ঢাকা, আজ সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১

ঘাস কাটতে গিয়ে ধর্ষণ হলো প্রাথমিকের ছাত্রী

প্রকাশ: ২০১৯-০৬-১৫ ১৩:৪৯:৩২ || আপডেট: ২০১৯-০৬-১৫ ১৩:৪৯:৩২

গ্রামের একটি আখক্ষেতে ঘাস ঘাটতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে পঞ্চম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলার সাধুরপাড়া ইউনিয়নের খাপড়া গ্রামে। এঘটনায় অভিযুক্ত ধর্ষক সাইফুল ইসলাম (২১) নামের এক যুবককে শুক্রবার গভীর রাতে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার বিকেলে গ্রামের একটি আখক্ষেতে ঘাস কাটতে গিয়ে শিশুটি ধর্ষণের শিকার হয়। গ্রেপ্তার সাইফুল একই গ্রামের আজিত মিয়ার ছেলে। আজ শনিবার দুপুরে সাইফুলকে জামালপুর আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

পুলিশ ও শিশুটির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, শিশুটি উপজেলার সাধুরপাড়া ইউনিয়নের খাপড়া গ্রামের এক দরিদ্র কৃষক পরিবারের মেয়ে। সে স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী। গতকাল শুক্রবার বিকেলের দিকে শিশুটি একা বাড়ির পাশে একটি আখক্ষেতে গরুর ঘাস কাটতে যায়।

এ সময় প্রতিবেশী যুবক সাইফুল ইসলাম শিশুটিকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে তাকে আখক্ষেতে ফেলে রেখে পালিয়ে যান। শিশুটি বাড়িতে গিয়ে ঘটনাটি তার পরিবারের স্বজনদের জানায়।

এ ধর্ষণের ঘটনায় শিশুটির সহোদর বড় ভাই গতকাল শুক্রবার রাত ১২টার দিকে সাইফুল ইসলামকে আসামি করে বকশীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। রাত ১টার দিকে বকশীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ওই গ্রামে অভিযান চালিয়ে সাইফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে। আজ শনিবার দুপুরে তাকে জামালপুর আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মাহবুব আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, শিশুটিকে ধর্ষণের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করে গ্রেপ্তার সাইফুল ইসলামকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য আগামীকাল রবিবার শিশুটিকে জামালপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে।