ঢাকা, আজ বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

বাবরি মসজিদ ইস্যুতে সুপ্রিম কোর্টের ওপর মুসলমানরা ভরসা করে না : মাওলানা আরশাদ মাদানী

প্রকাশ: ২০১৯-০৯-২২ ১৯:১৬:০৭ || আপডেট: ২০১৯-০৯-২২ ১৯:১৬:০৭

ভারতের মুসলিমরা দেশটির সর্বোচ্চ আদালতের ওপর ভরসা করতে পারছে না বলে মন্তব্য করেছেন জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সভাপতি মাওলানা আরশাদ মাদানী। গত শুক্রবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, বাবরি মসজিদ সংক্রান্ত মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। কিন্তু মুসলিমরা সুপ্রিম কোর্টের উপর ভরসা করতে পারছে না।

আমরা চাই যেখানে বাবরি মসজিদ ছিল, সেখানে যেন বাবরি মসজিদই নির্মাণ হয়। মাওলানা আরশাদ মাদানী বলেন, ইসলামি শরিয়তে দৃষ্টিতে মসজিদের জমি কাউকে দেয়া যায় না, উপহার দেয়ারও নিয়ম নেই। একবার কোনো জমিতে মসজিদ নির্মিত হলে তা আল্লাহর হয়ে যায়।

১৯৯০ সালের ডিসেম্বর ও ১৯৯৩-এর জানুয়ারিতেও মুসলিম পার্সোনাল ল’বোর্ডের অবস্থান একইরকম ছিল। তারা আগেকার ওই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসছেন না বলে জানিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, কোনো মসজিদকে গায়রুল্লাহ’র এবাদতের জন্য দেয়া হারাম। ইসলামি শরিয়তে এ ধরনের কোনো সুযোগ নেই।

‘ইসলাম আমাকে অপরাধ-জীবন থেকে রক্ষা করেছে’

নীল চোখের শ্মশ্রুমণ্ডিত প্রৌঢ়-ব্যক্তি। নাম রবি মায়েস্ত্রেসি। আট বছর আগে ইসলাম গ্রহণ করেছেন। এর আগে তার জীবন কেটেছে অপরাধ-জগতের অন্ধকারে। নতুন জীবনে তার অভিষেক কেমন ছিল, পরবর্তীকালে কোনো বিপত্তির মুখোমুখি হয়েছেন কিনা—এসব নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বহু সাংস্কৃতিক ও বহুভাষিক সংবাদমাধ্যম এসবিএসডটকম.এইউর সঙ্গে দীর্ঘ আলাপ করেছেন। বাংলানিউজের পাঠকদের তার সেই আলোচনার সংক্ষিপ্ত অনুবাদ।

জন্ম ও বেড়ে ওঠা

আমার জন্ম ১৯৮১ সালে। অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনে। আমি যখন সাত বছর বয়সে, তখন আমরা আমেরিকায় চলে আসি। আমার বাবা-মা আলাদা হয়ে গিয়েছিলেন।

বাবা তখন নুমিয়া ও নিউ ক্যালেডোনিয়ায় হোটেল-ব্যবসায় জড়িত ছিলেন। আর আমেরিকায় মায়ের কিছু বন্ধু-বান্ধব ছিল। আমরা ছুটিতে গিয়েছিলাম। মায়ের তখন একটি কাজ জুটেছিল। কিছুদিন পর মা পুনরায় বিয়ে করেন।

আমরা নিউইয়র্ক ও নিউ জার্সিতে থাকতাম। আশ্চর্যজনক হলেও সত্য যে, তখন টিভিতে দেখা অভিনয়ের মতো কিছু ঘটছিল। বাচ্চারা সবাই কেমন ক্ষিপ্ত-মাতাল ও উন্মত্ত হয়ে যাচ্ছিলো। এটি হয়তো অনেক আনন্দের ছিল। তবে ‘ভুল ধরনে’র আনন্দ ছিল।

ধর্ম আমার বেড়ে ওঠার অংশ ছিল। এখনো মনে পড়ে, আমি যখন ছোট ছিলাম তখন মা আমাকে প্রার্থনা করতে উত্সাহ দিতেন। তিনি আমাকে গির্জায় নিয়ে যেতেন। কখনো কখনো আমরা ক্যাথলিক কোনো গির্জার কাছে যেতাম। আবার কখনো পেন্টিকোস্টালে যেতাম।

