ঢাকা, আজ বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই ২০২০

মুসলিমরা মৃত্যুকে নয়, আল্লাহকে ভয় করে : ইমরান খান

প্রকাশ: ২০২০-০৪-৩০ ১০:২৮:৪৩ || আপডেট: ২০২০-০৪-৩০ ১০:২৮:৪৩

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান মোদিকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, ‘আমাদের সামরিক বাহিনী সুসংগঠিত ও যু’দ্ধ-অভি’জ্ঞ।

আমাদের জনগণ আল্লাহকে ভ’য় করে, মৃ’ত্যুকে নয়। যদি আপনারা ভুল ধারণা করে থাকেন যে, হিন্দুত্ববাদী ভোটারদের ওপর ভরসা করে পাকিস্তানের বিরু’দ্ধে যা খুশি তাই করবেন তাহলে সেটি হবে আপনাদের শেষ ভুল।’

কাশ্মীর সংহতি দিবস উপলক্ষে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রীত আজাদ কাশ্মীরে আয়োজিত এক সমাবেশে দেয়া বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। সূত্র: পার্সটুডে।

এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘যারা এ ধরনের অ’হং’কার করেছে ইতিহাসের পাতায় তাদের প’রাজয় লেখা হয়েছে। এসময় তিনি হিটলার এবং নেপোলিয়ানের বাহিনীর রাশিয়া অভিযানের ব্যর্থতার কথা তুলে ধরেন।’

এ সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও সেনাপ্রধানকে সম্বোধন করে ইমরান খান আরো বলেন, ‘আপনাদের দুজনের জন্য আমার বার্তা হলো গত ৫ আগস্ট আপনারা ভুল করেছেন। আপনারা শুধু এটুকু মনে রাখুন যে, ২০ কোটি পাকিস্তানি নাগরিকের শেষ শিশুটি তার শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত ল’ড়াই করবে। কীভাবে যু’দ্ধ করতে হয় আমরা তা আপনাদেরকে দেখাবো।’

এর আগে মোদি বলেছিলেন, ‘পাকিস্তানকে ধুলায় মিশিয়ে দিতে ভারতের সামরিক বাহিনীর ১০ দিনের বেশি সময় লাগবে না।’এই যেনো এক বড্ড হৃদয়বিদায়ক দৃশ্য

করোনা মোকাবেলায় মাঠ পর্যায়ের প্রধান সম্মুখ যোদ্ধা বাংলাদেশ পুলিশের একজন গর্বিত সদস্য মোঃ জসিম উদ্দিন (৪০) করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

চলমান করোনাযুদ্ধে দেশের সম্মানিত জনগণকে সুরক্ষিত রাখতে গিয়ে মোঃ জসিম উদ্দিনের মৃত্যুতে বাংলাদেশ পুলিশ গভীরভাবে শোকাহত। একই সাথে দেশমাতৃকার সেবায় তাঁর এমন আত্মত্যাগে বাংলাদেশ পুলিশ গর্বিত। তাঁকে হারানোর শোককে শক্তিতে পরিণত করে ইনশাল্লাহ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ পুলিশ।

আরো সংবাদ

টিউশনির জমানো ৭০ হাজার টাকা ত্রাণ তহবিলে দিলেন ঢাবি ছাত্র

টিউশনি করে ৭০ হাজার টাকা জমিয়েছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ছাত্র রাইয়্যান রেজা। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে অসহায় মানুষের জন্য এই টাকা তিনি দিয়েছেন রাজশাহীর জেলা প্রশাসকের ত্রাণ তহবিলে।

বুধবার দুপুরে জেলা প্রশাসক হামিদুল হকের কার্যালয়ে গিয়ে তার হাতে জমানো টাকাগুলো তুলে দেন রাইয়্যান। তার এমন কাজে অভিভূত জেলা প্রশাসক।

রাইয়্যান ঢাবির ভূগোল ও পরিবেশ বিদ্যা বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী। তিনি রাজশাহী বিএডিসি’র যুগ্ম-পরিচালক (বীজ বিপণন) মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে। রাইয়্যানের গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রামে। বাবার চাকরি সূত্রে তিনি এখন রাজশাহীতে পরিবারের সঙ্গে বসবাস করছেন।

রাইয়্যান রেজা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পড়াশোনা শুরুর পর থেকেই টিউশনি করি। সেখান থেকে অল্প-স্বল্প টাকা জমাতাম। এ ছাড়া থিসিস করে কিছু বৃত্তিও পেয়েছিলাম। সেগুলো ভবিষ্যতে জরুরি কাজে লাগানোর উদ্দেশে জমিয়েছিলাম।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসে অসহায়-দুস্থ মানুষ না খেয়ে দিনাতিপাত করছেন। সরকার তাদের সহায়তা পৌঁছে দেয়ার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আমার মনে হয়েছে- বর্তমান পরিস্থিতিতে টাকা জমিয়ে রাখার আর কোনো মানেই হয় না। জমানো টাকাগুলো সদ্ব্যবহারের এখনি সময়। সে জন্য টাকাগুলো জেলা প্রশাসকের তহবিলে প্রদান করেছি।

