনুপ শুদ, কর্নেল আশুতোষ শর্মা এবং নায়েক রাজেশ, ল্যান্স নায়েক দীনেশ এবং জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের উপ-পরিদর্শক শাকিল কাজী নিহত হয়েছেন।

সুত্র: দৈনিক সকাল

পকানাডার তিন শহরে উচ্চস্বরে মাইকে আজান প্রচারের অনুমতি

পবিত্র রমজান মাসে কানাডার তিন শহরে উচ্চস্বরে মাগরিবের আজান প্রচারের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতি বিবেচনা করে টরন্টো, অটোয়া এবং মিসিসাওগা সিটি কাউন্সিল পৃথকভাবে এই অনুমোদন দেয়। আগামী ২৩ মে পর্যন্ত এই সুবিধা বহাল থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

তবে সংক্ষিপ্ত আকারে আজান প্রচার করার অনুমতি দিলেও মসজিদে সমবেত হওয়ার ব্যাপারে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে।

মিসিসাওগার মেয়র বনি ক্রমবি ফেসবুক পোস্টে আজান প্রচারের অনুমতি দেয়ার কথা উল্লেখ করে বলেছেন, মিসিসাওগার মসজিদ এবং যে কোনো ভবনে সূর্যাস্তের সময় সংক্ষিপ্তভাবে উচ্চস্বরে আযান প্রচার করা যাবে।

অন্য দুটি শহরে কেবল মসজিদে আজানের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে কানাডার অন্টারিও প্রদেশে বাংলাদেশি মুসলিম সম্প্রদায়ের সদস্যদের ফিউনারেল প্রক্রিয়া বা দাফন কার্য সহজ করতে ‘বাংলাদেশ মুসলিম ফিউনারেল সার্ভিসেস’ নামে একটি অলাভজনক সেবামূলক সংগঠন অন্টারিওতে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছে।

সংগঠনটির আনুষ্ঠানিক কার্যক্রমের ঘোষণা দিয়ে সংগঠনটির পরিচালক মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশন মো. হানিফ বলেন, অন্টারিওতে বাংলাদেশি কানাডিয়ান মুসলিমদের পরামর্শ ও চাহিদার ভিত্তিতে ‘বাংলাদেশ মুসলিম ফিউনারেল সার্ভিসেস’ তার সদস্যদের দ্বারা পরিচালিত হবে।

এটি একটি কানাডিয়ান ফেডারেলি ইনকর্পোরেটেড সংগঠন। সংগঠনটির কোনো সদস্য মারা গেলে তার দাফনের খরচসহ অন্যান্য সব বিষয়গুলো দেখবে। এছাড়া মসজিদের সঙ্গে সমন্বয় করে মৃতের পরিবারের জন্যে কাজটি বিধিসম্মত ও সহজভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্য নিয়েই এই সংগঠনের জন্ম হয়েছে।

সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত প্রতিটি সদস্যই স্বেচ্ছাশ্রমের বিনিময়ে কমিউনিটির জন্যে এই অত্যাবশকীয় সেবা প্রদান করবেন। কানাডায় ফিউনারেল খরচ বেশ ব্যয়বহুল এবং দিন দিন তা বাড়ছে।

বাংলাদেশ মুসলিম ফিউনারেল সারভিসের সদস্য হয়ে যে কেউ তার বা তার পরিবারের প্রয়োজনের সময় এই সংগঠনটি থেকে আর্থিক এবং অন্যান্য লজিস্টিক সহযোগিতা পেয়ে থাকবেন।

‘বাংলাদেশ মুসলিম ফিউনারেল সার্ভিসেস’ ধীরে ধীরে সব প্রদেশগুলোতে তাদের কার্যক্রম সম্প্রসারণ করার আশা ব্যক্ত করেছে।

টুইটারে হেল্প পোস্ট দেখা মাত্র করোনা রোগি বাঁচাতে এয়ার এ্যাম্বুলেন্স পাঠালেন এরদোগান

সুইডেনে এক তুরস্কের নাগরিকের করোনা সনাক্ত হবার পর তার অবস্থা অবনতির দিকে যেতে থাকে। তা সত্তেও তাকে হসপিটালে না রেখে বাসায় পাঠিয়ে দেয় কর্তৃপক্ষ।

সেই রোগীর মেয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্টকে লক্ষ্য করে সাহায্য চেয়ে টুইটারে এক পোস্ট করেন। তার পোস্ট করার কিছুক্ষণ পরেই তুরস্কের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রিপ্লাইয়ে জানিয়ে দেন “প্রিয় লেয়লা, তোমার আওয়াজ আমরা শুনেছি, আমরা এয়ার এ্যাম্বুলেন্স নিয়ে সুইডেনে আসছি।

তোমার বাবার জন্য আমাদের হসপিটাল এবং আমাদের ডাক্তাররা প্রস্তুত”। মাত্র ৭-৮ ঘন্টার ব্যবধানে, ওই রোগীসহ পুরো পরিবারকে নিয়ে তুরস্কের এয়ার এ্যাম্বুলেন্স ইতিমধ্যে দেশটির রাজধানী আংকারায়।

একজন নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্রের দায়িত্ববোধ কতটুকু তা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিলেন রজব তাইয়্যেপ এরদোগান।

অপরদিকে, প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় পিপিই-মাস্কসহ যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেপ এরদোগান।

সোমবার দেশটির মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে এ কথা জানান তিনি। এরদোগান বলেন, মঙ্গলবার আমরা যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা সহায়তা প্রেরণ করছি, যার মধ্যে রয়েছে সার্জিক্যাল ও এন ৯৫ মাস্ক, ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) ও জীবাণুনাশক বিভিন্ন মেডিসিন।

তিনি আরও বলেন, এমন সময়ে যখন উন্নত দেশগুলোও তুরস্কের সমর্থন চাইছে, আমরা বলকান থেকে আফ্রিকা পর্যন্ত বিস্তৃত জনপদে আমাদের সহায়তা অব্যাহত রেখেছি। টিআরটি, আল-জাজিরা।চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের এরশাদ আলীর স্ত্রী মারুফা খাতুন এবার চার সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) ভোর সাড়ে ৫টায় মারুফাকে চুয়াডাঙ্গা শহরের একটি ক্লিনিকে ভর্তি করলে চিকিৎসক জিন্নাতুল আরার তত্ত্বাবধানে দুটি পুত্র ও দুটি কন্যা সন্তান প্রসব করেন।

তবে, মা ও তিন সন্তান সুস্থ থাকলেও এক ছেলে নবজাতক অসুস্থ হওয়ায় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে। মারুফার স্বজনরা জানান, ২০০৯ সালে একই উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের আইনাল তরফদারের ছেলে এরশাদ আলীর সঙ্গে মারুফা খাতুনের বিয়ে হয়।

বিয়ের দুই বছরের মাথায় মারুফা কন্যা সন্তানের মা হন। এরপর সাত বছর পর ২০১৮ সালে মারুফা একসঙ্গে দুই কন্যা ও এক পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। তবে অপুষ্টিজনিত কারণে কয়েক দিন পর তিন সন্তানই মারা যায়।

চুয়াডাঙ্গার শহরের উপশম নার্সিং হোম ক্লিনিকের চিকিৎসক জিন্নাতুল আরা বলেন, স্বাভাবিক নিয়মে ৩০ মিনিটের মধ্যে চারটি সন্তান প্রসব করেন মারুফা। তিন সন্তানসহ মারুফাকে তার তত্ত্বাবধানে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

আরো পড়ুন: সন্তানের সাফল্যের জন্য মায়ের দোয়াই যথেষ্ট !

পৃথিবীর একমাত্র নিরাপদ আশ্রয়স্থান হলো মায়ের কোল। যত আবদার যত অ’ভিযো’গ সবই কিছু মায়ের কাছে। শুধু দশ মাস দশ দিন নয়, মা তার পুরো জীবন উৎস’র্গ করে দেন সন্তানকে মানুষের মতো মানুষ করতে। আমরা সেই মায়ের জন্য কতটুকুই বা করতে পারি?

গায়ের চামড়া দিয়ে মায়ের পায়ের জুতা বানিয়ে দিলেও তার ঋণ কখনো সন্তানরা শোধ করতে পারবে না। মায়ের দোয়া সন্তানের জন্য কত বড় আর্শীবাদ সেই বোধ অনেকেরই নেই। আর তাইতো বৃদ্ধাশ্রমে মা রেখেই শান্তিতে থাকেন তারা। আসলেই কি তারা সুখী হতে পারেন?

একটি শিশু তার মায়ের প্রতি যথাযথা দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে দোয়া অর্জন করে তার জীবনকে পরিবর্তন করতে পারে। সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশের গর্ব তিনি। একদিকে যেমন মাঠ সামলাম অন্যদিকে বাবা মায়ের প্রতি দায়িত্ব কর্তব্যও নিষ্ঠতার সঙ্গে পালন করেন তিনি। বিশেষ করে মায়ের প্রতি সাকিবের কৃতজ্ঞতার অন্ত নেই।

বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেনছেন, বাবা-মায়ের দোয়া ছাড়া কখনো সফল হওয়া সম্ভব নয়। তারা আমাদের জন্য যে ত্যাগ স্বীকার করেন তা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়। জীবনের শেষ দিন অবধি মা তার সন্তানের জন্য দোয়া করে যান। অথচ এর বিনিময়ে কখনোই তিনি কিছু প্রত্যাশা করেননা। ঠিক বাবাও তেমন।

বাবা-মাকে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসা সবচেয়ে খারাপ কাজ হিসেবেও উল্লেখ করেন এই অলরাউন্ডার। আমি বিশ্বাস করি আস্তে আস্তে পৃথিবীর সব বৃদ্ধাশ্রম বন্ধ হয়ে যাবে। বাবা-মাকে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসা সবচেয়ে নিকৃষ্ট একটি কাজ। একজন সফল ব্যবসায়ী আবদুল্লাহ মাহতাব। বাবা মা;রা যাওয়ার পর তার মা একা হাতেই তাকে মানুষ করেন। মাত্র ১৭ বছর বয়সেই ব্যবসা শুরু করেন তিনি।

আজ তিনি এক মস্ত বড় ব্যবসায়ী। তিনিও তার মায়ের সেবা যত্ন কর গেছেন মায়ের মৃ;ত্যুর আগ অবব্দি তিনি তার সেবা যত্ন করে গেছেন। মৃত্যুর আগ মুহূর্তে তার মা ছিলেন বিছানাসহ্যা। তার মল-মূত্র নিজ হাতে শ্রেষ্ঠ সন্তানের ন্যায় পরিষ্কার করেছেন মাহতাব। তিনি জানান, মায়ের জন্য কতটুকু করতে পরেছি তা তিনি জানেন না। তবে নিজের অবস্থান দেখে ক্রমশ তিনি উপলব্ধি করেছেন একমাত্র মায়ের দোয়ার কারণেই এসব সম্ভব হয়েছে।

স্ত্রী-সন্তান ও দুনিয়ার মোহে পড়ে বর্তমানে অনেকেই মা-বাবাকে বৃদ্ধাশ্রমে পাঠিয়ে দেয়। যা মোটেও ঠিক নয়। এখনো সময় আছে তাদের কাছে মাফ চান। পিতা-মাতা সন্তানের জন্য এক মহান আশীর্বাদ। পৃথিবীর সমস্ত সফলতা একমাত্র মায়ের দোয়ার বদৌলতেই আসতে পারে। সময় থাকতে মায়ের সেবা করে দোয়া আদায় করে নিন।

কর্তব্য পালনের মাধ্যমে মধুর সম্পর্ক তৈরি করুন। মাতৃ সেবা করার মাধ্যমে পরকালে জান্নাতের পথেও প্রবেশযোগ্য হবে। ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে প্রতিটি মানুষের কাছে তার মায়ের চেয়ে আপন আর কেউ নেই। শুধু মানুষ কেন? পৃথিবীর প্রতিটি প্রাণীই তার মায়ের কাছে ঋণী। সে ঋণ শোধ করার কোনো উপকরণ আল্লাহপাক দুনিয়ায় সৃষ্টি করেননি। ইসলাম মায়ের মর্যাদাকে মহিমান্বিত করেছেন।

এ ব্যাপারে আল্লাহ কোরআনে বলেন, ‘আমি মানুষকে তার মা-বাবার সঙ্গে (সদাচরণের) নির্দেশ দিয়েছি। তার মা কষ্টের পর কষ্ট ভোগ করে তাকে গর্ভে ধারণ করে। আর তার দুধ ছাড়ানো হয় দুই বছরে; সুতরাং আমার শুকরিয়া ও তোমার মা-বাবার শুকরিয়া আদায় করো- (সুরা লুকমান : ১৪)। একবার এক ব্যক্তি রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে এসে জিজ্ঞাসা করল, ইয়া রাসুলাল্লাহ!

আমার কাছে কে উত্তম ব্যবহার পাওয়ার বেশি হকদার? তিনি বললেন, মা। লোকটি বলল, তারপর কে? তিনি বললেন, তোমার মা। সে বলল, তারপর কে? তিনি বললেন, তোমার মা। সে বলল, তারপর কে? তিনি বললেন, তোমার বাবা- (বোখারি-মুসলিম)।