আলী কাদরি, ইমাম উজাইর ও রবি মায়েস্ত্রেসি। ছবি: সংগৃহীততবে আমার যাওয়ার বয়স না হওয়া মাত্রই আমি যাইনি। আমি যুবক থাকাকালীন প্রার্থনা করা বা এখানের বাইরে কিছু নিয়ে ভেবেছি—এমন কথা মনে করতে পারছি না।

আমার যখন ১৬ বছর বয়স, তখন আমরা অস্ট্রেলিয়ায় ফিরে আসি। মা তখন বলেননি আমরা আমেরিকা থেকে কেন ফিরে যাচ্ছি। তবে আমি মনে করি, ফিরে যাওয়ার কারণ ছিলাম আমি নিজেই। কেননা, ভবঘুরে হয়ে আমি যেসব ছেলেপুলের সঙ্গে চলছিলাম, সেটা আমার ভুল পথ ছিল।

আম্মু আমাকে বললেন, আমরা ছুটি কাটাতে অস্ট্রেলিয়ায় আসছি। স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল যে, এটা শুধু যাওয়ার টিকিট ছিল। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, আমাকে এখান থেকে সরিয়ে নেওয়াই তার একমাত্র উপায়।

মন্দ-অপরাধের গহ্বরে আমার হারিয়ে যাওয়া

কয়েক বছর ধরে আমি ঘোরাফেরা করেছিলাম। আমার বন্ধুদের সঙ্গে আমেরিকায় ফিরে যেতে চেয়েছিলাম। না পেরে আমি তখন সত্যিই খুব হতাশাগ্রস্ত হয়ে গিয়েছিলাম। কারণ আমি এখানকার স্কুলে যাওয়ার চেষ্টা করেছি, কিন্তু সিস্টেম ছিল সম্পূর্ণ আলাদা। তালিকাভুক্তির ছয় মাসের মধ্যেই আমি বাদ পড়ি।

আমি মার্কেটিংয়ের একটি কাজ পেয়েছিলাম। ঘরে ঘরে গিয়ে কাজটি করতে হতো। কোনো অভিজ্ঞতা ছাড়াই স্কুল ছেড়ে এ ধরনের কাজে লেগে গিয়েছিলাম। পরে আমি একটি ব্যাংক ও সেন্টারলিঙ্কে কাজ করেছি। এই দুইটি ভালো কাজ ছিল। তবে বিনোদনমূলক মদ্যপান আমার জীবন-পটভূমিতে সবসময় ছিল। সাপ্তাহিক ছুটিতে বাইরে গিয়ে আমি পার্টি করতাম।

একটি বিষয় আমি পর্যবেক্ষণ করেছি, বিনোদনের জন্য আপনি যখন ড্রাগ নেবেন, তখন এগুলো আপনার জীবনে কিছু একটা ঘটিয়ে বসেব। আবার এগুলো বিনোদনমূলকও আর থাকে না।

আমার সমস্যা ছিল যেখানে

২২ বছর বয়সে আমি বিয়ে করেছিলাম। আমি আমার বিয়ের অনুষ্ঠান চলাকালীন সারাটা সময় ড্রাগ নিয়েছি। এমনকি যখন অনুষ্ঠান শেষ হয়েছে, তখনও আমি মদপান করেছি। তখন আমি পুরো নাকাল হয়ে গিয়েছিলাম। আমার মনে হচ্ছিলো, আমি প্রচলিত জীবনে ব্যর্থ হয়েছি। জীবনটা ভালোভাবে উপভোগ করতে ও কাটাতে পারি না। তখন মাদক ও অপরাধ আমার নিত্যসঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

আমি নিজেকে হারিয়ে ফেললাম। খারাপ, অসাধু কাজ ও অপরাধে হারাতে থাকি নিজের অস্তিত্ব। অপরাধ-জগতের উদাহরণ হয়ে উঠি আমি। ড্রাগ-সম্পৃক্ত যেকোনো কিছুতে নিজেকে জড়ানো ছিল আমার জন্য স্বাভাবিক। সুন্দর ও আনন্দের জীবন কাটানো আমার জন্য অসাধ্য হয়ে দাঁড়ায়। জীবন নিয়ে আমি তৃপ্ত ও খুশি হতে পারছিলাম না।

২০০৭ সালে আমি গ্রেফতার হই। মাদকসংক্রান্ত অপরাধের জন্য আমাকে ১০ মাসের কারাদন্ডে দেওয়া হয়। সত্যি কথা বলতে, সেই সময়টা আমার জন্য খুব ভালো ছিল।

ব্রিসবেনের হল্যান্ড পার্কের এ মসজিদে রবি অনেক সময় কাটিয়েছেন। ছবি: সংগৃহীতগ্রেফতারের সময় আমার শরীর- স্বাস্থ্য ভালো ছিল না। কারণ আমি টানা দুই-তিন রাত জেগে থাকতাম। কখনো কখনো এরচেয়ে বেশিও হতো। পার্টি-ফূর্তি ইত্যাদিতে লিপ্ত থাকতাম। ভালো করে খাওয়া-দাওয়া করতাম না। কিন্তু যখন গ্রেফতার হলাম, তখন ঠিকমতো খাবার ও ঘুম পেয়ে আবার সুস্থ হয়ে উঠতে এটি আমার জন্য আশীর্বাদ ছিল।

জেল-জীবন আমার চোখ খুলে দেয়। কিন্তু যখন কারাগার থেকে বের হলাম, তখন আমি সরাসরি আগের অন্ধকার জগতে ফিরে যাই। সামান্য বিরতিও নেইনি। এক মুহূর্তও আমার মনে হয়নি যে, আমি এদের সঙ্গে চলিনি। কারণ এই লোকদের সঙ্গেই ঠিক আগে আমি একই কাজ করে এসেছি।

পুরোনো অভ্যাস পরিবর্তন

কখনো আমার মতো মানুষদের জীবনে ভিন্নতা দেখা দেয়। আমি এই অঙ্গনে খারাপ কাজে আসক্ত থাকার পর নিজের আধ্যাত্মিক যত্ন-চর্চায় আগ্রহী হয়ে উঠি। নিজের ব্যক্তিত্ব ও আমার চরিত্রের প্রতি নজর দিতে শুরু করি। বুঝতে পেরেছিলাম যে, আমি নিজের কাছে সবচেয়ে খারাপ সংস্করণে পরিণত হয়েছি।

আমি পুরোনো অভ্যাসগুলো পরিবর্তন করতে শুরু করি। নিজের কাছে এবং অন্যান্য মানুষের সঙ্গে সৎ হয়েই এমনটা আরম্ভ করি। আমি গোল্ড কোস্টের ব্যাপটিস্ট গির্জায় যাওয়া শুরু করি। এই অঞ্চলের অভাবীদের পানাহার করানো সঙ্গে নিজেজে জড়িত করি। বৃহস্পতিবার দুপুরে খাবার রান্না করে তাদের জন্য নিয়ে যেতাম। এই জাতীয় কাজগুলো করে আমি বুঝতে পারছিলাম যে, নিজেকে পরিবর্তন করা এত কঠিন নয়। আমি চাইলে পরিবর্তন করতে পারবো।

যেসব লোক ধর্মানুরাগী এবং সৎনিষ্ঠ কাজে জড়িত—তাদের সঙ্গে নিজেকে সম্পৃক্ত করা আমার জন্য ভালো দিক ছিল। কেননা আমি ধর্মহীন যাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলাম, তারা একে অপরের প্রতি সত্যই খারাপ-মন্দ আচরণ করতো। মাদকাসক্তি, মাদক বিক্রি, মাদক ও লেনদেন সংক্রান্ত কাজের জন্য একে অপরের আর্থিক এবং বিভিন্ন ক্ষতি করার অভ্যস্ত ছিল। মূলত এটি ছিল ‘নিকষ আঁধারির মাঝে আলো হারিয়ে যাওয়া’।

আমি ইশ্বরের প্রতি বিশ্বাসী ছিলাম। কিন্তু ধর্মতাত্ত্বিকভাবে আমি খ্রিস্ট

ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে মসজিদের সোলার প্যানেল

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে মসজিদের জন্য সরকারি বরাদ্দকৃত সোলার প্যানেল ল্যাম্পপোস্ট তুলে নিয়ে নিজের বাড়ির পাশে স্থাপন করেছেন ছাত্রলীগ নেতা আবুল খায়ের।

