ঢাকা, আজ শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০

হিজাব করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সহায়তা করে, মার্কিন গবেষণা!

প্রকাশ: ২০২০-০৫-০১ ২২:০৭:৩৫ || আপডেট: ২০২০-০৫-০১ ২২:০৭:৩৫

ইসলামে নারীদের জন্য হিজাব বা পর্দা অপরিহার্য করেছে। কুরআন ও হাদিসেও হিজাব সম্পর্কে ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি সুস্পষ্ট। হিজাব সব নারীর জন্য অপরিহার্য। বোরখা ও হিজাব পরায় ইউরোপ-আমেরিকায় নানাভাবে হয়রানির শিকার হতে দেখা যায় মুসলিম নারীদের। কোথাও কোথাও হিজাব পরিহিতাদের ওপর হামলার ঘটনাও ঘটেছে। তবে করোনাভাইরাস এসে সেই অবস্থার পরিবর্তন ঘটিয়ে দিয়েছে। করোনাভাইরাস থেকে এখন নারী-পুরুষ সবাই ব্যক্তিগত সুরক্ষার পোশাকে নিজেদের আবৃত করছেন। হিজাব সদৃশ্য মাস্কে মুখ ঢাকছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের নর্থওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির ধর্ম ও যৌন বিভাগের অন্যতম গবেষক অ্যানা পায়েলা তার গবেষণার বিষয় ‘মুসলিম হিজাবি নারী’। অর্থাৎ যেসব মুসলিম নারী হিজাব পরেন তাদের নিয়ে গবেষণা করেন অ্যানা।

এই মার্কিনি নারী গবেষক সংবাদমাধ্যমকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর মাত্র চেহারা ঢাকা শুরু করেছে। সেখানকার স্থানীয় ও ফেডারেল নেতারা তাদের অবস্থান পরিবর্তন করেছে। কারণ হিজাব করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে।

আন্যা বেলা আরো বলেন, আমার একটি বইয়ের জন্য আমি ৩৮ জন আমেরিকান ও ব্রিটেনের মুসলিম হিজাবি নারীর সাক্ষাৎকার গ্রহণ করি। যাদের অধিকাংশই আমেরিকা অথবা ব্রিটেনের অধিবাসী। তিনি বলেন, যাদের সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম তারা পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ ও বিভিন্ন ধর্ম থেকে আগমন করেছে। কেউ আগে ছিলেন ইহুদি, কেউ খ্রিস্টান, আবার কেউ নাস্তিকও ছিলেন।

ওই নারীরা আন্যা বেলাকে জানিয়েছেন, হিজাব ইসলামের অনুশাসন মেনে চলতে সহযোগিতা করে এবং নারীদের আল্লাহর নৈকট্যশীল বানায়। কিন্তু তারা হিজাব পরার কারণে ইসলামবিরোধী ও বর্ণবাদীদের রোষানলে পড়েছেন।

সূত্র- দ্য করনভার্সেশন।

আরো সংবাদ

আমি মালয়েশিয়া হিজরত করেছি ডাঃ জাকির নায়েক।

চার বছর যাবৎ মালয়েশিয়া সরকার ডঃ জাকির নায়েককে এদেশের নাগরিকত্ব দিয়েছে। 2016 সালের বাংলাদেশের গুলশানে যখন জঙ্গি হামলা হয় তখন বাংলাদেশের একটি পত্রিকা ডাক্তার জাকির নায়েককে জঙ্গী হিসেবে উল্লেখ করে যার ফলে ভারতের হিন্দুবাদী সরকার জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী মামলা দায়ের করে তখন

জাকির নায়েক সৌদি আরবে অবস্থান করছিলেন। যারা বাংলাদেশে জঙ্গি হামলা করে তারা নাকি জাকির নায়েকের অনুসারী এমন একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে বাংলাদেশের একটি পত্রিকা তারপর থেকে বাংলাদেশ সরকার বাংলাদেশে পিস টিভি বন্ধ করে দেয় এবং ভারত সরকার বাংলাদেশ থেকে উস্কানি পেয়ে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে আরো শক্তিশালী সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে প্রমাণ করার জন্য লেগে পড়ে। জাকির নায়েক পরিস্থিতি খারাপ বুঝতে পেরে তিনি সৌদি আরব থেকে মালয়েশিয়ায় চলে আসেন। তখন

মালয়েশিয়া সরকার ভারতের হিন্দুত্ববাদী সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বুঝতে পেরে তাদের ষড়যন্ত্রের শিকার হতে যাচ্ছেন জাকির নায়েক বুঝতে পেরে জাকির নায়েককে মালয়েশিয়া আমন্ত্রণ জানানো হয় এবং তাকে মালয়েশিয়ার নাগরিকত্ব দেয়া হয় বর্তমানে চার বছর যাবৎ মালয়েশিয়ায় রয়েছেন ডাক্তার জাকির নায়েক। তবে জাকির নায়েকের মনে অনেক কষ্ট বাংলাদেশে সন্ত্রাসী হামলা হয় তা বাংলাদেশ সরকারও জাকির নায়েকের বিপক্ষে গিয়ে মোদি সরকার কে

সহযোগিতা করেছে যা জাকির নায়েকের মনে আজো একটি দাগ লেগে আছে সন্ত্রাসী হামলার কারণে বাংলাদেশ সরকার পিচ টিভি বন্ধ করে দেয় যার কারনে জাকির নায়েক ভারাক্রান্ত হয়ে যায় সন্ত্রাসীরা পরে প্রমাণ করেছে যে তারা কখনোই জাকির নায়েকের অনুসারী নয় তারা স্বেচ্ছায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করেছে যা কোর্টে প্রমাণিত হয়েছে।

রমজানের দৃতৃীয় দিন জাকির নায়েক সে তার ফেসবুক পেজে লাইভে আসেন বিস্তারিত আলোচনা করেন তার বর্তমান অবস্থা মালয়েশিয়ায় কেমন আছেন এবং বিভিন্ন দর্শকের প্রশ্নের উত্তর দেন রমজানের বিভিন্ন ফজিলত সম্বন্ধে এবং বিভিন্ন আইন কানুন সম্পর্কে ইসলামী শরিয়া ভিত্তিক।

একজন দর্শক তাকে প্রশ্ন করে আপনি কেন মালয়েশিয়ায় লুকিয়ে আছেন জবাবে জাকির নায়েক বলেন আমি মালয়েশিয়া লুকিয়ে নয় আমি মালয়েশিয়া হিজরত করেছি, তিনি বলেন যোগাযোগ বিভিন্ন অলিআউলা ফরেজগার ব্যক্তি এবং আল্লাহর রাসূল নিজেও কাফেরদের যন্ত্রণায় মদিনা হিজরত করেছেন যা পরবর্তীতে অনেক মুসলমানগন কাফের মুশরিকদের অত্যাচারে বিভিন্ন জায়গায় হিজরত করেছেন আমিও তাদের মত একজন সৌভাগ্যবান আমি ভারত সরকারের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে আমি বর্তমানে মালয়েশিয়ায় রয়েছি আমি মনে করি এটা আমার জ