ঢাকা, আজ বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

গরু পাট খাওয়ায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা করল ইউপি সদস্য

প্রকাশ: ২০২০-০৪-৩০ ০৯:৩১:২৮ || আপডেট: ২০২০-০৪-৩০ ১০:১২:২৭

বরিশালের কাজীরহাট থানাধীন বিদ্যানন্দপুর ই’উনিয়নের ২ নং ও’য়ার্ডের পশ্চিম রতনপুর গ্রামে ২৪ এপ্রিল শুক্রবার সকালে মনির খানেঁর ছে’লে সৌরভ খানঁ বিলে (মাঠে) গাভী নিয়ে যাওয়ার প’থিমধ্যে ক্ষে’তের পাট খা’ওয়াকে কে’ন্দ্র করে পা’শের বা’ড়ির কালু সিকদার ওরফে কাশেমের সাথে বি’রোধ হয়। এক পর্যায় সৌরভের মামা জলিল সিকদারের বাড়িতে ঢু’কে কালু সিকাদর গংরা লু’টপা’ট চা’লায়।

ঘটনা স্থলে মফছের সিকদার, আফছের সিকদার, সুজন সিকদার, সুরমা বেগম, সজিব সিকদার ও সৌরভ খানঁকে পি’টিয়ে কু’পিয়ে আ’হত করে। সৌরভের অ’বস্থা আ’শংঙ্কাজনক হলেও ঐ দিনেই আ’হতদের মুলাদী উপজেলা স্বা’স্থ্য কে’ন্দ্রে চি’কিৎসা নিয়ে বা’ড়ি চলে আসলে।

গত ২৫ এপ্রিল সনিবার কাজীরহাট থানায় সৌরভের মামা জলিল সিকদার বা’দী হয়ে একটি মা’মলা করেন যাহার নং ৫ তাং ২৫/৪/২০২০ইং। শনিবার রাত আনুমানিক ২.৩০ মিনিটে নানা আফছের সিকদারের বসত ঘরে মা’রা গেছে বলে নি’হতের প’রিবার সূএ জানায়।

২৬ এপ্রিল রবিবার নি’হতের বাড়ি সকাল থেকেই মা’নুষের ঢ’ল নেমে আসে এক নজর দেখার জন্য সৌরভকে। নি’হতের মা সুরমা বেগম কা’ন্নায় ভে’ঙ্গে পড়ে আর বিলাপ করে বলেন আমার ছে’লে নি’র্দোশ ছিল। আ’সামীদের ফাঁ’সি দা’বী করছি এবং আমার ছে’লেকে ই’উপি স’দস্য রুমি, জামাল সিকদার, পারভেজ সিকদারের নে’তৃত্বে হ’ত্যা ক’রা হয়েছে।

মামা আরিফ ও মহসিন জানায়, ১ বছর পূর্বে সৌরভের ছোট ভাই বয়স প্রায় ৯ বছর আম কু’ড়াতে গেলে আফজাল সিকদারের বাবা কালু সিকদার ওরফে কাশেস পু’কুড়ে চু’বিয়ে হ’ত্যা করে ও পা’র পেয়ে যায়।

বা’দী জলিল সিকদার জানায়, ভাগিনা সৌরভ মৃ’ত্যুর পূর্বে মা’মলা করেছি। প্র’ধান আ’সামী আফজাল সিকদারসহ ১১ জনকে আ’সামী করে। ঘটনা স্থলে বরিশাল অ’তিরিক্ত পুলিশ সু’পার মোঃ রাকিবুল ইসলাম ও মেহেন্দিগঞ্জ-কাজীরহাট সা’র্কেল এ’এসপি সুকুমার রায় সহ সঙ্গিয় ফো’র্স প’রিদর্শনে এসেছেন।

নি’হতের লা’শ কাজীরহাট থানা পুলিশ এস’আই মনির হোসেন ঘটনা স্থলে গিয়ে সু’রহাতল রি’পোর্ট করে বরিশাল শেবাচিম মে’ডিকেল হা’সপাতাল ম’র্গে প্রেরন করেছেন বলে জানা গেছে।কাবা শরীফ নিয়ে যে কথাগুলো আজো অনেকের কাছে অজানা, নিজে জানুন আর অন্য সবাইকে জানতে সাহায্য করুন দরিদ্র ঘরের সন্তান, উপসাগরীয় অঞ্চলের এক কালো

মানিক হলেন পবিত্র কাবা শরীফের ইমাম। আর তার পেছনে ছিল তার মায়ের দুআ। সে কথাই জানালেন ইমাম শাইখ আদিল আল কালবানি।

‘মায়ের দুআ আমাকে কাবা শরীফের ইমাম বানিয়েছে লন্ডনের এক কনফারেন্সে পবিত্র কাবা শরীফের এক ইমাম আল কালবানি এই কাহিনী বর্ণনা করেন। এতে তিনি তার

জীবনের একটি বাস্তবতা তুলে ধরেন। তিনি জানান, তার উপর কোনো কারণে রেগে গিয়ে তার মা আল্লাহর কাছে যে দুআ করেছিলেন তাই তার জীবনে সত্যে পরিণত হয়েছে।

‘মায়ের দুআ আমাকে কাবা শরীফের ইমাম বানিয়েছে ছোটবেলায় ইমাম কালবানি খুব দুষ্ট প্রকৃতির ছিলেন বলে জানালেন। দুষ্টুমি করে প্রায়শই তিনি মাকে রাগাতেন। কিন্তু তার মা

ছিলেন খুবই দ্বীনদার একজন মহিলা, তিনি জানতেন আল্লাহর কাছে দুআর কী শক্তি।

তিনি দুআ করাটা তার অভ্যাসে পরিণত করেছিলেন। ছেলের উপর যখনি রেগে যেতেন তখনি তিনি বলতেন, ‘আল্লাহ যেন তোমাকে পথ দেখান! আর তিনি যেন তোমাকে কাবার ইমাম বানান!’

মক্কা-মদিনা
কালো মানুষ শাইখ আদিল আল কালবানি পারস্য উপসাগরীয় এক দরিদ্র পরিবারের সন্তান। নিউইয়র্ক টাইমস-এর সঙ্গে এক সাক্ষাতকারে শাইখ কালবানি বলেছেন, ‘মসজিদুল

হারামের নামাজের ইমামতি করা অসাধারণ সম্মানের, আর এই কাজ শুধুমাত্র আরব ভূখণ্ডের আরবদের জন্যই নির্ধারিত।’

‘মায়ের দুআ আমাকে কাবা শরীফের ইমাম বানিয়েছে নিজের জীবনের কথা বলতে গিয়ে ইমাম এবার ফিরে গেলেন সেই সময়টিতে, যখন তিনি জানতে

পারেন যে, বাদশাহ

আবদুল্লাহ তাকে প্রথম কালো মানুষ হিসেবে মসজিদ আল হারামের ইমাম নিয়োগ দিয়েছেন। তিনি বললেন, মাশাআল্লাহ!

ইমাম বলেন, যখন আপনার সন্তান খারাপ আচরণ করবে তখন তাকে গালমন্দ করবেন না। এতে বিপর্যয় ঘটতে পারে। আমি একজনকে জানি যিনি তার ছেলেকে বলেছিলেন—

‘যাও মর’, অতঃপর তিনি সেটার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন, যখন সেই দিনই তার ছেলে মারা যায়। সুবহানআল্লাহ!

প্রিয় সন্তানের পিতা ও মাতাগণ! আপনাদের ভাষা সংবরণ করুন। আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য ভাল দুআ করার অভ্যাস তৈরি করুন, এমনকি যখন আপনি অনেক রেগে যান তখনও তার জন্য দুআ করুন।

‘মায়ের দুআ আমাকে কাবা শরীফের ইমাম বানিয়েছে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তিনটি দুআ আল্লাহ কখনও প্রত্যাখ্যান করেন না, ছেলেমেয়েদের

জন্য তার পিতামাতার দুআ, রোজাদারের দুআ এবং মুসাফিরের দুআ’। [বায়হাকী’, তিরমিযী, হাদীসটি সহীহ সূত্রে বর্ণিত]

যারা এই ম্যাসেজ অন্যদেরকে জানাবেন তাদের জন্য আমি আল্লাহর কাছে দু‘আ করি, বিচার দিবসে এটা দিয়ে তিনি যেন উপকৃত হন অথবা এটা তার মুক্তির কারণ হয়