তিনি উপজেলার মৈশাতুয়া ইউনিয়নের হাজীপুরা গ্রামের ওমর আলীর ছেলে। আবুল খায়ের মৈশাতুয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক।

স্থানীয়রা জানান, হাজীপুরা মজুমদার বাড়ি মুরশিদিয়া জামে মসজিদের ল্যাম্পপোস্টের সোলার প্যানেলটি স্থাপনের তিনদিন পর তিনি খুলে নিয়ে যান। ১৬ সেপ্টেম্বর এই নিয়ে তার বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ওই গ্রামের বাসিন্দা মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. এনায়েত উল্লাহ মজুমদার।

মো. এনায়েত উল্লাহ মজুমদার বলেন, আবুল খায়ের লোকজন নিয়ে মসজিদের সোলার ল্যাম্পপোস্ট তুলে নিয়ে যায়। মসজিদের কমিটির লোকজন ও মুসল্লিদের সিদ্ধান্ত নিয়ে অভিযোগ করি। আমরা মসজিদের সম্পত্তি ফেরত চাই। এ ঘটনা নিয়ে এলাকায় তোলপার সৃষ্টি হচ্ছে।

ল্যাম্পপোস্ট নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে আবুল খায়ের বলেন, অভিযোগটি মিথ্যা। মসজিদের সামনে কাদা থাকার কারণে জনগণের স্বার্থে সোলার ল্যাম্পপোস্টটি তিন রাস্তার মুখে লাগানো হয়েছে। আমার নিজ বাড়িতে লাগানো হয়নি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল রানা বলেন, তিনি অভিযোগ পেয়েছেন। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। সোলার পানেলটি মসজিদের জায়গায় পুনরায় স্থাপন করা হবে।

হজ্ব আদায় করতে গিয়ে দৃষ্টিশক্তি ফিরে পেলেন সুদানী মহিলা

সুদানের একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধি বয়স্ক মহিলা এবারের হজ্বের সফরে আল্লাহর কুদরতে হঠাৎ দৃষ্টি শক্তি ফিরে পান। কাবা শরীফ দেখতে পেয়ে তার অশ্রু গদগদ কণ্ঠে আল্লাহর শোকরিয়া আদায় করার ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িতে পড়ে। মহিলাটি দৃষ্টিশক্তি ফিরে পেয়ে মহিলাটি আনন্দে বিহ্বল হয়ে পড়েছে।

এবং কাবা শরীফ দেখতে পেয়ে আল্লাহর শোকর আদায় করছে। মহিলাটি বলছেন,তিনি ইবতেদায়ী পড়ার সময় থেকে চোখে দেখতেন না। তার অনেক আশা ছিল, তিনি কুরআন শরীফ দেখে দেখে পড়বেন। মহিলাটির পাশে তার স্বামীকেও উপস্থিত দেখা গেছে।

উগ্রবাদী হিন্দুদের থেকে মুসলিম তরুণকে বাঁচিয়ে বিপদে শিখ পুলিশ !

গগনদীপ সিং উগ্রবাদী হিন্দুদের থেকে মুসলিম তরুণকে বাঁচিয়ে বিপদে শিখ পুলিশ। ছবি – সংগৃহীত ভারতে জনতার হাতে পিটুনি থেকে এক মুসলিম যুবককে রক্ষা করেছিলেন এক ভারতীয় পুলিশ কর্মকর্তা।

কিন্তু এজন্যে এখন তাকে হত্যার হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য উত্তরাখন্ডের পুলিশ কর্মকর্তা গগনদীপ সিং যখন এক মুসলিমকে উন্মত্ত হিন্দু জনতার কবল থেকে উদ্ধার করেন, তখন সেই ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। এটি তাকে রাতারাতি খ্যাতিও এনে দিয়েছিল।

সেই মুসলিম যুবক তার হিন্দু বান্ধবীকে নিয়ে যখন একটি মন্দিরে যান, তখন তার ওপর হামলা চালানো হয়েছিল। মন্দিরের হিন্দু জনতা তাকে ঘিরে ফেলে এবং মারধোর করার চেষ্টা চালায় এই বলে যে, সে ‘লাভ জিহাদ’ এর চেষ্টা করছে। ভারতে যখন কোন মুসলিম কোন হিন্দু নারীর সঙ্গে প্রেম করে বা বিয়ে করার চেষ্টা করে, তখন কট্টরপন্থী হিন্দু গোষ্ঠীগুলো তাকে ‘লাভ জিহাদ’ বলে বর্ণনা করছে ইদানিং।

