ঢাকা, আজ শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০

সংক্রমণ পিক পর্যায়ে সবকিছু খুলে দেওয়ার পর কি হবে ?

প্রকাশ: ২০২০-০৫-০২ ১৪:২৪:৩৩ || আপডেট: ২০২০-০৫-০২ ১৪:২৪:৩৩

এটা স্পষ্টতই বোঝা যাচ্ছে যে, বাংলাদেশে যখন করোনা সংক্রমণ পিক পর্যায়ে পৌঁছুবে তখন সবকিছু খুলে দেওয়া হতে পারে। আংশিকভাবে ইতিমধ্যেই অনেককিছু খুলে দেওয়া হয়েছে। ঢাকা শহরের অনেক স্থানে এখন জানজট দেখা দিয়েছে। লোকজন ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে। গার্মেন্টস কারখানাগুলো, অর্ধেক অফিস আদালতও খুলেছে। আজ কিছু কিছু পণ্যবাহী ট্রেনও চালু হলো। ধারণা করা হচ্ছে, সরকার আগামী ৬ মে’র পর আস্তে আস্তে সবকিছু খুলে দেবে। নতুন করে ছুটি দেওয়া হবে না।

সরকারের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা গেছে যে, রোজার ঈদকে ঘিরে কেনা বেচায় অর্থনীতির একটা গতিপ্রবাহ থাকে। সেটাকে মাথায় রেখে সরকার সীমিত সময়ের জন্য আস্তে আস্তে সবকিছু খুলে দেওয়ার একটা চিন্তাভাবনা করছে। বিশেষ করে সরকারী অফিস আদালত ও ভ্যাট অফিসের কার্যক্রম যেন স্বাভাবিক হয় সে লক্ষ্যেও এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। এছাড়া ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো এবং অন্যান্য কিছু জিনিস খুলে সরকার একটি স্বাভাবিক পরিস্থিতি আনার চেষ্টা করছে। যেন ঈদে একেবারে রুদ্ধ অর্থনীতি না হয়। সমস্ত কর্মকাণ্ড যেন স্তব্ধ না থাকে। প্রশ্ন হচ্ছে, সবকিছু খুলে দেওয়ার পর কি হবে?

বাংলাদেশে যে করোনার পরিস্থিতি সেই পরিস্থিতি অনুযায়ী সবকিছু খুলে দেওয়া কি বাংলাদেশের জন্য ইতিবাচক হবে নাকি বাংলাদেশ একটা মহামারিকে আলিঙ্গন করবে?

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন বিশেষজ্ঞ বলছেন যে, এটা একটা খুব হিসেবের বিষয়। সবকিছু হিসেবে নিকাশ করেই সরকার পদক্ষেপ নিবে বলে আশা করা যাচ্ছে। কারণ একদিকে হলো করোনার আশঙ্কা অন্যদিকে দুর্ভিক্ষের আশঙ্কা। এই দুই আশঙ্কার মধ্যে কোনটা বেশি আক্রমানত্নক, কোনটি বেশি ক্ষতিকর সেই হিসেব করেই সরকার এগুচ্ছে। সেভাবেই সরকার পদক্ষেপগুলো নিচ্ছে। সরকারের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন, সর্বোচ্চ ১০ থেকে ১৫ দিন যদি খোলা রাখা হয় তাহলে অর্থনীতিতে একটা গতি প্রবাহ আসবে। তারপর আপনা আপনি ঈদের ছুটিতে মে মাসের শেষদিকে বন্ধ হবে। সে সময় সরকার যদি দেখে পরিস্থিতি খারাপ তাহলে ছুটিটা বাড়িয়ে মাসের শেষ অব্দি নিয়ে যেতে পারে। কারণ সরকার আশা করছে যে, মে মাসের শেষ দিকে পরিস্থিতি আস্তে আস্তে স্বাভাবিক হবে। এখন যে জায়গাটিতে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকি রয়েছে সেটা হলো, যখন করোনা পরিস্থিতি চুড়ান্তে পৌঁছবে তখন সবকিছু খুলে দেওয়ার পরিণামটা কি হবে?

ইতিমধ্যে গার্মেন্টসসহ রপ্তানিমুখী কারখানা, সরকারী অফিস আদালতগুলো খোলা হয়েছে। রাস্তাঘাট, বাজারে মানুষের ভিড় বেড়েছে, কাজেই এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হিসেবে কি হবে? এবং খুব স্বাভাবিকভাবে বলা যায়, জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এরফলে করোনার যে সামাজিক সংক্রমণ তার ব্যাপক বিস্তৃতি হবে। এই ব্যাপক বিস্তৃতি হওয়ার ফলে জনস্বাস্থের জন্য একটা হুমকি তৈরী হবে এটা অনিবার্য। কিন্তু এর বিপরীতে কোন কোন বিশেষজ্ঞ মনে করছেন যে, বাংলাদেশে করোনার যে সংক্রমণ হচ্ছে তার মাত্র ৫ ভাগ উদ্বেগজনক বা ভয়াবহ হচ্ছে, এদের নিয়েই চিন্তা। বাকি যারা সংক্রমিত হচ্ছেন তারা বাসায় ১০ থেকে ১৪ দিনে চিকিৎসা করেই সুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। কাজেই এই সংক্রমণে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বা ইতালিতে যেমন হাজার হাজার মানুষ মারা গেছে, তেমন পরিস্থিতি হবে না। সীমিত পরীক্ষার কারণে তেমন পরিস্থিতি হওয়ার সুযোগও নেই। কাজেই এই সবকিছু খুলে দেওয়ার পর যদি অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে একটা গতি আসে এবং এই সময়ের মধ্যে যদি করোনার সংক্রমণ চলে যায় তাহলে সবকিছু স্বাভাবিক করে নিয়ে আসতে সরকারের বেশি বেগ পেতে হবে না। দ্রুতই অর্থনীতির চাকা সচল করতে পারবে বলে সরকার মনে করছে।

সরকারের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন, করোনায় জনস্বাস্থ্যের যে হুমকি সেটি হলো সাময়িক। একটা সময় এসে চলে যাবে। দুই বা তিনমাসের ধাক্কা। কিন্তু অর্থনীতির বিপর্যয় দীর্ঘ। তাই এখন থেকেই সেই বিপর্যয় মোকাবিলার জন্য সরকারকে প্রস্তুতি নিতে হবে। সেই কাজটিই সরকার করছে।নিউজ ডেস্ক : কক্সবাজারের টেকনাফে ঘাসফড়িং সদৃশ পোকা নিয়ে আত’ঙ্কের কিছু নেই বলে জানিয়েছে কৃষি মন্ত্রণালয়। আজ শুক্রবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানিয়ে বলা হয়েছে, এই পোকা তেমন ক্ষ’তিকর নয় মর্মে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এসব পোকা মরুভূমির ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ে আসা পঙ্গপাল জাতীয় কোনো পোকা নয়।

এ নিয়ে আত’ঙ্কিত না হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে অনুরোধ জানানো যাচ্ছে। বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, বেশ কিছুদিন আগে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার লম্বরী গ্রামের কয়েকটি গাছে ঘাসফড়িংয়ের মতো কিছু ছোট পোকার আ’ক্র’মণ দেখা দিলে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কক্সবাজারের উপপরিচালক ও স্থানীয় কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে কীটনা’শক প্রয়োগ করে পোকাগুলো দ’মন করেন।

অতিসম্প্রতি ঘাসফড়িং সদৃশ এসব পোকা আবারও দেখা দিলে কৃষি মন্ত্রণালয় এটিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করে। শুক্রবার সকালেই কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের কীটতত্ত্ববিদদের সমন্বয়ে উচ্চপর্যায়ের একটি দল টেকনাফের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছে। পাশাপাশি, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) এবং বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা) থেকেও পৃথক পৃথক টিম রওয়ানা দিচ্ছে।

ঘাসফড়িং সদৃশ লোকাস্ট গোত্রের স্থানীয় এই পোকার শনা’ক্তকরণসহ আ’ক্র’মণ প্রতিরো’ধ, নিয়’ন্ত্রণ ও ধ্বং’সে এই টিম কাজ করবে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কক্সবাজারের উপপরিচালক জানান, বৃহস্পতিবার কীটনা’শক স্প্রে করার পর গাছে থাকা পোকাগুলো মা’রা যায়। সেখানে আর কোনো জীবিত পোকা নেই।

Share0TweetShare