রাইয়্যানের বাবা মোফাজ্জল হোসেন বলেন, কিছুদিন আগে ছেলের জমানো টাকা জেলা প্রশাসকের তহবিলে দেয়ার ইচ্ছের কথা জানায়। আমরা তাকে উৎসাহ দিয়েছি। তার এমন চিন্তা-ভাবনায় আমরাও খুব ভালো লাগছে।

জেলা প্রশাসক হামিদুল হক বলেন, টিউশনি করে দীর্ঘদিনের জমানো টাকাগুলো নিয়ে একজন শিক্ষার্থী যেভাবে এগিয়ে এসেছেন, তা সত্যিই আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে। রাইয়্যানের এই অনুদান সমাজের বিত্তবানদের কাছে একটি বার্তা। দেরি না করে তাদেরকেও আর্তমানবতার সেবায় এগিয়ে আসতে হবে। এ সময় ঢাবি শিক্ষার্থী রাইয়্যানকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান জেলা প্রশাসক।করোনার মধ্যেই নতুন আতঙ্ক তৈরি করেছে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’। এপ্রিলের শেষ বা মে’র একেবারে শুরুতে বঙ্গোপসাগরে হাজির হতে পারে এই শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়। তবে ঘূর্ণিঝড়টি কতটা শক্তিশালী হবে বা কোথায় আছড়ে পড়বে; তা জানা যায়নি।

বৈশ্বিক আবহাওয়াবিষয়ক সংস্থা আকু আবহাওয়া বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হতে যাওয়া নিম্নচাপটি নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। চলতি বছরের প্রথম একটি ঘূর্ণিঝড় বঙ্গোপসাগরে তৈরি হতে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, ৩০ এপ্রিল থেকে ৫ মের মধ্যে এর প্রভাব থাকবে।

২ মের মধ্যে এটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। আর সেটি হলে এর আগাম নাম ঠিক করা আছে ‘আম্ফান’। তবে মৌসুমি বায়ু আসার আগের এই সময়ে কোনো নিম্নচাপ খুব বেশি শক্তি সঞ্চয় করতে পারে না। তবে এর সঙ্গে প্রচুর মেঘ তৈরি হয়। ফলে এর প্রভাব যতটা না বাতাস বইবে, তার চেয়ে বেশি ভারী বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা বেশি।

তবে আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদেরা মনে করছেন, আপাতত নিম্নচাপটির মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা কম। তবে এটি নিম্নচাপে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

রংপুরে করোনা জয় করে বাড়ি ফিরলেন ৮০ বছরের মোসলেম উদ্দিন

করোনাকে জয় করে বাড়ি ফিরলেন মোসলেম উদ্দিন (৮০)। বুধবার দুপুরে রংপুর ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেসন হাসপাতাল থেকে তাকে ছাড়পত্র দেয়া হয়।

ছাড়পত্র দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রংপুর ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেসন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. এসএম নূরুন্নবী।
১৩ দিন রংপুর ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেসন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন মোসলেম উদ্দিন। তার বাড়ি রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার মধুপুর ইউনিয়নের আউলিয়াগঞ্জ।

তিনি জানান, একমাস ঢাকায় অবস্থান শেষে গত ৩১ মার্চ রংপুরে ফেরেন মোসলেম উদ্দিন। এসময় তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ ছিলেন। রংপুরে পৌঁছে শহরের খামার মোড়ে জামাইয়ের বাড়িতে গিয়ে ওঠেন। সেখানে থাকা অবস্থায় জ্বর, সর্দি, ও কাশিসহ বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয়। পরে ১৪ এপ্রিল রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটিআই কর্নারে চিকিৎসা নিতে যান মোসলেম উদ্দিন।

এসময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তার রোগের লক্ষণ ও ইতিহাস জেনে করোনা সন্দেহে নমুনা পরীক্ষার পরামর্শ দেন। ওইদিন তার নমুনা সংগ্রহ করা হয় এবং ১৬ এপ্রিল করোনা শনাক্ত হলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী তিনি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন।পরে ২০ এপ্রিল সেখান থেকে তাকে ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেসন হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

তিনি আরও জানান, ৯ দিন চিকিৎসাধীন থেকে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি এবং পরপর দুইবার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় তাকে হাসপাতাল হতে ছাড়পত্র দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এদিকে করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তির সময় যেভাবে ফুল ও চিঠি দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়, সেভাবেই ছাড়পত্র দেয়ার সময়ও চিঠি ও ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. এসএম নূরুন্নবীসহ কর্মরত চিকিৎসকবৃন্দ।

রংপুর ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেসন হাসপাতালের প্রথম রোগী হিসেবে ভর্তি এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়ায় মোসলেম উদ্দিনকে শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি চিকিৎসকদের সাহস, আশার সঞ্চার ও অভিজ্ঞতা কয়েকগুণ বৃদ্ধির কথাও উল্লেখ করা হয় ওই চিঠিতে।