হিন্দু গোষ্ঠীগুলো দাবি করছে মুসলিম পুরুষরা ষড়যন্ত্র করে হিন্দু নারীদের বিয়ে করে বা প্রেম করে ধর্মান্তরিত করার চেষ্টা করছে। সেদিনের ঐ ঘটনায় মুসলিম পুরুষটিকে রক্ষায় এগিয়ে এসেছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা গগনদীপ সিং। সোশ্যাল মিডিয়ায় তখন তার সাহসী ভূমিকার জন্য ব্যাপক প্রশংসা করেছিলেন অনেকে। অনেক পত্রিকায় ছাপা হয়েছিল তার সাহসী ভূমিকার কথা এবং সেই ঘটনার ছবি।

গগনদীপ সিং তখন বলেছিলেন, তিনি কেবল তার দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করছিলেন। তিনি আরও বলেছিলেন, যদি সেসময় তিনি ইউনিফর্ম পরা অবস্থাতেও না থাকতেন, তারপরও তিনি সেই কাজটাই করতেন। কিন্তু গগনদীপ সিং এখন উল্টোদিক থেকে সমালোচনার সম্মুখীন হচ্ছেন। তাকে হত্যার হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ কারণে আপাতত গগনদীপ সিংকে ছুটিতে পাঠানো হয়েছে।

অনেক রাজনীতিক এমনকী সেদিন উন্মত্ত জনতা যে আচরণ করেছে, তারও সাফাই গাইতে শুরু করেছে। বিজেপির একজন এমএলএ রাকেশ নৈনওয়াল এমনকী এমন মন্তব্যও করেছেন যে ‘এই মুসলিম পুরুষরা তাদের হিন্দু বান্ধবীদেরকে আমাদের মন্দিরে নিয়ে আসে, সেটা ঠিক নয়। তারা তো জানে যে এটা মন্দির এবং পবিত্র জায়গা।’

আরেক বিজেপি এমএলএ রাজকুমার ঠাকরাল বলেছেন, ‘এই মুসলিম পুরুষটি আসলে হিন্দু সমাজের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার চেষ্টা করছিল। আমরা তো মসজিদে যাই না, কারণ সেখানে আমাদের যাওয়ার অধিকার নেই। এরা কেন আমাদের হিন্দুদের সংস্কৃতি ধ্বংস করার জন্য আমাদের মন্দিরে যায়?’ তবে যে রামনগর জেলায় এই ঘটনা ঘটেছিল সেখানকার মানুষ এ ঘটনায় বিরক্ত।

যখন একটা ছেলে আর একটা মেয়ে একসঙ্গে কোথাও যায়, সেটা তাদের ব্যাপার। কীভাবে এসব লোকজন এটাকে ‘লাভ জিহাদ’ বলে তাদের ওপর হামলা চালায়! প্রশ্ন তুলেছেন রামনগরের একজন বাসিন্দা অজিত সাহনি। আরো দেখুন: ভারতে মুসলমানদের অনেকেই অচ্ছুত ‘অস্পৃশ্যতা দাসত্বের চেয়ে খারাপ’ বলেছেন ভারতীয় দলিত সম্প্রদায়ের অবিসংবাদিত নেতা ড. ভিমরাও আম্বেদকর।

হিন্দু বর্ণভেদ প্রথার কারণে ভারতে দলিতদেরকে সমাজের একেবারে ‘নীচু জাত’ হিসেবে বিবেচনা করে অত্যন্ত ঘৃণা ও উপেক্ষার চোখে দেখা হয়। কিন্তু কেবল হিন্দু সম্প্রদায়েই নয়, ভারতীয় মুসলমানদের মধ্যেও যে ‘অস্পৃশ্য’ বা ‘দলিত’ মুসলিম আছে— সেই তথ্যই উঠে এসেছে দেশটিতে পরিচালিত সাম্প্রতিক এক গবেষণায়। ভারতে বর্তমানে প্রায় ১৪ কোটি মুসলিম নাগরিক আছে। এদের একটা বিরাট অংশই হিন্দু থেকে ধর্মান্তরিত।

