ঢাকা, আজ রোববার, ১১ এপ্রিল ২০২১

প্রথমে ম্যাজিস্ট্রেট পরে সাংবাদিক পরিচয়ে অভিনব চাঁদাবাজি

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-০৮ ১৪:১২:৪৭ || আপডেট: ২০১৯-০৭-০৮ ১৪:১২:৪৭

রাজশাহীর বাগমারায় অভিনব কায়দায় সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে ৪ জনকে ধরে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় জনতা। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, উপজেলার মোহনগঞ্জ বাজারের বাঁধের মোড়ে আব্দুর রউফ ওরফে আব্দুলের একটি বেকারীর ফ্যাক্টরি আছে। দীর্ঘদিন ধরে সেখানে বিস্কুট, পাউরুটি, কেক সহ বিভিন্ন খাবার তৈরি করে তিনি তা বাজারজাত করে আসছেন।

এই বেকারির পাশ দিয়ে রয়েছে মোহনগঞ্জ-রাজশাহী মহাসড়ক। সেই রাস্তা দিয়ে একটি মাইক্রোবাসে সোমবার (৮ জুলাই) দুপুর ১২ টার দিকে তিন জন লোক বাগমারার দিকে আসছিল। তারা সেই বেকারীর কাছে মাইক্রোবাস থামিয়ে ভিতরে প্রবেশ করে। বেকারীর ভিতরে ঘোরাঘুরি করে এক পর্যায়ে তারা ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দিয়ে মালিকের কাছে জানতে চায়, বিএসটিআই এর অনুমোদন আছে কিনা। বিএসটিআই’র অনুমোদন দেখাতে না পেরে আব্দুর রউফ ওরফে আব্দুল তাদেরকে ২ হাজার টাকা ধরিয়ে দেয়। টাকা নিয়ে বেরিয়ে পড়ে তারা।

বিষয়টি আব্দুর রউফ মোহনগঞ্জ বাজারের লোকজনকে জানালে তারা মাইক্রোবাসটি ধরে ফেলে। তারা নিজেদের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে মাইক্রোবাসে প্রেস লেখা স্টিকার দেখিয়ে সেখান থেকে চলে যাওয়ার চেষ্টা করে। তাদেরকে নিয়ে স্থানীয় লোকজনের মনে সন্দেহ দেখা দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মাইক্রোবাসের ড্রাইভারসহ তাদের তিনজনকে আটক করে থানায় নেয়।

আটককৃতরা হলেন লিয়াকত আলী (৩৮), রাশেদ আলী (৩৫), আব্দুল জব্বার (৪৮) ও ড্রাইভার তোতা। এসময় লিয়াকত আলী ঢাকা থেকে প্রকাশিত মাতৃজগত, রাশেদ আলী ঢাকা থেকে প্রকাশিত বজ্রসময় এবং আব্দুল জব্বার রাজশাহী থেকে প্রকাশিত রাজশাহীর আলো পত্রিকার সাংবাদিক বলে নিজেদের পরিচয় দেয়।

এ ব্যাপারে জানতে বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আতাউর রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সাংবাদিক পরিচয়ে বেকারীর মালিকের নিকট থেকে চাঁদাবাজি করে পালিয়ে যাচ্ছিল তারা। এমন সময় স্থানীয়রা তাদের ধরে থানায় খবর দেয়। পরে প্রেস লেখা মাইক্রোবাসের চালকসহ তাদেরকে আটক করে থানায় নেয়া হয়েছে।