মনে করা হয়, হিন্দু জাত-পাত প্রথার নিগ্রহ থেকে রক্ষা পেতেই নিম্নবর্ণের হিন্দুদের এই ধর্ম বদল। সাধারণত, ইসলাম সকল মানুষের সমতার কথা বলে। আর মুসলিমদের ধর্মগ্রন্থেও বর্ণভেদ প্রথার কোনো উল্লেখ নেই। তাই, সামাজিক-চর্চায় অস্পৃশ্যতার বিষয়টি বিরাজমান থাকলেও এর বিরুদ্ধে মুসলিম সমাজ তেমন উচ্চ-বাচ্য নেই। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে কথা বলার সময় এসেছে বলেই মনে করছেন গবেষকেরা।

গবেষক প্রশান্ত কে ত্রিবেদী, শ্রীনিবাস গোলি, ফাহিমুদ্দিন ও সুরিন্দর কুমার মিলে ভারতের ১৪টি জেলার মোট সাত হাজারের বেশি বাড়িতে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করেছেন। ২০১৪ এর অক্টোবর থেকে ২০১৫ এর এপ্রিল পর্যন্ত ভারতের উত্তর প্রদেশে চলে এই গবেষণার তথ্য সংগ্রহ।গবেষণায় যা উঠে এসেছে: এলাকার ধনী প্রতিবেশীদের বাড়িতে কোনো বিয়ে-সাদীর অনুষ্ঠানে দলিত মুসলিমদের নিমন্ত্রণ করা হয় না। কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে দলিত মুসলিমদের নিমন্ত্রণ করা হলেও তাদেরকে বসানো হয় আলাদা এবং তাদেরকে খাবার পরিবেশন করা হয় উচ্চবর্ণের মুসলিমদের খাওয়া শেষে।

এমনকি কোনো-কোনো জায়গায় দলিত মুসলিমদেরকে ভিন্ন ধরণের প্লেটে খাবার পরিবেশন করা হয় বলেও উল্লেখ করেছেন গবেষণায় অংশ নেয়া অনেক দলিত। অনেকে মনে করেন, দলিত মুসলিম এবং খ্রিষ্টানদের জন্য কিছু পদক্ষেপ নেয়া জরুরী। গবেষণায় অংশ নেয়াদের মধ্যে অন্তত ৮ ভাগ দলিত মুসলিম জানিয়েছেন যে, তাদের শিশু সন্তানদেরকেও উচ্চবর্ণের শিশুদের চেয়ে আলাদা সারিতে বসানো হয়। এমনকি স্কুলেও দুপুরের খাবার গ্রহণের সময় তাদের সন্তানেরা আলাদা সারিতেই বসে। উচ্চবর্ণের মুসলিমদের জন্য যে গোরস্থান রয়েছে সেখানে দলিতদের সাধারণত কবর দিতে দেয়া হয় না বলে উঠে এসেছে এই গবেষণায়। তাদের জন্য রয়েছে আলাদা কবরস্থান।

আর যদি কোনো দলিত কাউকে উচ্চবর্ণের কবরস্থানে গোর দেয়া হয় তবে সেই লাশের জায়গা হয় একেবারে কোনো একটা কোণায়। বেশিরভাগ মুসলিম একই মসজিদে নামাজ আদায় করলেও দলিত মুসলিমদের অনেকেই বলছেন যে তারা প্রায় সময়ই বোধ করেন তাদের প্রতি অন্যদের এক ধরণের উপেক্ষা বা বৈষম্য। সাধারণত নিচু জাতের সব কাজ করাই দলিত মুসলিমদের কাজ বলেও মনে করা হয়। গবেষণায় অংশ নেয়া অন্তত ১৩ ভাগ দলিত মুসলিম জানিয়েছে যে,

উচ্চ বর্ণের কোনো মুসলমানের বাড়িতে যদি তাদেরকে খাবার বা পানি দেয়া হয় তাহলে তা পরিবেশন করা হয় ভিন্ন পাত্রে। এছাড়া মুসলিম দলিতদেরকে ভিন্ন পাত্রে খাবার ও পানি পরিবেশন করার প্রবণতা হিন্দুদের মধ্যে আরো প্রকট।

চাঁদা চেয়ে মসজিদের কাজ বন্ধ করায় ছাত্রলীগ নেতাকে শোকজ

চাঁদা চেয়ে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় মডেল মসজিদ নির্মাণকাজ বন্ধ করার অভিযোগে ছাত্রলীগের উপজেলা শাখার সম্পাদক মুশফিকুর রহমান সাকিবকে শোকজ করেছে পঞ্চগড় জেলা ছাত্রলীগ।শুক্রবার রাতে পঞ্চগড় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আক্তারুজ্জামান আকতার ও সাধারণ সম্পাদক মারুফ রায়হান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এই শোকজের বিষয়টি জানানো হয়।ওই শোকজ নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে, ছাত্রলীগের ওই নেতা রংপুরের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান টেকনো ট্রেডের কাছে ২০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা না পেয়ে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় মডেল মসজিদ নির্মাণকাজে বাধা দেন, যা কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়। আর এতে দলের ভাবমূর্তি বিনষ্ট হয়।

যদিও চাঁদা চাওয়ার এ বিষয়টি সম্পূর্ণরূপে ভিত্তিহীন ও বানোয়াট বলে দাবি করেছেন ছাত্রলীগ নেতা কাজী মুশফিকুর রহমান সাকিব।তা সত্ত্বেও এ ঘটনায় দলের ভাবমূর্তি রক্ষার্থে ও প্রকৃত ঘটনা জানতে জেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সশরীরে উপস্থিত হয়ে জবাব দেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়।

ভারী অস্ত্রসহ ভাইরাল ছাত্রলীগ কর্মী !

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সাইফুল ইসলামকে ভারী অস্ত্রসহ ফেসবুকে একটি ছবিতে দেখা গেছে। নিজেই সামাজিক মাধ্যমটিতে ছবিটি আপলোড করেন তিনি। ইতোমধ্যে সেটি ভাইরাল হয়েছে।

সাইফুল ইউনিয়নের দক্ষিণ ছড়ারকুলের আরিফুল ইসলাম বাবুর ছেলে। গত বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে একটি ভারী অস্ত্র নিয়ে সামনের দিকে তাক করে থাকা অবস্থার একটি ছবি নিজেই ফেসবুকে পোস্ট করেন তিনি। ক্যাপশনে লেখেন ‘সাবধান ডাইরেক্ট অ্যাকশন হবে’।

এ নিয়ে বিতর্ক শুরু হলে ক্যাপশন বদলে দেন তিনি। জানা গেছে, ছবিতে যে অস্ত্রটি তিনি ধরে ছিলেন তা খেলনার। নিছক মজার ছলেই তিনি সেটি হাতে নিয়ে ছবি তুলে ফেসবুকে আপলোড করেন। চকরিয়া পুলিশ খেলনা অস্ত্রটি হেফাজতে নিয়েছে।

সাইফুল যেদিন ছবিটি তোলেন সেদিন ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যায় ফলাফল প্রকাশের পর ট্রাক নিয়ে বিজয় মিছিল করে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী গিয়াস উদ্দিনের সমর্থকরা। বিজয় মিছিলেই অস্ত্র হাতে ছবিটি তোলেন সাইফুল।

এ ব্যাপারে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটির এই সদস্যের সঙ্গে কথা বলতে যোগযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। বিষয়টি নিয়ে কথা হলে চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান, ফেসবুকে ছবিটি দেখার পর মনে হয়েছিল সাইফুলের হাতে কোনো ভারী অস্ত্র ছিল।

তার সঙ্গে যোগযোগ করা হলে অস্ত্রটিকে খেলনা দাবি করেন তিনি। পরে অস্ত্রটি তিনি থানায় জমা দেন। সেটি এখন থানাতেই হেফাজতে আছে। তিনি আরও জানান, মজা করতেই তিনি ছবিটি তুলে ফেসবুকে আপলোড করেন। তাকে সাবধান করা হয়েছে।

ইমরান খানের সম্মানে ক্বাবা শরীফের দরজা খুলে দেওয়া হয়!

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সৌদি সফরে যেয়ে ওমরা পালনের ইচ্ছাপোষন করলে তাঁর সম্মানে মুসলমানদের তীর্থস্থান পবিত্র ক্বাবার দরজাকে খুলে দেওয়া হয়। তিনি ক্বাবাগৃহের অভ্যন্তরে নফল নামাজ আদায় করেন। গতকাল (২০ সেপ্টেম্বর) সৌদি সফরকালে ইমরান খানের সম্মানে তাঁকে বিশের এ সম্মান প্রদর্শন করেন সৌদি হুকুমত। ওমরা পালন শেষে তিনি মসজিদে নববীতেও গমন করেন। বিশেষভাবে তিনি কাশ্মীরের মুসলমানদের জন্য দোয়া করেন। সৌদির এ সফরে ইমরান খান সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আযীয ও ক্রাউন্ট প্রিন্স মুহাম্মদ বিন সালমানের সাথে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন।

আবার, কয়েক মিনিটের দূরত্ব অতিক্রম করে সেখানে চাইলেই হানা দিতে পারবে ভারতের বিমানবাহিনীর যুদ্ধবিমানও। এছাড়া পাকিস্তানের জ্যাকোবাবাদের বিমানঘাঁটিতেও সংস্কারমূলক কাজ চলছে এবং সেখানে সম্প্রতি ছয়টি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান রাখা হয়েছে।আরো সংবাদেনিরাপদ আশ্রয় খুঁজছেন মিসরের প্রেসিডেন্ট সিসি!২০১৩ সালে ক্ষমতা দখলের পর থেকেই মিসরে সব ধরনের গণবিক্ষোভ নিষিদ্ধ করেন সামরিক শাসক আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি।দীর্ঘদিন পর রাতের নীরবতা ভেঙে শুক্রবারা হঠাৎ বিক্ষোভে ফেটে পড়েন মিসরীয়রা। তারা স্লোগান দিতে থাকেন, ‘সিসি, তুই ক্ষমতা ছাড়’।

কিন্তু আকস্মিক এ বিক্ষোভে বিভিন্ন প্রশ্ন উঠে আসছে।ওয়াশিংটন ডিসিভিত্তিক ব্রুকিংস ইনস্টিটিউশনের মধ্যপ্রাচ্যনীতিবিষয়ক কেন্দ্রের গবেষক খালিদ এলজিনদি বলেন, সামাজিকমাধ্যমে বিক্ষোভের ছবি দেখে মিসরীয় পরিস্থিতি মূল্যায়ন করতে তিনি অস্বস্তিবোধ করছেন।তিনি বলেন, কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ হচ্ছে, ছোট্ট আকারে হলেও। এমন একটি সরকারের শাসনামালে এই বিক্ষোভ হচ্ছে, যখন ভিন্নমতের প্রতি শূন্যসহনীয় নীতি অবলম্বন করা হচ্ছে।এমন একসময় মিসরে এই বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে, যখন জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্ক যাচ্ছেন মিসরীয় প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি।

কিন্তু সিসির নিউইয়র্ক সফর নিয়ে আল-জাজিরার সাংবাদিক আহমেদ মনসুর জানালেন আরেক কথা। তার মতে, স্বৈরশাসক সিসি জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে যাননি যেমনটি তিনি ঘোষণা করেছিলেন। তিনি মিশর থেকে নিউইয়র্ক গিয়েছেন ঠিকই, তবে তা হল পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য।গণমাধ্যমের ঘনিষ্ঠ সূত্রের বরাতে আহমদ মনসুর

জানান, সিসি মূলত বাইরে থেকে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও আশ্রয় অনুসন্ধান করতে গিয়েছেন। মিসরীয় জনগণ দীর্ঘদিনের ভয় ও বাধা ভেঙে তার পতনের দাবিতে রাস্তায় নেমে আসার বিষয়টি তিনি আগে থেকেই আঁচ করতে পেরেছিলেন।মিসরের সবশেষ পরিস্থিতি কোনদিকে গড়াবে তা এখন পর্যন্ত স্পষ্ট নয়। তবে দীর্ঘদিনের অবরুদ্ধ পরিস্থিতি মিসরীয় জনগণের মনে সিসির বিরুদ্ধে যে ক্ষোভ রয়েছে তা যেকোনো সময় বিস্ফোরণ ঘটতে পারে।